খুলনা | বৃহস্পতিবার | ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ৪ আশ্বিন ১৪২৬ |

Shomoyer Khobor

পথচারীদের যাতায়াতে ভোগান্তি 

রূপসা কলেজের পশ্চিম পাশের সড়ক পানিতে নিমজ্জিত

নিজস্ব প্রতিবেদক | প্রকাশিত ১৯ অগাস্ট, ২০১৯ ০০:৫৫:০০

রূপসা কলেজের পশ্চিম পাশের সড়ক পানিতে নিমজ্জিত


রূপসা কলেজের পশ্চিম পাশের গুরুত্বপূর্ণ সড়কটি (ইটের সলিং) পানিতে নিমজ্জিত অবস্থায় রয়েছে। পানিতে নিমজ্জিত থাকায় সড়কটি বেহাল অবস্থায় পরিণত হয়েছে। সড়কের ওপর পানি জমে থাকায় স্কুল-কলেজ ও মাদ্রাসাগামী শিক্ষার্থীদের চলাচলে চরম দুর্ভোগের শিকার হতে হচ্ছে। প্রতিবছর বর্ষা মৌসুম এলে সড়কের এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়। সড়কটির ব্যাপারে ভুক্তভোগী এলাকাবাসী স্বাক্ষরিত একটি আবেদনপত্র স্থানীয় সংসদ সদস্য আব্দুস সালাম মূর্শেদীর কাছে জমা দেওয়া হয়েছে। 
সরেজমিন ঘুরে জানা গেছে, দুই যুগেরও বেশী আগে রূপসা কলেজের পশ্চিম পাশে ইটের সলিং সড়কটি নির্মাণ করা হয়। এ সড়ক দিয়ে প্রতিদিন স্কুল-কলেজ ও মাদ্রাসাগামী শিক্ষার্থীসহ এলাকাবাসী চলাচল করে। সড়কটিতে বিভিন্ন স্থানে ছোট-বড় গর্তে পরিণত হয়েছে। প্রতিবছর বর্ষা মৌসুম এলে সড়কের বিভিন্ন স্থানে পানিতে নিমজ্জিত থাকে। বিশেষ করে সড়কের কোনো পাশে ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় পানি নিষ্কাশনের কোনো ব্যবস্থা নেই। ফলে বর্ষা মৌসুমে সড়কের ওপর পানি জমে থাকে। 
এ ব্যাপারে এলাকার ভুক্তভোগী মোঃ নিজাম উদ্দিন শেখ এ বলেন, ‘রূপসা কলেজের পশ্চিম পার্শ্বে ইটের সলিং সড়কটি দিয়ে প্রতিদিন স্কুল-কলেজ ও মাদ্রাসাগামী শিক্ষার্থীরা যাওয়া আসা করে থাকে। প্রতিবছর বর্ষা মৌসুম এলে সড়কটি পানিতে নিমজ্জিত থাকে। সড়কের পাশে ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় পানি নিষ্কাশনের কোন ব্যবস্থা নেই। ফলে শিক্ষার্থীসহ জনসাধারণের চলাচলে চরম দুর্ভোগের শিকার হতে হচ্ছে। অচিরেই সড়কটি যাতে কার্পেটিংসহ ড্রেনেজ ব্যবস্থা করা হয় এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন তিনি।’ 
এলাকার ভুক্তভোগী হাকীম মোঃ আশরাফ আলী শেখ বলেন, ‘সড়কটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। প্রতিদিন শত শত লোক এ সড়ক দিয়ে চলাচল করে। বিশেষ করে সড়কটি দিয়ে রূপসা কলেজ, বাগমারা আল-আকসা আলিয়া (প্রস্তাবিত) মাদ্রাসা, বাগমারা আল-আকসা কওমী মাদ্রাসা, সামছুর রহমান মাধ্যমিক বিদ্যালয়, নৈহাটী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, নৈহাটী বালিকা বিদ্যালয় ও বাগমারা দক্ষিণপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বাগমারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা যাতায়াত করে।’ এলাকার বাসিন্দা বাগমারা আল-আকসা আলিম (প্রস্তাবিত) মাদ্রাসার ইবতেদায়ী প্রধান মোঃ অলিউল্লাহ বলেন, ‘প্রতিবছর বর্ষার মৌসুমে সড়কটি পানিতে তলিয়ে বেহাল দশায় পরিণত হয়। ফলে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি এলাকার জসাধারণ চলাচলে মারাত্মক সমস্যায় পড়তে হয়। তিনি বলেন, ‘বেহাল এ সড়কটির ব্যাপারে আমাদের এমপি মহোদয়ের কাছে এলাকার ভুক্তভোগীদের স্বাক্ষরিত আবেদনপত্র জমা দেওয়া হয়েছে।’ এলাকার বাসিন্দা মোঃ রুস্তম আলী বলেন, ‘গুরুত্বপূর্ণ এ সড়ক দিয়ে প্রতিদিন শত শত মানুষ চলাচল করে থাকে। কিন্তু পানি সরবরাহের জন্য কোনো ড্রেন না থাকায় প্রতিবছর বর্ষা মৌসুম এলে সড়কটি দীর্ঘদিন ধরে পানিতে নিমজ্জিত থাকে। ফলে স্কুল-কলেজ-মাদ্রাসাসহ এলাকার জনসারণ চলাচলে মারাত্মক দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। তিনি বলেন, এ ব্যাপারে এলাকাবাসীর পক্ষে আব্দুস সালাম মূর্শেদী এমপি মহোদয়ের কাছে আবেদন করা হয়েছে।’ 
নৈহাটী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ কামাল হোসেন বুলবুল সময়ের খবরকে বলেন, ‘সংসদ সদস্য আব্দুস সালাম মূর্শেদীর নির্দেশে বেশ কিছুদিন আগে সড়কটি মাপা হয়েছে। তবে সড়কটি পুনরায় নির্মাণের জন্য কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। তিনি বলেন, সড়কের ওপর জমে থাকা পানি নিষ্কাশনের জন্য শিগগির প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