অন্তিম শয়ানে শায়িত অভিনেতা বাবর


সত্তর ও আশির দশকে বাংলাদেশের চলচ্চিত্রে খল চরিত্রের আলোচিত অভিনেতা প্রযোজক ও পরিচালক খলিলুর রহমান বাবর আর নেই (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন...আমরা তো আল্লাহর এবং আমরা আল্লাহর কাছেই ফিরে যাবো)। সোমবার সকালে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এ অভিনয় শিল্পীর মৃত্যু হয়। তার বয়স হয়েছিল ৬৭ বছর। মৃত্যুকালে রেখে গেছেন স্ত্রী সুলতানা রহমান, এক ছেলে রিয়াদুর রহমান, মেয়ে ওমাইনা রহমান এবং এক নাতি রয়েছে।
অভিনেতার স্ত্রী সুলতানা রহমান বলেন, বাবর দীর্ঘদিন ধরে ডায়াবেটিস, রক্তচাপ ও ফুসফুসের জটিলতায় ভুগছিলেন। এর মধ্যে গ্যাংগ্রিন ছড়িয়ে পড়ায় গত জুনে তার পা কেটে ফেলা হয়। শরীরের এক অংশ অবশ হয়ে যাওয়ায় বৃহস্পতিবার তাকে স্কয়ার হাসপাতালে নেওয়া হয়। অবস্থার অবনতি হলে সোমবার সকাল ৭টায় তাকে আইসিইউতে নেওয়া হয়। এর মধ্যে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে সকাল ৯টায় মারা যান।
এফডিসিতে শেষ শ্রদ্ধা ও দাফন : এফডিসিতে ঢাকাই চলচ্চিত্রের এক সময়ের দাপুটে খল অভিনেতা বাবরের জানাজা সম্পন্ন হয়েছে। গতকাল সোমবার বিকেল ৫টা ৪০ মিনিটে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে বিকেল ৫টা ১৫ মিনিটে এফডিসিতে বাবরের লাশ নিয়ে আসা হয়। এরপর এফডিসির ১৮টি সংগঠন ফুল দিয়ে মরদেহের প্রতি শ্রদ্ধা জানায়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন নায়ক ফারুক, ওমর সানি ও নীরব, প্রযোজক সমিতির নেতা খোরশেদ আলম খসরু, পরিচালক সমিতির সাধারণ সম্পাদক বদিউল আলম খোকন, পরিচালক সোহানুর রহমান সোহান, পরিচালক শাহীন সুমনসহ শিল্পী ও কলাকুশলীরা। এদিকে সন্ধ্যায় মাগরিবের নামাজের পর জানাজা শেষে অভিনেতা বাবরকে মিরপুর বুদ্ধিজীবী কবরখানায় দাফন করা হয়।
খলনায়কের চরিত্রে নাম করলেও অভিনেতা বাবরের চলচ্চিত্রে অভিষেক হয়েছিল নায়কের চরিত্রে, আমজাদ হোসেনের ‘বাংলার মুখ’ সিনেমায়। পরে জহিরুল হকের ‘রংবাজ’ চলচ্চিত্রের মধ্য দিয়ে খলনায়ক হিসেবে অভিষেক হয় তার। তিন শতাধিক চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন বাবর। অভিনয়ের পাশাপাশি ‘দয়াবান’, ‘দাগী’সহ বেশ কয়েকটি চলচ্চিত্র তিনি পরিচালনা ও প্রযোজনাও করেছেন।
 


footer logo

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত।

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।