খুলনা | শনিবার | ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ৬ আশ্বিন ১৪২৬ |

Shomoyer Khobor

খুলনা বিভাগে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৬ হাজার, আরও তিন নারীর মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক, যশোর, সাতক্ষীরা ও মণিরামপুর প্রতিনিধি | প্রকাশিত ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:২৮:০০

খুলনা বিভাগের ১০ জেলায় ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা ছয় হাজার ছাড়িয়েছে। এর মধ্যে ৭২ দিনে বিভিন্ন স্থানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২২ জনের মৃত্যু হয়েছে। খুলনা বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদফতর সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। এদিকে সর্বশেষ গত দু’দিনে (মঙ্গল ও বুধবার) যশোর ও সাতক্ষীরায় তিন নারী মারা গেছেন।
অন্যদিকে বিভাগে এখন পর্যন্ত ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়েছেন ৬ হাজার ২১ জন। এর মধ্যে ৫৭১ জন এখনও বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। আর পাঁচ হাজার ১৭১ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। অবশিষ্ট ৩০৮ জনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিভিন্ন হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়েছে।
খুলনা স্বাস্থ্য অধিদফতরের (রোগ নিয়ন্ত্রণ) সহকারী পরিচালক ডাক্তার ফেরদৌসী আক্তার বলেন, গত ১ জুলাই থেকে ১১ সেপ্টেম্বর বেলা এগারোটা পর্যন্ত খুলনা বিভাগের ১০ জেলার মধ্যে যশোরে এক হাজার ৯৫৭ জন, খুলনায় ২০৩ জন, বাগেরহাটে ২২৯ জন, সাতক্ষীরায় ৫৭৩ জন, ঝিনাইদহে ৩৮৫ জন, মাগুরায় ৩২৭ জন, নড়াইলে ৩৬০ জন কুষ্টিয়ায় ৮২৯ জন, চুয়াডাঙ্গায় ১১৬ জন, মেহেরপুরে ১৭০ জন ও খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ৮৭১ জন ভর্তি হন। এরমধ্যে ৫৭১ জন চিকিৎসাধীর আছেন। যার মধ্যে যশোরে ২২৪, খুলনায় ১১, বাগেরহাটে ১৭, সাতক্ষীরায় ৩৫ এবং ঝিনাইদহে ৫৩ জন, মাগুরায় ২৯, নড়াইলে ৮৭, কুষ্টিয়ায় ৮৪, চুয়াডাঙ্গায় ১, মেহেরপুরে ১৫ ও খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৪৫ জন ভর্তি রয়েছেন।
তিনি আরও জানান, এ বিভাগে এখন পর্যন্ত ২২ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। এর মধ্যে খুলনায় ১১, যশোরে ৫, মাগুরায় ১, মেহেরপুরে ১, সাতক্ষীরায় ২, ঝিনাইদহে ১ ও কুষ্টিয়ায় ১ জন মারা গেছেন।
ডাক্তার ফেরদৌসী আক্তার জানান, খুলনা বিভাগে ১০ সেপ্টেম্বর বেলা ১১টা থেকে ১১ সেপ্টেম্বর বেলা ১১টা পর্যন্ত নতুন করে ১৩৮ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়েছেন। এ বিভাগে ডেঙ্গু শনাক্তের জন্য ১৩ হাজার ৪৩৫টি কিটস মজুত রয়েছে।
সাতক্ষীরা : জেলার তালা সদরের এক গৃহবধূ ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার রাত ১১টার দিকে তিনি মারা যান। এ নিয়ে জেলায় এ পর্যন্ত মোট ৫ জন ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। মৃতের নাম রহিমা বেগম (৪৩)। তিনি সাতক্ষীরার তালা সদরের আটারই গ্রামের রফিকুল ইসলাম মোড়লের স্ত্রী।
খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আফি(আরপি) ডাঃ শৈলেন্দ্রনাথ বিশ্বাস ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়ে রহিমা বেগম মারা গেছেন বলে নিশ্চিত করেছেন।
রহিমা বেগমের ছেলে হাররুন মোড়ল জানান, তার মা ডায়বেটিকস রোগে ভুগছিলেন। এর মধ্যে হঠাৎ তার মায়ের প্রচন্ড জ্বর হয়। জ্বর না কমায় তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য গত ৮ সেপ্টেম্বর খুমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এরপর পরীক্ষা নিরীক্ষা শেষে ডেঙ্গু জ্বর ধরা পড়ে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাতে তার মৃত্যু হয়।  
