আবরার হত্যা মামলা ডিবিতে ১০ আসামি ৫ দিনের রিমান্ডে


বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যা মামলার গ্রেফতার ১০ আসামিকে পাঁচ দিন হেফাজতে রেখে জিজ্ঞাসাবাদ করবে পুলিশ। চকবাজার থানায় আবরারের বাবার করা মামলায় মঙ্গলবার গ্রেফতারদের আদালতে হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ডের আবেদন করেছিল পুলিশ। শুনানি নিয়ে ঢাকার মহানগর হাকিম সাদবির ইয়াছির আহসান চৌধুরী পাঁচ দিন রিমান্ডের আদেশ দেন বলে জানিয়েছেন মহানগর পুলিশের অপরাধ তথ্য ও প্রসিকিউশন বিভাগের উপ-কমিশনার জাফর হোসেন।
যাদেরকে পুলিশ হেফাজতে পাঠানো হয়েছে তারা হলেন বুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান রাসেল (সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং, দ্বিতীয় বর্ষ), সহ-সভাপতি মুহতাসিম ফুয়াদ (সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং, দ্বিতীয় বর্ষ), সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান রবিন (মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, চতুর্থ বর্ষ), তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক অনিক সরকার (মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, চতুর্থ বর্ষ), ক্রীড়া সম্পাদক মেফতাহুল ইসলাম জিয়ন (নেভাল আর্কিটেকচার অ্যান্ড মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং, চতুর্থ বর্ষ), উপসমাজসেবা সম্পাদক ইফতি মোশাররফ সকাল (বায়ো মেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং, তৃতীয় বর্ষ), সদস্য মুনতাসির আল জেমি (মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ, দ্বিতীয় বর্ষ), মোঃ মুজাহিদুর রহমান মুজাহিদ (ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং, তৃতীয় বর্ষ) এবং মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তৃতীয় বর্ষের খন্দকার তাবাখখারুল ইসলাম তানভির ও একই বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ইসতিয়াক আহম্মেদ মুন্না।
আসামি মুজাহিদুর রহমান মুজাহিদের পক্ষে আইনজীবী মাহবুবুর রহমান, খন্দকার তাবাখখারুল ইসলাম তানভিরের পক্ষে আবেদুর রহমান সবুজ, ইশতিয়াক আহমেদ মুন্নার পক্ষে হুমায়ুন কবির, ইফতি মোশাররফ সকালের পক্ষে আমিরুল ইসলাম জামিনের আবেদন করেন।
আইনজীবীরা বলেন, তাদের মক্কেলরা নেতা বলেই তাদের নাম এজহারে লেখা হয়েছে। তারা আবরারকে মারধরে যুক্ত নন। আবেগের বশবর্তী হয়ে তাদেরকে রিমান্ডে পাঠানোর আবেদন করা হয়েছে। আবারর হত্যার ঘটনাকে ‘দুঃখজনক’ উল্লেখ করে তারা আসল আসামিদের বিচার দাবি করেন। তাদের এ বক্তব্যের বিরোধিতা করেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী সহকারী পাবলিক প্রসিকিউটর হেমায়েত হোসেন হিরণ।
শুনানি নিয়ে বিচারক জামিন আবেদন নাকচ করে রিমান্ডের আদেশ দেন।
চকবাজার থানার পরিদর্শক কবির হোসেন বলেন, “জিজ্ঞাবাদের জন্য ১০ দিন রিমান্ডের আবেদন করেছিলাম। পাঁচদিন মঞ্জুর হয়েছে।”
এদিকে বুয়েট ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন গ্রেপ্তার হওয়া ১০ আসামি। ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) যুগ্ম কমিশনার মাহবুব আলম সংবাদ মাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
এর আগে চকবাজার থানা পুলিশের কাছ থেকে মঙ্গলবারই মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব পেয়েছে ঢাকার গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। ঢাকা মহানগর পুলিশের উপ-কমিশনার মোঃ মাসুদুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। “মঙ্গলবার গোয়েন্দা পুলিশের কাছে মামলার তদন্তভার হস্তান্তর করা হয়েছে,” বলেন এই পুলিশ কর্মকর্তা।


footer logo

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত।

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।