খুলনা | বৃহস্পতিবার | ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ৪ আশ্বিন ১৪২৬ |

আর কত প্রাণ ঝরলে সড়কে নৈরাজ্য থামবে?

২০ অগাস্ট, ২০১৯ ০০:০০:০০

আর কত প্রাণ ঝরলে সড়কে নৈরাজ্য থামবে?

সড়কের নৈরাজ্য কোন ভাবেই থামছে না। নৈরাজ্যের কারণে প্রতিবছরই বাড়ছে অনাকাঙ্খিত মৃত্যুর ঘটনা। বিশেষ করে ঈদ যাত্রায় প্রাণঘাতি হয়ে ওঠে সড়ক। যে কারনে ঈদ আনন্দের অপর পিঠে থাকে দুর্ঘটনার ভয়। এবারও তার ব্যত্যয় ঘটেনি। ঈদের দিন থেকে পরবর্তী এক সপ্তাহে প্রাণহানি ঘটেছে ২২৪ জনের। বিষয়টি উদ্বেগজনক।
নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের দেশ কাঁপানো আন্দোলন জনমনে আশার সঞ্চার করেছিল যে, সড়ক নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণে সবকিছু করবে সরকার। কিন্তু সড়ক-মহাসড়কে শৃঙ্খলা তো ফেরেইনি, উপরন্তু সংবাদমাধ্যমে প্রতিদিনই মর্মন্তুদতার ভয়াবহ প্রতিচ্ছবি ফুটে উঠছে। “নিমেষেই শেষ এক পরিবারের পাঁচজন” শিরোনামে শনিবার প্রকাশিত বিভিন্ন সংবাদ পত্রের  শীর্ষ প্রতিবেদন যেন আরও একটি বেদনাদায়ক স্মারক। আত্মীয়ের বিয়ের আলোকোজ্জ্বল অনুষ্ঠানে যোগ দিতে গিয়ে একটি পরিবার ঢেকে গেল গাঢ় অন্ধকারে। একমাত্র বেঁচে যাওয়া সদস্য ৩ বছরের নাদিমুজ্জামানও আইসিইউতে জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে। ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ সড়কের গৌরীপুরের গাওরামগোপালপুর এলাকায় প্রাইভেটকারের সঙ্গে বিপরীত দিক থেকে আসা বাসের ধাক্কায় প্রাইভেটকার আরোহী পাঁচজন মারা যান। আমরা জানি না, প্রাণে রক্ষা পাওয়া পরিবারের একমাত্র শিশুটির ভাগ্যে কী রয়েছে! এর পরেও থেমে নেই মৃত্যুর মিছিল। একই দিন দেশের বিভিন্ন স্থানে সড়ক দুর্ঘটনায় আরও ছয়জনের প্রাণহানির পাশাপাশি ২০ জন আহত হওয়ার সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে। আমরা ক্রমবর্ধমান সড়ক দুর্ঘটনার কারণগুলো জানি। এ নিয়ে বিস্তর আলোচনা-পর্যালোচনা, সিদ্ধান্ত গ্রহণ অনেক কিছু ইতিমধ্যে হলেও কাজের কাজ যে কিছুই হয়নি, ঘটনাগুলো এরই সাক্ষ্যবহ।
সড়ক-মহাসড়কে এই যে উন্মত্ততা পরিলক্ষিত হচ্ছে, তা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। সড়ক নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণের দায় প্রথমত সরকারের। পাশাপাশি সংশ্নিষ্ট সব পক্ষেরও ঐকান্তিকতা-সচেতনতা অত্যন্ত জরুরি। আমরা জানি, একেকটি সড়ক দুর্ঘটনার মর্মান্তিক পরিণতি পরিবার ও সমাজে কি গাঢ় ছায়া ফেলছে। সড়ক নৈরাজ্যের নিরসন ঘটাতে কথা হয়েছে অনেক, এবার কার্যত ব্যবস্থা আমরা চাই। এমন বেদনাবিধুর ঘটনাবলি নিয়ে আমরা সম্পাদকীয়তে ইতিমধ্যে বহুবার দিক নির্দেশনামূলক পরামর্শ দিয়েছি। এবার অন্তত আমরা দেখতে চাই দায়িত্বশীল সব পক্ষ এ ব্যাপারে যথাযথ পদক্ষেপ নিশ্চিত করতে সক্ষম হয়েছে।
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ




আমাদের উচ্চশিক্ষার মান  কেন এই অধোগতি?

আমাদের উচ্চশিক্ষার মান  কেন এই অধোগতি?

১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০




আজ পবিত্র আশুরা

আজ পবিত্র আশুরা

১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০






ব্রেকিং নিউজ