তালা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডাঃ আবু মাউদ জানান, গত ৮ সেপ্টেম্বর তাকে তালা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আনা হলে তার অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে খুলনা মেডিকেলে রেফার করা হয়। এরপর সেখানে তার মৃত্যু হয়।
এদিকে সাতক্ষীরায় গত ২৪ ঘন্টায় আরো ১০ ডেঙ্গু রোগীর সন্ধান মিলেছে। এ নিয়ে সাতক্ষীরায় মঙ্গলবার পর্যন্ত মোট ৫৭৪ জন ডেঙ্গু রোগীকে সনাক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে বিভিন্ন হাসপাতালে এখনও পর্যন্ত ভর্তি রয়েছে ৩৫ জন। চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন ৪১৩ জন। উন্নত চিকিৎসার জন্য অন্যত্র রেফার করা হয়েছে আরো ১২৬ জনকে। আক্রান্তদের সাতক্ষীরা সদর ও মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
যশোর : জেলাতে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে দুই নারীর মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে জাহিদা বেগম (৩৫) নামে এক নারী বুধবার এবং জাহানারা বেগম (৪৫) নামে অপর নারী মঙ্গলবার রাতে মারা যান। জাহিদা বেগম মণিরামপুর উপজেলার হানুয়ার গ্রামের এবং জাহানারা বেগম একই উপজেলার মশ্মিমনগর গ্রামের বাসিন্দা। তিনি উপজেলার হানুয়ার গ্রামের কাদের মোল্লার স্ত্রী।
যশোর জেনারেল হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত তত্ত্বাবধায়ক ডাঃ আব্দুর রহিম মোড়ল জানান, জাহিদা বেগম ও জাহানারা বেগম সোমবার দুপুরে হাসপাতালে ভর্তি হন। পরীক্ষার পর দেখা যায় তারা দু’জনই ডেঙ্গুতে আক্রান্ত। গতকাল বুধবার ভোরে রক্তের প্লাটিনেট কমে যাওয়ায় ৬ টা ২৫ মিনিটে জাহিদা বেগমের মৃত্যু হয়। অপরদিকে জাহানারা বেগমের ডায়েবেটিস নিয়ন্ত্রণে ছিল না। তারপর রক্তের প্লাটিলেট কমে গেলে মঙ্গলবার ভোর ৪টা ৩৫ মিনিটে তার মৃত্যু হয়।
যশোর সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে জানা যায়, গত ২৪ ঘন্টায় যশোর জেনারেল হাসপাতালে নতুন করে ৪৮ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হয়েছেন। এ পর্যন্ত যশোরে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত সংখ্যা ২ হাজার ৪২ জন। এর মধ্যে চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন ১ হাজার ৭৩৩ জন। যশোর জেনারেল হাসপাতালে বর্তমানে চিকিৎসাধীন রয়েছে ৮৫ জন। এছাড়া অন্যান্য উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এবং ক্লিনিকে ২২৪ জন চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এ পর্যন্ত যশোরে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে ৭ জনের মৃত্যু হয়েছে।
এদিকে দেশের বিভিন্ন হাসপাতাল থেকে ডেঙ্গুতে মৃত্যুর ১৯৭টি ঘটনা পর্যালোচনা করার জন্য রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানে (আইইডিসিআর) পাঠানো হয়। এরমধ্যে থেকে ১০১টি ঘটনা পর্যালোচনা করে ৬০টি ডেঙ্গুজনিত বলে নিশ্চিত করেছে তারা। এই হিসাব অনুযায়ী এপ্রিলে ২ জন, জুনে ৫ জন, জুলাইয়ে ২৮ জন এবং আগস্টে ২৫ জন ডেঙ্গুতে মারা গেছেন।
স্বাস্থ্য অধিদফতরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম সূত্রে জানা গেছে চলতি বছরের ১ জানুয়ারি থেকে গতকাল পর্যন্ত ডেঙ্গুতে মোট আক্রান্ত হওয়া রোগীর সংখ্যা মোট ৭৮ হাজার ৬১৭ জন আর চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফেরা রোগীর সংখ্যা ৭৫ হাজার ২৫৫ জন। 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ










খুলনায় তৎপর ৮টি গ্রুপ 

খুলনায় তৎপর ৮টি গ্রুপ 

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০১:২০




ব্রেকিং নিউজ











‘খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যের আরো অবনতি’

‘খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যের আরো অবনতি’

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:৪৩