খুলনা | শুক্রবার | ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২২ অগ্রাহায়ণ ১৪২৬ |

Shomoyer Khobor

ভাড়া ক্যাম্পাসেই চলছে কার্যক্রম জমি অধিগ্রহণে নেই অগ্রগতি

এন আই রকি | প্রকাশিত ০৩ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০১:১০:০০

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিশ্র“তিতে খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (খুকৃবি) শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়েছে। নির্ধারিত জায়গা না থাকায় নগরীর দেয়ানা মধ্যপাড়ায় দৌলতপুর কলেজিয়েট স্কুল ভবনের দোতলা এবং তিনতলা ভাড়া নিয়ে চলতি বছরের ৪ এপ্রিল এ শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়। জমি অধিগ্রহণের জটিলতা নিরসন না হওয়ায় এখনও অবধি ভাড়া করা ভবনেই নেওয়া হচ্ছে ক্লাস। কবে নাগাদ জমি অধিগ্রহণ কার্যক্রম শুরু হবে তাও বলা যাচ্ছে না এই মুহূর্তেই। তবে খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন শীর্ষক প্রকল্পের ডিপিপি প্রণয়নের জন্য ফিজিবিলিটি টিম ইতোমধ্যে কাজ শুরু করেছে বলে জানা গেছে।
জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রাথমিক পর্যায়ে ৭টি অনুষদের অধিনে ৫১টি বিভাগের শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনার জন্য ৭টি একাডেমিক ভবন, ১টি প্রশাসনিক ভবন, কৃষি বিষয়ক বিভিন্ন ফার্ম, কৃষি খামার, মৎস্য খামার, ল্যাবরেটরি, ওয়ার্কসপ, ইন্ডাস্ট্রি, গবেষণার স্থান, রিসার্স সেন্টার, ইনস্টিটিউট, আবাসিক হল, বাসস্থান, শিক্ষা আনুষঙ্গিক সুবিধাদি নির্মাণের জন্য ১৫শ’ একর জমি অধিগ্রহণের প্রস্তাব নির্ধারণে সুপারিশ করা হয়েছে। 
সরেজমিনে নগরীর দৌলতপুর কলেজিয়েট স্কুল ভবনে গিয়ে দেখা যায়, ভবনের দো’তলার একটি পশ্চিম পাশের কক্ষে উপাচার্যের জন্য একটি টেবিল, কয়েকটি চেয়ার আছে। তার পাশেই কয়েকজন কর্মকর্তা ও অতিথি শিক্ষকদের বসার ব্যবস্থা রয়েছে। পাশাপাশি ভবনটির সামনের বারান্দায় বেঞ্চে বসে রয়েছে আরও কয়েকজন কর্মচারী। এরপর পাশের কক্ষগুলোতে দেখা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ক্লাস নেওয়া হচ্ছে। তবে পর্যাপ্ত শিক্ষার্থী না হওয়ায় তৃতীয় তলায় এখনও ক্লাস নেওয়া শুরু হয়নি। খুকৃবির শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়েছিল ভেটেরিনারি, এনিম্যাল এ্যান্ড বায়োমেডিকেল সায়েন্সেস অনুষদ এবং এগ্রিকালচার অনুষদ। আর এতে মোট শিক্ষার্থী ৬০ জন। 
একাধিক শিক্ষার্থীরা জানায়, যেহেতু বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়েছে। খুব দ্রুত জমি অধিগ্রহণের কাজ শেষ করে দৃশ্যমান ভবনও দেখা যাবে। আমরা বর্তমান খুকৃবির কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে আন্তরিকতা দেখতে পাচ্ছি। বিশেষ করে আমাদের ভাইস চ্যান্সেলর ও ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার আমাদের সকল ব্যাপারে খুবই আন্তরিক। আশাকরি প্রধানমন্ত্রী আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য প্রয়োজনীয় সকল পদক্ষেপ খুব দ্রুত গ্রহণ করবেন।  
উল্লেখ্য, ২০১১ সালের ৫ মার্চ খালিশপুরের জনসভায় প্রধানমন্ত্রী খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের প্রতিশ্র“তি দিয়েছিলেন। এরপর ২০১৫ সালের ১৪ জুলাই খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন পাস হয়। পরবর্তীতে ২০১৮ সালের ১১ সেপ্টেম্বর প্রফেসর ড. মোঃ শহীদুর রহমানকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর হিসেবে নিয়োগ পান। দু’টি বিভাগ নিয়ে শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয় ২০১৯ সালের ৪ এপ্রিল।


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ


বিজয়ের মাস ডিসেম্বর 

বিজয়ের মাস ডিসেম্বর 

০৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:৫২

নিরালায় কেডিএ’র উচ্ছেদ অভিযান

নিরালায় কেডিএ’র উচ্ছেদ অভিযান

০৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০১:১৫











ব্রেকিং নিউজ


বিজয়ের মাস ডিসেম্বর 

বিজয়ের মাস ডিসেম্বর 

০৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:৫২

নিরালায় কেডিএ’র উচ্ছেদ অভিযান

নিরালায় কেডিএ’র উচ্ছেদ অভিযান

০৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০১:১৫