খুলনা | রবিবার | ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯ | ১ পৌষ ১৪২৬ |

Shomoyer Khobor

সারাদেশে ভর্তি ৯৭ হাজার ৩৯১ জন, মৃত্যু ১১২

আগামী বছর আরও ভয়াবহ ডেঙ্গুর শঙ্কা!

খবর প্রতিবেদন | প্রকাশিত ০৯ নভেম্বর, ২০১৯ ০১:১১:০০

চলতি বছর শুরু হওয়া ডেঙ্গু বিভিন্ন কারণে সম্পূর্ণরূপে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হয়নি। বরং বছরব্যাপী ডেঙ্গু রোগে আক্রান্তের সংখ্যা ওঠানামা করেছে। কখনও কখনও তা আশঙ্কাজনক পর্যায়েও চলে গেছে। আর ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা নিয়ে সরকারি হিসেবের সঙ্গে বেসরকারি হিসাবের রয়েছে বিপুল পার্থক্য। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সরকারি হিসাবকে ‘ডেঙ্গু আক্রান্ত প্রকৃত রোগী ও প্রকৃত মৃত্যুর আসল চিত্র’ বলে ধরা যাবে না। তারা বলছেন, সরকারি হিসাবের চেয়ে প্রকৃত সংখ্যা অনেক বেশি। ডেঙ্গু প্রতিরোধে এখন থেকেই বছরব্যাপী কর্মপরিকল্পনা-কর্মকৌশল নির্ধারণ করে সে অনুযায়ী কাজ না করলে আগামী বছর রোগটি আরও ভয়াবহ আকার ধারণ করবে।
সরকারের স্বাস্থ্য অধিদফতরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের তথ্য বলছে, চলতি বছরে গত ৭ নভেম্বর পর্যন্ত ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে ঢাকাসহ সারাদেশের হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ৯৭ হাজার ৩৯১ জন। হাসপাতাল ছেড়েছেন ৯৬ হাজার ৩৮৮ জন। 
চলতি বছরে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সংখ্যাও রেকর্ড করেছে। সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর) ডেঙ্গুতে মৃত্যুর সংখ্যা নিশ্চিত করতে গঠন করে একটি ডেথ রিভিউ কমিটি। 
গতকাল শনিবার কন্ট্রোল রুম থেকে জানা গেছে, এ পর্যন্ত আইইডিসিআরে বিভিন্ন হাসপাতাল থেকে আসা ২৫১টি মৃত্যুর ঘটনার মধ্যে ১৭৯টি পর্যালোচনা করে তারা ১১২টি মৃত্যু ডেঙ্গুতে হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে। এর আগে ২০০০ সালে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে সর্বোচ্চ মৃত্যু ছিল ৯৩টি।
তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সরকারি এই হিসাবের চেয়ে ডেঙ্গু আক্রান্ত ‘প্রকৃত রোগী এবং প্রকৃত মৃত্যুর আসল চিত্র’ বলে ধরা যাবে না, প্রকৃত রোগীর সংখ্যা আরও অনেক বেশি। কন্ট্রোল রুম যে কয়টি হাসপাতালের তথ্য দেয়, তার বাইরে হাসপাতাল সংখ্যা অনেক বেশি, ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে গলির ওষুধের দোকানে যাওয়াদের সংখ্যাও এতে যোগ করা হয় না, হাসপাতালে বহির্বিভাগ থেকে কত রোগী চিকিৎসা নিয়েছেন, সেটাও এই তথ্যের ভেতরে নেই। কেবল ভর্তি হওয়া রোগীর সংখ্যা দিয়েছেন তারা। আর বিপুল সংখ্যক রোগী রয়েছেন, যারা চিকিৎসকের কাছে না গিয়ে, হাসপাতালে ভর্তি না হয়ে বাড়িতে চিকিৎসা নিয়েছেন, সরকারি হিসাবে যুক্ত হয়নি তারাও, যারা চিকিৎসকদের ব্যক্তিগত চেম্বারে গিয়ে চিকিৎসা নিয়েছেন। তাই ঠিক কত মানুষ এবারে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছেন তার সঠিক পরিসংখ্যান সরকারি এই হিসাব থেকে পাওয়া সম্ভব নয়।
