খুলনা | রবিবার | ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ৬ আশ্বিন ১৪২৬ |

অ্যার্নথাক্স নিয়ে উদ্বেগ কার্যকর পদক্ষেপ নিন

১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০:০০

অ্যার্নথাক্স নিয়ে উদ্বেগ কার্যকর পদক্ষেপ নিন

যে কোনো রোগ ছড়িয়ে পড়লে তা স্বাভাবিকভাবেই উদ্বেগজনক পরিস্থিতিকে স্পষ্ট করে। সম্প্রতি জানা গেছে দেশের কয়েকটি জেলায় অ্যার্নথাক্স রোগ ছড়িয়ে পড়ার ঘটনায় সেসব এলাকার মানুষের মধ্যে উদ্বেগ তৈরি হয়েছে। এই বিষয়টি আমলে নিয়ে যত দ্রুত সম্ভব কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ ও তার সুষ্ঠু বাস্তবায়ন নিশ্চিত করতে হবে সংশ্লিষ্টদের। এ কথা ভুলে যাওয়া যাবে না, দেশে এমনিতেই চিকিৎসাসংক্রান্ত নানাবিধ সংকট বিদ্যমান। এছাড়া চিকিৎসকের সংখ্যাও প্রয়োজনের তুলনায় কম। ফলে কোনো রোগ ছড়িয়ে পড়লে দিশাহারা পরিস্থিতি হওয়ার আশঙ্কা থাকে, এ ক্ষেত্রে করণীয় নির্ধারণ করে তার পরিপ্রেক্ষিতে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণের কোনো বিকল্প থাকতে পারে না আমরা মনে করি।
প্রসঙ্গত বলা দরকার, মানুষের অ্যার্নথাক্স মূলত দুই ধরনের হয়ে থাকে। এক ধরনের অ্যার্নথাক্স হয় পরিপাকতন্ত্রে, আরেক ধরনের অ্যার্নথাক্স শরীরের বাইরের অংশে সংক্রমণ ঘটায়। পরিপাকতন্ত্রে অ্যার্নথাক্স জীবাণুর সংক্রমণ হলে সাধারণত হালকা জ্বর, মাংসপেশিতে ব্যথা, গলা ব্যথার মতো উপসর্গ দেখা দিতে পারে। তবে বাংলাদেশে যে অ্যার্নথাক্স দেখা যায় তা শরীরের বাইরের অংশে প্রভাব ফেলে। এ ধরনের অ্যার্নথাক্সে শরীরের বিভিন্ন জায়গায় ফোঁড়া বা গোটা হয়ে থাকে। আর ফোঁড়া ঠিক হয়ে গেলে হাতে, মুখে বা কাঁধের চামড়ায় দাগ দেখা যেতে পারে। যেসব এলাকায় গবাদিপশু পালন করা হয় সেসব এলাকাতেই সাধারণত অ্যার্নথাক্সের প্রকোপ বেশি দেখা যায়। 
আমরা বলতে চাই, যখন অ্যার্নথাক্স রোগ ছড়িয়ে পড়ার বিষয়টি সামনে আসছে তখন তা গুরুত্বসহকারে আমলে নিতে হবে সংশ্লিষ্টদেরই। অ্যার্নথাক্স প্রতিরোধে মূলত দুই ধরনের পদক্ষেপ নেয়ার বিষয় সামনে এসেছে। প্রথমত, যাদের গরু, মহিষ, ছাগলের মতো গবাদিপশু রয়েছে, তারা যেন তাদের পশুকে নিয়মিত অ্যার্নথাক্সের টিকা দেন, এবং তা নিশ্চিত করতে হবে। আর পশুর যদি অ্যার্নথাক্স হয়েই যায়, সে ক্ষেত্রে পশুকে দ্রুত মাটির নিচে পুঁতে ফেলা প্রয়োজন। সার্বিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ সাপেক্ষে অ্যার্নথাক্স প্রতিরোধে করণীয় সম্পর্কে ব্যাপক প্রচারণাও জরুরি যেন মানুষ সচেতন হতে পারে। মনে রাখতে হবে, এভাবে রোগ ছড়িয়ে পড়লে তা অত্যন্ত উদ্বেগজনক।
বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, দেশে অ্যার্নথাক্স রোগ নিয়ন্ত্রণের ধারণা ও পদক্ষেপ বাস্তবসম্মত নয়। ফলে এই বিষয়টিকে সামনে রেখে যথাযথ পদক্ষেপ নিতে হবে। এছাড়া অ্যার্নথাক্স নিয়ন্ত্রণের ব্যাপারে কিছু পদক্ষেপ পরিলক্ষিত হলেও এই রোগ নির্মূলে দীর্ঘমেয়াদি পদক্ষেপ নাই এমন বিষয়ও আলোচনায় এসেছে। সঙ্গত কারণেই বিষয়টি অনুধাবন করে অ্যার্নথাক্স নির্মূলে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের বিকল্প নেই। আর এটিও আমলে নেয়া সমীচীন। যেহেতু পশু থেকে মানুষের মধ্যে অ্যার্নথাক্স সংক্রমণ হলেও মানুষ থেকে অন্য মানুষের মধ্যে অ্যার্নথাক্স সংক্রমণ হয় না বলে জানা যাচ্ছে, সে ক্ষেত্রে মানুষের অ্যার্নথাক্স নিয়ন্ত্রণের জন্য পশুর অ্যার্নথাক্স নিয়ন্ত্রণই যথেষ্ট। সামগ্রিক পরিস্থিতি আমলে নিয়ে অ্যার্নথাক্স প্রতিরোধে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকুক এমনটি কাম্য।
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ





আমাদের উচ্চশিক্ষার মান  কেন এই অধোগতি?

আমাদের উচ্চশিক্ষার মান  কেন এই অধোগতি?

১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০



আজ পবিত্র আশুরা

আজ পবিত্র আশুরা

১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০






ব্রেকিং নিউজ






বিপুল পরিমান ইয়াবা গাঁজাসহ গ্রেফতার ৮

বিপুল পরিমান ইয়াবা গাঁজাসহ গ্রেফতার ৮

২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:৫৫