খুলনা | রবিবার | ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ৬ আশ্বিন ১৪২৬ |

Shomoyer Khobor

কাশ্মীরিদের পক্ষে টুইট করায়  শেহলা রশিদের বিরুদ্ধে  রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলা

সীমান্তে সেনা ও শহিদদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করলেন ইমরান খান

খবর প্রতিবেদন | প্রকাশিত ০৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০১:০৫:০০

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান এবং সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়া সীমান্ত নিয়ন্ত্রণ রেখায় সফরে গিয়ে সীমান্তের দায়িত্বে থাকা সেনা সদস্য ও নিহত শহিদ পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে দেখা করেছেন। গতকাল শুক্রবার পাকিস্তান সেনাবাহিনীর মিডিয়া উইংয়ের পক্ষ থেকে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির বরাত দিয়ে এ খবর প্রকাশ করেছে সংবাদ মাধ্যম ‘দ্য ডন’। 
পাকিস্তান আন্তঃবাহিনী জনসংযোগের এক সংক্ষিপ্ত বিবৃতি বলা হয়, এই সফরে প্রতিরক্ষামন্ত্রী পারভেজ খাততাক, পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কোরেশি এবং কাশ্মীর বিষয়ক বিশেষ কমিটির সভাপতি সায়েদ ফখার ইমাম প্রমুখ তার সঙ্গে ছিলেন। ওই বিবৃতিতে বলা হয়, সফরের সময় পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ও সেনা প্রধান বাজওয়া সেখানকার দায়িত্বরত সেনা ও শহিদ সেনা পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। প্রধানমন্ত্রী ইমরান এ দিন মুজাফফরাবাদ পরিদর্শন করবেন এবং নাগরিকদের উদ্দেশ্যে ভাষণ দেবেন বলে জানানো হয়। পাকিস্তানে গতকাল ছিল প্রতিরক্ষা ও শহিদ দিবস। প্রতি বছর প্রতিরক্ষা এবং শহিদ দিবস কাশ্মীরের সংহতি দিবস হিসেবেও পালিত হচ্ছে। 
মামলা : ভারতীয় সেনাবাহিনীর নির্যাতনে কাশ্মীরে ‘মানবাধিকার লঙ্ঘন' হচ্ছে বলে তথ্য ছড়ানোর অভিযোগে কাশ্মীরের রাজনৈতিক ও সমাজকর্মী শেহলা রশিদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলা করা হয়েছে। গত ১৮ আগস্ট ভারতীয় সেনাবাহিনীর নির্যাতন নিয়ে একাধিক টুইট করেন জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের (জেএনইউ) সাবেক এই শিক্ষার্থী। এর প্রেক্ষিতেই তার বিরুদ্ধেই দেশদ্রোহিতার মামলা করেছে দিল্লি পুলিশ। খবর ইন্ডিয়া টুডে।   
রাষ্ট্রদ্রোহিতা, দাঙ্গায় উস্কানি দেওয়া এবং তথ্যপ্রযুক্তিসহ ভারতীয় দণ্ডবিধির ১২৪-এ , ১৫৩, ১৫৩-এ, ৫০৪ এবং ৫০৫ ধারায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। সম্প্রতি নিজের টুইটার এ্যাকাউন্টে ভারতীয় সেনাবাহিনী কাশ্মীরে খেয়ালখুশি মতো বাড়িতে অভিযান চালাচ্ছে এবং বাসিন্দাদের তুলে নিয়ে যাচ্ছে বলে তথ্য প্রকাশ করেন শেহলা রশিদ। তবে শেহলার এসব অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে উড়িয়ে দিয়েছে সেনাবাহিনী। ভারতীয় সেনাবাহিনীর বিবৃতিতে বলা হয়, শেহলার তোলা অভিযোগ ভিত্তিহীন। সত্য-মিথ্যা যাচাই না করে এ ধরনের অভিযোগ তোলা শত্র“শক্তি বা সংগঠনের কাজ। 
এ নিয়ে সমাজকর্মী শেহলা বলেন, সেনা কর্তৃপক্ষ তদন্ত শুরু করলেই আমি তাদের হাতে প্রমাণ তুলে দেব। আমি এ কথা বলার পরও সেনা তদন্ত শুরু করেছে? তিনি বলেন, আমি যা বলেছি, পুরোটাই কাশ্মীর থেকে আসা লোকজনের বিশ্বাসযোগ্য কথোপকথনের ভিত্তিতে। মিথ্যা বলার কোনো প্রশ্নই নেই। আমি একটা নয় অনেকগুলো অভিযোগ তুলেছি। কাশ্মীরের মানুষ গ্যাস পাচ্ছেন না, রান্না করতে পারছেন না। 
উল্লেখ্য গত মাস থেকে কাশ্মীর ইস্যুতে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে উত্তেজনা চলছে। গত ৫ আগস্ট ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের মাধ্যমে কাশ্মিরের স্বায়ত্তশাসন ও বিশেষ মর্যাদা বাতিল করে ভারতের মোদী সরকার। এর ফলে জম্মু-কাশ্মিরকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিণত করা হয়। এই অনুচ্ছেদ বাতিলের কারণে যাতে কাশ্মীরে কোনো বিক্ষোভ আন্দোলন না হয় তাই কাশ্মীর জুড়ে মোতায়েন করা হয়েছে বিপুলসংখ্যক অতিরিক্ত সেনা। ইন্টারনেট-মোবাইল পরিষেবাসহ সকল ধরনের যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ রাখা হয়েছে। এছাড়াও কাশ্মীরের একাধিক নেতা-কর্মীকে বন্দী করে রাখা হয়েছে। 
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ








ভারতে সুপার ইমার্জেন্সি  চলছে : মমতা

ভারতে সুপার ইমার্জেন্সি  চলছে : মমতা

১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:২২






ব্রেকিং নিউজ






বিপুল পরিমান ইয়াবা গাঁজাসহ গ্রেফতার ৮

বিপুল পরিমান ইয়াবা গাঁজাসহ গ্রেফতার ৮

২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:৫৫