খুলনা | বৃহস্পতিবার | ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ৪ আশ্বিন ১৪২৬ |

প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মিড ডে মিল  চালুর উদ্যোগ বাস্তবায়ন হোক

২২ অগাস্ট, ২০১৯ ০০:০০:০০

প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মিড ডে মিল  চালুর উদ্যোগ বাস্তবায়ন হোক

সারাদেশে সব প্রাক-প্রাথমিক ও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দেড় কোটি শিশুর পুষ্টি নিশ্চিত করতে দুপুরের খাবার সরবরাহে একটি নীতির খসড়া অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে গত সোমবার তার কার্যালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠকে ‘জাতীয় স্কুল মিল নীতি-২০১৯’ এই অনুমোদন পায়।  বর্তমানে পরীক্ষামূলকভাবে কয়েকটি জায়গায় ‘মিড ডে মিল’ চালু হয়েছে। কিভাবে তা সমন্বিতভাবে সারাদেশে শুরু করা যায় সে জন্যই এ নীতিমালা। সেখানে বলা হয়েছে, প্রাক-প্রাথমিক ও প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়ছে এমন ৩ থেকে ১২ বছরের শিশুদের জন্য এই নীতিমালা প্রযোজ্য হবে। তাদের প্রতিদিনের প্রয়োজনীয় শক্তি চাহিদার ক্যালরির ন্যূনতম ৩০ শতাংশ স্কুল মিল থেকে আসা নিশ্চিত করতে হবে। এ ছাড়া জাতীয় খাদ্য গ্রহণ নির্দেশিকা অনুযায়ী দৈনিক প্রয়োজনীয় শক্তির ১০-১৫ শতাংশ প্রোটিন থেকে এবং ১৫-৩০ শতাংশ চর্বি থেকে আসতে হবে। খাদ্য তালিকার বৈচিত্র্য ঠিক রাখতে ১০টি খাদ্যগোষ্ঠীর মধ্যে অন্তত চারটি বেছে নিতে হবে সাপ্তাহিক ভিত্তিতে।
শিশুদের পুষ্টি নিশ্চিত করা কতটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় তা বলার অপেক্ষা রাখে না। এর আগে বিভিন্ন সময়েই শিশুদের পুষ্টিজনিত সংকটের বিষয় আলোচনায় এসেছে বারবার। সঙ্গত কারণেই আমরা বলতে চাই, যদি প্রতিদিনের প্রয়োজনীয় শক্তি চাহিদার ক্যালরির ন্যূনতম ৩০ শতাংশ স্কুল মিল থেকে আসা নিশ্চিত করা সম্ভব হয় তবে তা হবে অত্যন্ত ইতিবাচক আর তা নিশ্চিত করতে হবে সংশ্লিষ্টদেরই। একই সঙ্গে আমরা বলতে চাই, যে উদ্যোগই গ্রহণ করা হোক না কেন, তা থেকে সুফল পেতে হলে সুষ্ঠু বাস্তবায়ন নিশ্চিত করার বিকল্প নেই। ফলে এই কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে এগিয়ে নিতে যথাযথ প্রচেষ্টা জারি থাকবে এমনটি কাম্য। 
বর্তমানে দেশের তিন উপজেলার স্কুলে রান্না করা খাবার এবং ১০৪টি উপজেলায় বিস্কুট খাওয়ানো হচ্ছে। ওই ১০৪টি উপজেলার মধ্যে ৯৩টিতে সরকার ও ১১টিতে বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচির অর্থায়নে এ কর্মসূচি চলছে। এ ছাড়া সুখকর বিষয় হলো, পরীক্ষামূলক কর্মসূচির মাধ্যমে স্কুলে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি বেড়েছে বলেও জানা গেছে এবং ওইসব এলাকায় শিক্ষার্থীদের ঝরে পড়ার হার ৬ দশমিক ৬ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে। আর এসব দিক বিবেচনায় নিয়েই মন্ত্রিসভা জাতীয় স্কুল মিল কর্মসূচি নীতি অনুমোদন দিয়েছে। শিশুদের পুষ্টি নিশ্চিত করাসহ প্রাথমিক শিক্ষাকে এগিয়ে নিতে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ অব্যাহত থাকুক এমনটি আমরাও চাই। সর্বোপরি আমরা বলতে চাই, শিশুদের পুষ্টি নিশ্চিত করতে এই উদ্যোগ অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। এ ছাড়া শিশুদের স্কুলমুখী করতেও এটি ভূমিকা রাখবে বলে আমরা মনে করি। শিশুদের পুষ্টি নিশ্চিত করা, স্কুলমুখী করাসহ প্রাথমিক শিক্ষাকে আরও এগিয়ে নিতে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা জারি থাকুক এমনটি আমাদের প্রত্যাশা।
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ




আমাদের উচ্চশিক্ষার মান  কেন এই অধোগতি?

আমাদের উচ্চশিক্ষার মান  কেন এই অধোগতি?

১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০




আজ পবিত্র আশুরা

আজ পবিত্র আশুরা

১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০






ব্রেকিং নিউজ