সোনাডাঙ্গায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মনিরের মৃত্যুর ঘটনা হত্যা মামলায় সংযোজন


নগরীর সোনাডাঙ্গা ২নং আবাসিক এলাকায় স্ত্রীর পরকীয়া সম্পর্কের জেরে ধারালো অস্ত্রাঘাতে আহত মনির হোসেন (৪২)’র মৃত্যুর ঘটনা হত্যা মামলায় রূপান্তিত হয়েছে। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এস আই সুকান্ত দাশের আবেদনের প্রেক্ষিতে গত রবিবার মহানগর হাকিম মোঃ শাহীদুল ইসলাম দণ্ডবিধির ৩০২/৩৪ ধারায় মামলাটি সংযোজনের আদেশ দিয়েছেন। গত ৩০ আগস্ট ময়লাপোতা রোডস্থ হেলথ কেয়ার নামে একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় প্রায় আড়াই মাস পর মনিরের মৃত্যু হয়। 
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এস আই সুকান্ত দাশ জানান, ২নং আবাসিক এলাকার ১৪নং রোডস্থ ৫৮নং বাড়িতে ছোট স্ত্রীকে নিয়ে বসবাস করেন মনির হোসেন। কিন্তু মনিরের ছোট স্ত্রী ইমামা ওরফে ইমুর (২৫) সাথে পাশের বাসিন্দা মাহাদি অলিদ পাপ্পুর (২৩) পরকীয়া সম্পর্ক ছিলো। এ বিরোধের জেরে গত ১৯ জুন সন্ধ্যায় আসামি পাপ্পুসহ অন্যান্যরা সেখানে অবস্থান নেয়। এরপর তর্কবিতর্কের একপর্যায়ে ধারালো ছুরি মনিরের পেটে ঢুকিয়ে দেওয়া হয়। এরপর তাকে গুরুতর আহত অবস্থায় খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় ভিকটিমের মা জয়নব বেগম বাদী হয়ে পাপ্পুসহ ৪ জনের নামে সোনাডাঙ্গা মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন। আসামিরা হচ্ছে ছোট স্ত্রী ইমু, প্রেমিক পাপ্পু, পাপ্পুর মা ফেরদৌসি বেগম (৪৮) এবং বন্ধু আল আমিন। বর্তমানে তারা সকলেই জামিনে রয়েছে। দীর্ঘ আড়াই মাস চিকিৎসা শেষে স্থানীয় ক্লিনিকে আহত মনিরের চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয়। 
 


footer logo

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত।

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।