চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরেছেন  ৭২ হাজার ৯৪২ ডেঙ্গু রোগী


মশাবাহিত রোগ ডেঙ্গুর প্রকোপ কমতির দিকে। ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তির সংখ্যা যেমন কমছে, তেমনি কমছে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রোগীর সংখ্যাও।
চলতি বছরের এপ্রিলে ৫৮ জন, মে মাসে ১৯৩ জন, জুনে ১৮৮৪ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা নেন। জুলাইয়ে এই সংখ্যা করে বেড়ে দাঁড়ায় ১৬ হাজার ২৫৩ জন। আগস্টে হাসপাতালে ভর্তি ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা সব রেকর্ড ভেঙে ৫২ হাজার ৬৩৬ জনে গিয়ে পৌঁছায়। ২০০০ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত কোনো মাসে এত সংখ্যক ডেঙ্গু রোগী চিকিৎসা নিতে হাসপাতালে ভর্তি হননি।  আগস্টের প্রথম আট দিন ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন ১৮ হাজার ২০৭ জন। 
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমারজেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের তথ্য অনুয়ায়ী, সোমবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় সারাদেশের সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে ৭১৬ জন নতুন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছেন। ঠিক এক মাস আগে গত ৯ অগাস্ট এই সংখ্যাটি ছিল দুইহাজার দুইজন। সোমবার সকাল ৮টা পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ডেঙ্গু আক্রান্ত ৩০৯১ জন চিকিৎসাধীন ছিলেন।
এর মধ্যে সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতাল মিলিয়ে ঢাকার ৪১টি চিকিৎসা কেন্দ্রে ছিলেন ১ হাজার ৫২২ জন, সারাদেশে ১ হাজার ৫৬৯ জন।গত ২৪ ঘণ্টায় চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে ৮৫১ জন রোগী বাড়ি ফিরে গেছেন বলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানিয়েছে।
চলতি বছরের প্রথম দিন থেকে রবিবার পর্যন্ত ৭৭ হাজার ২৩০ জন ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন। আর, এই সময়ে চিকিৎসা শেষে বাড়ি ফেরেন ৭৩ হাজার ৯৪২ জন।স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানায়, চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের ৯৫ দশমিক ৭ শতাংশ সুস্থ হয়ে হাসপাতাল ছেড়েছেন।
এই সময়ের মধ্যে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ, গবেষণা ইনস্টিটিউটে (আইইডিসিআর) ডেঙ্গু সন্দেহে ১৯২টি মৃত্যুর তথ্যে এসেছে। এর মধ্যে ১০১টি মৃত্যু পর্যালোচনা করে ৬০টি মৃত্যু নিশ্চিত করেছে আইইডিসিআর।  


footer logo

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত।

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।