কন্ট্রোল রুম জানায়, ৭ নভেম্বর পর্যন্ত এ মাসে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছেন এক হাজার ২৯৫ জন। এখনও কমেনি ডেঙ্গুর প্রকোপ, কতদিন এ অবস্থা থাকবে সেটা বলতে পারছেন না কেউ। যদিও স্বাস্থ্য অধিদফতর বলছে, ডেঙ্গু পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে।
জানতে চাইলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ও ভাইরাস বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডাঃ নজরুল ইসলাম বলেন, ‘পুরো দেশে মশা নিয়ন্ত্রণে। এখন থেকেই কার্যকর ভূমিকা রাখতে হবে, মশক নিধন কার্যক্রম ঝিমিয়ে পড়ার কোনও সুযোগ নেই। নয়তো আগামী বছর ডেঙ্গুর প্রকোপ আরও ভয়াবহ হতে পারে।’
এদিকে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণের বিষয়ে কাজ করেছেন আইসিডিডিআর’বির সাবেক গবেষক আতিক আহসান। তিনি বলেন, ‘ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে একটি সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনার প্রয়োজন। ডেঙ্গু এখন আর এপিডেমিক নয়, এনডেমিক হয়ে গেছে; সারা বছর ধরেই এতে মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে বলে জানিয়েছে আইইডিসিআর। প্রতি মাসেই কোথাও না কোথাও মানুষ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছে এই বছরে।’
আতিক আহসান আরও বলেন, ‘যেখানে ডেঙ্গু রোগী রয়েছে, সেখানেই মশা নিধনের ব্যবস্থা নিতে হবে, আর ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণ করতে হলে ডেঙ্গুর প্রকোপ কোথায় বেশি বা কম সেই বিষয়টি সবার আগে জানা প্রয়োজন। কারণ, ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা জানা গেলেই সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া যাবে।’
জানতে চাইলে রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর)-এর সিনিয়র বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডাঃ এস এম আলমগীর বলেন, ‘‘ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে দেশজুড়ে যেসব কার্যক্রম চলছিল সে কাজগুলো চলমান রাখতে হবে, কোনোভাবেই এসব কাজ থামিয়ে দিলে চলবে না। একইসঙ্গে মানুষকে ব্যক্তিগতভাবেও সচেতন থাকতে হবে।’
জানতে চাইলে কীটতত্ত্ববিদ কবিরুল বাশার বলেন, ‘‘ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণের সব প্রোগ্রাম ‘স্লো’ হয়ে গেছে। কোনও কর্মসূচি এখন নেই বললেই চলে। কিন্তু ডেঙ্গু বছরব্যাপী চলবে। এখন আর কোনও নির্দিষ্ট মাস বা নির্দিষ্ট সময় নেই, কখনও কখনও কিছুটা হয়তো কমে আসবে।’’
কবিরুল বাশার বলেন, ‘শীতের সময়ে কমবে। কারণ, আউটডোর কন্টেইনার কমে যাবে। বৃষ্টি কম মানে আউটডোরে মশা তৈরির জায়গা কমবে, কিন্তু ইনডোরে যে মশা তৈরির জায়গাগুলো রয়েছে, যেসব জায়গায় মানুষ পানি জমিয়ে রাখে, আন্ডার কনস্ট্রাকশন যেসব কাজ চলছে, সেখানে সবসময়ই পানি জমে থাকে। এজন্য সারা বছর ডেঙ্গু থাকবে। তাই আগামী বছরের জন্য যেসব প্রোগ্রাম বা প্ল্যানিং রয়েছে, সেগুলো সিটি করপোরেশন, স্থানীয় সরকারমন্ত্রী, সচিব সবাইকে দেওয়া হয়েছে। এসব পরিকল্পনা যদি কার্যকর করা না হয়, তাহলে আগামী বছরে ডেঙ্গু ভয়াবহ আকার ধারণ করবে।’


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ






বিজয়ের মাস ডিসেম্বর 

বিজয়ের মাস ডিসেম্বর 

১৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:৫১