খুলনা | সোমবার | ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২ পৌষ ১৪২৬ |

Shomoyer Khobor

সুন্দরবনের ক্ষতি নিরূপণে জরিপ করবে বন বিভাগ

নিজস্ব প্রতিবেদক | প্রকাশিত ১২ নভেম্বর, ২০১৯ ০১:১৪:০০

দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল তথা দেশে ঘূর্ণিঝড়, জলোচ্ছ্বাসসহ প্রাকৃতিক দুর্যোগের অতন্ত্র প্রহরী সুন্দরবন। জনপদে আঘাত হানার পূর্বেই গতি কমিয়ে দেয়ায় ঘূর্ণিঝড়ের ধকলটাই সইতে হয় সুন্দরবনকে। ফলে ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা থাকে সেখানে বেশি। ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’র আঘাতে সুন্দরবনের ক্ষয়ক্ষতি নিরূপণে জরিপ করবে বন বিভাগ। ইতোমধ্যে গতকাল সোমবার থেকে কাজ শুরু করেছেন বন বিভাগের ৬৩টি ক্যাম্পের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। তারা সরেজমিনে দেখে ক্ষয়ক্ষতির তথ্য তুলে ধরবে। এতে দুই, তিন দিন সময় লাগতে পারে বলে জানা গেছে।
প্রসঙ্গত, ফণী, মহসেন, কোমেন, নার্গিস,, রোয়ানু, রশ্মি’, মোরা, আইলা ও সিডরের মতো ঘূর্ণিঝড়, জলোচ্ছ্বাস ও কালবৈশাখীসহ প্রাকৃতিক দুর্যোগের অতন্ত্র প্রহরী বিশ্বখ্যাত ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট সুন্দরবন। আবহাওয়ার পূর্বাভাস অনুযায়ী বিধ্বংসী না হয়ে প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষয়ক্ষতি কম হওয়ার নেপথ্যে সুন্দরবনই মূল সহায়ক।
সুন্দরবন পশ্চিম বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মোঃ বশির আল মামুন জানান, সুন্দরবনের সামগ্রিক ক্ষতি নিরূপণের চেষ্টা চলছে। সার্ভে না করে সুন্দরবনের বিষয়ে অনুমান করে কিছু বলা যাবে না। প্রাথমিকভাবে কোনও বন্যপ্রাণি হতাহত বা ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার সুনির্দিষ্ট তথ্য বা আলামত পাওয়া যায়নি। ভাটার সময় ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানার ফলে জলোচ্ছ্বাস ছিল না। দমকা হাওয়ার কারণে বনের ভেতরের গাছপালা উপড়ে এবং ডাল ভেঙেছে। এ কারণে সুন্দরবনের ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ এখনই নিরূপণ করা কঠিন। স্বচক্ষে দেখে ক্ষয়ক্ষতির একটি সুষ্ঠু ও নির্ভুল তথ্য তুলে ধরার চেষ্টা করছি। সে জন্য দুই থেকে তিন দিন সময় লাগতে পারে।
খুলনা অঞ্চল বন সংরক্ষক মোঃ মঈন উদ্দিন খান জানান, ঘূর্ণিঝড়ে বন বিভাগের কিছু ক্যাম্প, কাঠের পন্টুন, জেটি, ওয়াকওয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তবে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি বা বন্যপ্রাণির হতাহতের কোন খবর পাওয়া যায়নি। কিছু গাছপালার ডাল ভেঙেছে। বনের ভেতরে থাকা ৬৩টি ক্যাম্পের কর্মীরা ক্ষয়ক্ষতি নিরূপণের কাজ শুরু করেছেন। এ অবস্থায় সুন্দরবনে আপাপত পর্যটকদের প্রবেশে অনুমতি দেয়া হবে না।
বন বিভাগের একাধিক সূত্র জানান, বুলবুলের আঘাতে কয়রার দক্ষিণ বেদকাশির কোবাদক স্টেশনের কাঠের ১০০ ফুট দৈর্ঘের জেটিটি নদীতে ভেসে গেছে। ব্যারাকের চাল ও রান্নাঘর ক্ষতিগ্রস্ত হয়। সাতক্ষীরা রেঞ্জের পুষ্পকাঠি ফরেস্ট স্টেশনের ঘরের টিনের চালা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কদমতলার এফজি ব্যারাকের টিনের চাল উড়েছে ও রান্নাঘর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কাঠশ্বর অফিসের ছোট ট্রলার নদীতে ডুবে গেছে এবং পাকঘর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। চুনকুড়ির সোলার প্যানেল নদীতে ভেসে গেছে। দোবেকী টহল ফাঁড়ির ৪০ ফুট দীর্ঘ পন্টুনটি ভেঙে গেছে। নলিয়ান রেঞ্জ অফিসে যাতায়াতের রাস্তাটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এবং এই অফিস ঘিরে থাকা গাছপালা ভেঙে পড়েছে।
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ


বেসরকারি সোনালী জুট মিল বন্ধ ঘোষণা

বেসরকারি সোনালী জুট মিল বন্ধ ঘোষণা

১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০১:৩০









মহান বিজয় দিবস আজ

মহান বিজয় দিবস আজ

১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:৩৮



ব্রেকিং নিউজ


বেসরকারি সোনালী জুট মিল বন্ধ ঘোষণা

বেসরকারি সোনালী জুট মিল বন্ধ ঘোষণা

১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০১:৩০







বিজয় দিবস ও আজকের মূল্যায়ন

বিজয় দিবস ও আজকের মূল্যায়ন

১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০১:২১



বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমীন আমাদের গর্ব

বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমীন আমাদের গর্ব

১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০১:১৬