খুলনা | শুক্রবার | ১৫ নভেম্বর ২০১৯ | ৩০ কার্তিক ১৪২৬ |

Shomoyer Khobor

পাকিস্তানে কাউকে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি করতে দেয়া হবে না : সেনাবাহিনী  

ইমরান খানের অপসারণ দাবিতে পদযাত্রা শেষ, ইসলামাবাদে মাওলানা ডিজেল 

খবর প্রতিবেদন  | প্রকাশিত ০৪ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:২৮:০০

প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে ইমরান খানের অপসারণের দাবিতে ‘মাওলানা ডিজেল’ খ্যাত ওলামা, ডানপন্থি জামিয়াত উলামা-ই-ইসলাম পার্টির প্রধান ফজলুর রহমানের নেতৃত্বে আন্দোলনে নেমেছে পাকিস্তানের বিরোধী দলগুলো। দীর্ঘ এক পদযাত্রা শেষে গত শুক্রবার ভোরের দিকে মাওলানা ডিজেল ও অন্য দলগুলোর হাজার হাজার অনুসারী ইমরান খানের পদত্যাগের দাবিতে রাজধানী ইসলামাবাদে জড়ো হয়। আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম থেকে এ তথ্য জানা যায়।  অপরদিকে পাকিস্তানে কাউকে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি করতে দেবে না বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছে সেনাবাহিনী ।  
গত রবিবার (২৭ অক্টোবর) ফজলুর রহমানের নেতৃত্বে দক্ষিণের শহর করাচি থেকে ইসলামাবাদের উদ্দেশ্যে এ পদযাত্রা শুরু হয়। এ সময়ের ভেতর আন্দোলনকারীরা প্রায় ২ হাজার কিলোমিটার পথ পাড়ি দেয়।  এ আন্দোলনে দেশটির সাবেক প্রেসিডেন্ট আসিফ আলি জারদারি ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের অনুসারীরাও অংশ নিয়েছে। দেওবন্দী ঘরানার সুন্নি মতাদর্শী ৬৬ বছর বয়সী মাওলানা ডিজেলের দাবি, হয় ইমরান খানকে প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে সরে দাঁড়াতে হবে, নয়তো তাকে হাজার হাজার মানুষের এ প্রতিবাদ, বিক্ষোভ মোকাবিলা করতে হবে।  
গত বৃহস্পতিবার (৩১ অক্টোবর) যাত্রাপথে আয়োজিত এক সমাবেশে মাওলানা ডিজেল বলেন, আমরা অবৈধ সরকার পতনের লক্ষ্যেই ইসলামাবাদের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেছি। সরকার বিরোধী দলগুলো জানায়, গত বছর দেশটিতে হওয়া নির্বাচনে সেনাবাহিনী অবৈধ হস্তক্ষেপ করে। এবং কারচুপির মধ্য দিয়ে জেনারেলরা নিজেদের পছন্দের পাত্র ইমরান খানকে মসনদে বসায়। পাকিস্তানে গণতান্ত্রিক সরকারকে অস্থিতিশীল করতে প্রায়শই সেনাবাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা পর্দার আড়ালে থেকে নানা ধরনের চাল চালে বলে অভিযোগ রয়েছে। মাওলানা ডিজেলের মুখপাত্র গফুর হায়দারি বলেন, সামরিক হস্তক্ষেপে চলা বর্তমান সরকার পতনের উদ্দেশ্যেই আমাদের এ পদযাত্রা।
অপরদিকে পাকিস্তানে কাউকে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি করতে দেয়া হবে না বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছে সেনাবাহিনী। শুক্রবার গভীর রাতে এমন হুঁশিয়ারির কথা জানিয়ে দিয়েছেন সেনাবাহিনীর মুখপাত্র আইএসপিআরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আসিফ গফুর। তিনি বলেন, পাকিস্তানের সেনাবাহিনী একটি নিরপেক্ষ রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান। সব সময়ই তারা সংবিধানের আওতায় গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত সরকারকে সমর্থন দেয়। প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সরকারকে অবৈধ দাবি করে জমিয়তে উলেমায়ে ইসলামের (জেইউআই-এফ) প্রধান মাওলানা ফজলুর রহমান এই সরকারকে সমর্থন না দিতে ‘রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলোর’ প্রতি আহ্বান জানান। তার এমন আহ্বানের পর সেনাবাহিনীর তরফ থেকে ওই মন্তব্য করা হয়। উল্লে¬খ্য, শুক্রবারের বিক্ষোভে অংশ নিয়ে মাওলানা ফজলুর রহমান পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে অবৈধ আখ্যায়িত করে তাকে পদত্যাগের জন্য দু’দিনের আল্টিমেটাম দেন। সেনাবাহিনীর দিকে ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, ওই সময়ের পরে যদি ইমরান খান পদত্যাগ না করেন এবং তাকে ‘প্রতিষ্ঠানটি’ সুরক্ষা দেয়ার চেষ্টা করে, তাহলে ওই ‘প্রতিষ্ঠানের’ বিষয়ে জনমত গঠন করা হবে। বিরোধীরা অবাধে এই জনমত গঠন করবে।
এর জবাবে এক টেলিভিশন সাক্ষাতকারে জেনারেল আসিফ গফুর বলেন, মাওলানা ফজলুর রহমান একজন সিনিয়র রাজনীতিক। তিনি কোন প্রতিষ্ঠানের বিষয়ে কথা বলেছেন তা তার পরিষ্কার করা উচিত। পাকিস্তানের সেনাবাহিনী রাষ্ট্রীয় একটি নিরপেক্ষ প্রতিষ্ঠান। তারা সব সময়ই গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত সরকারকে সমর্থন করে। তাই কাউকেই দেশে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি করতে দেয়া হবে না। কারণ, দেশ কোনো বিশৃঙ্খলা সহ্য করার সক্ষমতা রাখে না। এ সময় তিনি পাকিস্তান তার পূর্বাঞ্চল ও পশ্চিমাঞ্চলীয় ফ্রন্টে যে নিরাপত্তা চ্যালেঞ্জের মুখে রয়েছে তার উলে¬খ করেন। তিনি বলেন, পাকিস্তান ২০ বছর সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে ঝড়ো লড়াই করছে। অসংখ্য আত্মত্যাগের বিনিময়ে দেশে শান্তি পুনঃস্থাপিত হয়েছে। কষ্টার্জিত এই শান্তি বিঘ্ন করতে দেয়া হবে না কাউকে। খাইবার-পখতুনখাওয়ার জনগণ সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সাহসী যুদ্ধ করেছেন। এখন তাদের শান্তির সুফল নেয়ার সময়।
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ



কুয়েতের প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ

কুয়েতের প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ

১৫ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:১২











ব্রেকিং নিউজ