খুলনা | শনিবার | ২৩ নভেম্বর ২০১৯ | ৮ অগ্রাহায়ণ ১৪২৬ |

Shomoyer Khobor

অভিযুক্ত ইউপি চেয়ারম্যান পলাতক

তেরখাদায় ছেলে হত্যার আড়াই মাস পর মারা গেলেন অস্ত্রের আঘাতে আহত পিতা

নিজস্ব প্রতিবেদক | প্রকাশিত ২২ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:২৫:০০

তেরখাদা উপজেলার ছাগলাদাহ ইউনিয়নের পহরডাঙ্গা গ্রামে ধারালো অস্ত্রের আঘাতে পুত্র হত্যার সময় আহত পিতা পিরু শেখ (৬০) প্রায় দেড় মাস চিকিৎসার পর অবশেষে গতকাল সোমবার মারা গেছেন। পূর্ব শত্র“তার জেরে গত ৭ আগস্ট দিবাগত রাত ১টা থেকে ২টার মধ্যে সংঘবদ্ধ ঘাতকরা ওই গ্রামের পিরু শেখের বাড়িতে প্রবেশ করে ধারালো অস্ত্র দিয়ে উপর্যুপরি কুপিয়ে তার ছেলে নাঈম শেখ (২৬)-কে  হত্যা করে। এসময় পিতা পিরু শেখকে কুপিয়ে রক্তাক্ত অবস্থায় ফেলে রেখে চলে যায় ঘাতকরা। পরিবারের সদস্যরা তাকে প্রথমে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে এক মাস চিকিৎসা শেষে পুনরায় গত সপ্তাহে খুমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়, পরে গতকাল সোমবার পিরু শেখ মারা যায়। 
এদিকে ৭ আগস্ট নাঈম শেখ হত্যার ঘটনায় তেরখাদা থানায় নাঈমের মা মাফুজা খাতুন মামলাটি মামলা দায়ের করেন (নং-৫)। মামলাটি অবশেষে জোড়া হত্যা মামলায় পরিণত হয়েছে। 
এ ব্যাপারে খুলনা জেলা গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক তোফায়েল আহমেদ জানিয়েছেন, এ পর্যন্ত হত্যা মামলার ১১ আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তার মধ্যে অন্যতম আসামি ছাগলাদাহ ইউপি চেয়ারম্যান এস এম দীন ইসলাম হাইকোর্ট থেকে জামিন নেয়ার পর জানা যায় তিনি জামিন পেতে প্রতারণার আশ্রয় নিয়েছেন। যে কারনে তার জামিন বাতিল করে গ্রেফতারি পরোয়ানা ইস্যু করেছে আদালত। এরপর থেকে তিনি পলাতক রয়েছেন।
তিনি আরো জানান, এ হত্যাকান্ডের সকল ক্লু পুলিশ উদ্ধার করেছে। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে ৮ আসামি হত্যায় জড়িত থাকার দায় স্বীকার করে ইতোমধ্যে খুলনার জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন। হত্যাকান্ডে তাদের এবং চেয়ারম্যানের জড়িত থাকার কথাও স্বীকার করেছে। সেই সাথে পুলিশ টেকনোলজির মাধ্যমে হত্যাকান্ডের সময় মধ্যরাতে ঘটনাস্থলে খুনীদের উপস্থিতির বিষয়ে নিশ্চিত হয়েছে। আসামি ইউপি চেয়ারম্যানের বাড়ি ঘটনাস্থল থেকে প্রায় ৪ কিঃমিঃ দূরে হলেও হত্যার সময় তার মোবাইল লোকেশন ছিল মাত্র ১শ’ গজ দূরে। এ হত্যাকান্ডে চেয়ারম্যান কর্তৃক অর্থ বিনিয়োগের বিষয়টিও ১৬৪ ধারার জবানবন্দিতে উঠে এসেছে বলে জানান ওই পুলিশ কর্মকর্তা। 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