খুলনা | সোমবার | ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২ পৌষ ১৪২৬ |

Shomoyer Khobor

সাতক্ষীরায় সাংবাদিক ইয়ারব হোসেন হামলার  ৬ বছরেও স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারেনি

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি | প্রকাশিত ০৩ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০:০০

সাতক্ষীরায় সাংবাদিক ইয়ারব হোসেন হামলার  ৬ বছরেও স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারেনি

মাথা, কোমর ও পায়ের প্রচন্ড ব্যথা নিয়ে এখন আর স্বাভাবিকভাবে চলাফেলা করতে পারি না। অনেক কষ্টে চলাফেরা করলেও ডান পায়ে সমস্যা হয়। তবে বেশি সময় চলাফেরা করলে ডান পা ও মাথায় যন্ত্রণা করে। পুরানো কথা বেশি দিন মনে রাখতে পারিনা, ভুলে যাই। এছাড়া দিনে বা রাতে মাথার ডান পাশে ও কোমরের নীচ থেকে দুই পায়ে যন্ত্রণায় কারনে ঠিকমত ঘুমাতে পারিনা। অধিকাংশ দিনই মাথার যন্ত্রণায় ঘুম না আসায় রাতভর জেগে থাকতে হয়। এসব কথা বলইে অজানা আতংকে কিছু সময় নিরব থাকেন সাংবাদিক ইয়ারব হোসেন।
সাতক্ষীরা সদর উপজেলার তুজুলপুর কৃষক ক্লাবে বসে শুক্রবার সন্ধ্যায় এ ভাবেই নিজের শারিরিক অবস্থার বর্ণনা দিচ্ছিলেন সন্ত্রাসী হামলার শিকার দৈনিক পত্রদূতের তৎকালীন সিনিয়র প্রতিনিধি ও মানবজমিনের সাতক্ষীরা প্রতিনিধি সাংবাদিক ইয়ারব হোসেন।
বিগত ২০১৩ সালের ৩০ নভেম্বর সরকার বিরোধীদের হরতাল অবরোধ চলাকালীন সংবাদ সংগ্রহের সময় পূর্ব পরিকল্পিতভাবে জামায়াত-শিবির ক্যাডারা তার উপর হামলা চালায়। সন্ত্রাসী হামলার শিকার সাংবাদিক ইয়ারব হোসেন আরো বলেন, তুজুলপুর গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে সকাল ১০ টার দিকে মোটরসাইকেলযোগে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের উদ্দেশ্যে রওনা হই। প্রতিমধ্যে আখড়াখোলা-দেবনগর রাস্তার উপর আগে থেকে অবস্থান করা জামায়াত-শিবিরের সস্বস্ত্র ক্যাডাররা আমার গতিরোধ করে এবং চারিদিক থেকে ঘিরে ধরে। এ সময় সন্ত্রাসীদের হাতে থাকা লোহার রড ও দেশীয় ধারাল অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে ও পিটিয়ে জখম করে। 
স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, গুরুতর জখম অবস্থায় পড়ে থাকা ইয়ারবকে মৃত ভেবে হামলাকারীরা রাস্তার পাশে ফেলে রাখে। এ সময় এলাকার কিছু মহিলা তাকে উদ্ধার করতে গেলে সন্ত্রাসীরা তাদেরকেও বাঁধা দেয়। পরে সংবাদ পেয়ে সাংবাদিকরা সাতক্ষীরা আইন-শৃংখলা বাহিনীর সহযোগীতায় উদ্ধার করে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।
স্থানীয় সাংবাদিক মনিরুল ইসলাম মনি জানান, সাংবাদিক ইয়ারব হোসেনকে আশংকাজনক অবস্থায় সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হলে ১৭ দিন অচেতন থাকার পর তার জ্ঞান ফেরে। পরে ১ মাস ৮ দিন হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে যুদ্ধ করে কিছুটা সুস্থ্য হলে তাকে বাড়িতে নিয়ে আসা হয়। তিনি বলেন, বর্তমানে ভারতের বেলভিউ নার্সিম হোম, পিয়ারলেস ও রবীন্দ্রনাথ টেগর হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন তিনি। কিছুটা সুস্থ্য হয়ে উঠলেও তিনি নানাভাবে এখনো শারিরিক ঝুঁকির মধ্যে রয়েছেন।
অপরদিকে এ মামলায় কয়েকজন আসামিকে পুলিশ গ্রেফতার করলেও বাকী আসামিরা রয়েছে ধরা ছোয়ার বাইরে। গ্রেফতারকৃত অসামিরা জামিন নিয়ে প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে। যার কারনে অসুস্থ্য সাংবাদিক ইয়ারব হোসেন ও তার পরিবারের সদস্যরা এখনও নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন।


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ


বেসরকারি সোনালী জুট মিল বন্ধ ঘোষণা

বেসরকারি সোনালী জুট মিল বন্ধ ঘোষণা

১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০১:৩০









মহান বিজয় দিবস আজ

মহান বিজয় দিবস আজ

১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:৩৮



ব্রেকিং নিউজ


বেসরকারি সোনালী জুট মিল বন্ধ ঘোষণা

বেসরকারি সোনালী জুট মিল বন্ধ ঘোষণা

১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০১:৩০







বিজয় দিবস ও আজকের মূল্যায়ন

বিজয় দিবস ও আজকের মূল্যায়ন

১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০১:২১



বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমীন আমাদের গর্ব

বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমীন আমাদের গর্ব

১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০১:১৬