খুলনা | মঙ্গলবার | ২১ জানুয়ারী ২০২০ | ৮ মাঘ ১৪২৬ |

শিরোনাম :

Shomoyer Khobor

এশিয়ার মধ্যে আন্তর্জাতিকমানের অন্যতম বিশ্ববিদ্যালয় হবে খুকৃবি : উপাচার্য

এন আই রকি | প্রকাশিত ০৭ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:৩০:০০

দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের দীর্ঘদিনের প্রত্যাশা ছিল খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিশ্র“তি বাস্তবায়নে অংশ হিসেবে ২০১৫ সালের ১৪ জুলাই খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (খুকৃবি) আইন পাস হয়। এরপর দীর্ঘ কয়েক বছর পর ২০১৮ সালের ১১ সেপ্টেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর হিসেবে নিয়োগ পান বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও কৃষি বিজ্ঞানী প্রফেসর ড. মোঃ শহীদুর রহমান খান। কঠোর চ্যালেঞ্জ নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম শুরু করেন প্রথম ভাইস চ্যান্সেলর। ইতোমধ্যে বর্তমান সরকারের সহযোগিতায় অগ্রগতি হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ে। গেল সপ্তাহে ২য় ব্যাচের ভর্তি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। শিক্ষক নিয়োগসহ গুরুত্বপূর্ণ পদে জনবল নিয়োগ প্রক্রিয়াধীন। ভবিষ্যতে খুকৃবি হবে এশিয়া মহাদেশের মধ্যে আন্তর্জাতিক মানের অন্যতম বিশ্ববিদ্যালয় এমনটাই প্রত্যাশা ভিসি’র।
সময়ের খবরের সাথে একান্ত সাক্ষাতকারে ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ শহীদুর রহমান খান বলেন, খুকৃবি এ অঞ্চলের মানুষের বড় একটা অর্জন। প্রধানমন্ত্রীর স্বদিচ্ছায় বিশ্ববিদ্যালয়ের অগ্রগতি সন্তোষজনক। হয়তা এখনও দৃশ্যমান কিছু দেখা যাচ্ছে না। তবে আগামী ৬ মাসের মধ্যে শিক্ষার্থীদের হোস্টেল, শিক্ষক, জনবলসহ একাডেমিক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য যা দরকার সেটা দৃশ্যমান হবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ১ম ব্যাচের শিক্ষার্থীদের অভিজ্ঞ শিক্ষকদের দিয়ে ক্লাস নেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি প্রাকটিক্যালের জন্য দেশের অন্যান্য কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের নেওয়া হয়েছে। 
তিনি আরও বলেন, এ অঞ্চলে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রয়োজনীয়তা অনেক। তাছাড়া এখানকার শিক্ষার্থীরাও অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অনেক প্রাকৃতিক সুবিধা পাবে। বিশেষ করে খুলনায় সুন্দরবন, দেশের একমাত্র মহিষ খামার, ডুমুরিয়া এলাকায় অত্যাধুনিক ফসলের আবাদসহ অনেক কিছু রয়েছে। যা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের শিক্ষা জীবনে এবং জ্ঞানার্জনে কাজে আসবে। ভবিষতে খুকৃবিকে এশিয়া মহাদেশের মধ্যে আন্তর্জাতিক মানের অন্যতম বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে গড়ে তোলার পরিকল্পনা নিয়ে এগিয়ে যাওয়া হচ্ছে।
উপাচার্য বলেন, আমি নিয়োগ যোগদানের পর ২০১৮ সালের ২১ নভেম্বর বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক প্রফেসর ড. মোঃ আখতার হোসেন চৌধুরীকে সভাপতি করে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ৯ জন অভিজ্ঞ শিক্ষকদের সমন্বয়ে একটি উচ্চ পর্যায়ের টেকনিক্যাল কমিটি গঠন করা হয়েছে। এরপর একই বছরের ৭ ডিসেম্বর টেকনিক্যাল কমিটি বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রাথমিক পর্যায়ে ৭টি অনুষদ এবং সংশ্লিষ্ট অনুষদের অধীনে ৫১টি বিভাগ খোলাসহ ডিগ্রির নামকরণ বিষয়ে সুপারিশ প্রদান করেন। প্রস্তাবিত অনুষদগুলো হলো ভেটেরিনারি, এনিম্যাল এ্যান্ড বায়োমেডিকেল সায়েন্সেস অনুষদ, এগ্রিকালচার অনুষদ, ফিশারিজ এ্যান্ড ওশান সায়েন্সেস অনুষদ, এগ্রিকালচারাল ইকোনমিক্স এ্যান্ড এগ্রিবিজনেস স্টাডিজ অনুষদ, এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং এ্যান্ড টেকনোলজি অনুষদ, ফুড সায়েন্সেস এ্যান্ড সেফটি অনুষদ এবং এনভায়রনমেন্ট, ডিজাস্টার রিসক এ্যান্ড এগ্রোকাইমেটিক স্টাডিজ অনুষদ। 
তিনি আরও বলেন, ২০১৯ সালের ৪ এপ্রিল খুকৃবি’র ১ম ব্যাচে ভেটেরিনারি, এনিম্যাল এ্যান্ড বায়োমেডিকেল সায়েন্সেস অনুষদ এবং এগ্রিকালচার অনুষদে ৬০ জন শিক্ষার্থী ভর্তি হয়েছে। গেল সপ্তাহে বিশ্ববিদ্যালয়ে নতুন করে ফিশারিজ এ্যান্ড ওশান সায়েন্সেস অনুষদ, এগ্রিকালচারাল ইকোনমিক্স এ্যান্ড এগ্রিবিজনেস স্টাডিজ অনুষদ, এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং এ্যান্ড টেকনোলজি অনুষদে শিক্ষার্থী ভর্তি হওয়ার জন্য আবেদন করেছেন। সব মিলিয়ে এ বছর ১৫০ জন শিক্ষার্থী ভর্তির সুযোগ পাচ্ছে।
এ প্রতিবেদককে উপাচার্য আরও বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের শুরুর জন্য প্রাথমিক ভাবে কেসিসি’র নিকট থেকে ক্যাম্পাস ভাড়া করা হয়েছে। শিক্ষার্থীদের জন্য হোস্টেলের জায়গাও নির্ধারণ করা হয়েছে। ছাত্র ও ছাত্রীদের জন্য ২টি হোস্টেল প্রাথমিকভাবে ভাড়া করা হবে। শিক্ষক নিয়োগ না হওয়ার কারণে দেশের বিভিন্ন স্বনামধন্য বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অভিজ্ঞ শিক্ষক এসে খুকৃবি’র শিক্ষার্থীদের ক্লাস নিচ্ছে। নিয়োগ প্রক্রিয়া চূড়ান্ত হলে এ সংকট কমবে। সর্বশেষ তিনি বলেন, খুকৃবি’র জমি অধিগ্রহণের জন্য ফিজিবিলিটি স্ট্যাডি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এটা না হলে কোনভাবেই জমি অধিগ্রহণ করা সম্ভব হবে না।


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ



৫১ বোতল ফেন্সিডিলসহ  একজন গ্রেফতার

৫১ বোতল ফেন্সিডিলসহ  একজন গ্রেফতার

২১ জানুয়ারী, ২০২০ ০০:৫২







খসড়া তালিকায় ভোটার  ১০ কোটি ৯৬ লাখ

খসড়া তালিকায় ভোটার  ১০ কোটি ৯৬ লাখ

২১ জানুয়ারী, ২০২০ ০০:৪০