খুলনা | শনিবার | ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ৬ আশ্বিন ১৪২৬ |

Shomoyer Khobor

রিমান্ড শুনানী আজ : ভিকটিমকে  ওসিসি থেকে রিলিজ

স্ত্রী পরিচয়ে কুয়াকাটাসহ নগরীর বিভিন্ন আবাসিক হোটেলে ওই ছাত্রীকে রেখেছিলো ‘শিঞ্জন রায়’

নিজস্ব প্রতিবেদক | প্রকাশিত ১৮ অগাস্ট, ২০১৯ ০০:৩৫:০০

নগরীর বেসরকারি একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও কর বিভাগের উর্ধ্বতন কর্মকর্তার ছেলে শিঞ্জন রায় (২৫) তার সহপাঠী ওই ছাত্রী (২০) কে কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে বেড়াতে নিয়ে স্ত্রী পরিচয়ে আবাসিক হোটেলে রেখেছিলো। তাছাড়াও সোনাডাঙ্গাস্থ আবাসিক হোটেলসহ তাকে বিভিন্ন স্থানে বাসা ভাড়া করে রেখে ধর্ষণ করতো। বিয়ের পর ধর্মান্তরিত হওয়াসহ নানা ধরনের আশ্বাসও দিয়েছে শিঞ্জন। আজ রবিবার আসামি শিঞ্জন রায়কে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশের ৫ দিনের রিমান্ড আবেদনের শুনানী হবে। এদিকে ভিকটিম ওই ছাত্রীর পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টার (ওসিসি) থেকে রিলিজ করা হয়েছে।  
মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণী থেকে জানান গেছে, নগরীর সোনাডাঙ্গাস্থ নর্থ ওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটির ছাত্রী (২০)’র সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তুলে তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে এক বছর ধরে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করে খুলনার কর কপ্রশান্ত কুমার রায়ের ছেলে শিঞ্জন রায় (২৫)। ওই ছাত্রী যে ভাড়া বাসায়, আবাসিক হোটেলসহ বিভিন্ন বন্ধু বান্ধবের বাসায় নিয়েও শিঞ্জন তার সাথে শারীরিক সম্পর্কে বাধ্য করতো। এরপর ওই ছাত্রী চলতি বছরের ফেব্র“য়ারিতে গর্ভবতী হয়ে পড়েন। শিঞ্জন তাকে বিয়ে করবেন বলে নানাভাবে আশ্বস্তও দিয়েছেন। এ অবস্থায় শিঞ্জন গত ১৪ আগস্ট অন্যত্র বিয়ে করেন। ১৬ আগস্ট নগরীর হোটেল সিটি ইনে পূর্ব নির্ধারিত বৌ-ভাত অনুষ্ঠানের দিন নির্ধারিত ছিলো। 
এদিকে বিয়ের খবর ওই ছাত্রীর কানে পৌঁছালে সে শিঞ্জনের খোঁজে গত ১৫ আগস্ট রাত ১০টার দিকে মুজগুন্নী আবাসিকের ১৬ নম্বর রোডে যান। সেখানে গিয়ে শিঞ্জন রায়ের দেখা পায়। এ সময় তার বিয়ের ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করলে সে তাকে সেখান থেকে ইকে জোর করে তুলে দিতে গেলে স্থানীয়দের নজরে আসে। এরপর বিষয়থানা পুশের কাছে খবর গেলে তারা দু’জনকেই সোনাডাঙ্গা মডেল থানায় নিয়ে আসে। পুলিশ ১৫ আগস্ট সাড়ে ১২টার ওই ছাত্রীকে ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে হস্তান্তর করেন। এরপর রাত ৩টার দিকে তার শারীরিক অবস্থার কথা বিবেচনা করে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল প্রেরণ করেন। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ওই ছাত্রী ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টার (ওসিসি)তে ভর্তি করা হয়। ১৬ আগস্ট সোনাডাঙ্গা মডেল থানায় ওই ছাত্রী নিজেই বাদী হয়ে কর কপ্রশান্ত কুমার রায়ের পুত্র শিঞ্জন রায়ের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন (নং-২০)। মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য খুলনার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ শাহীদুল ইসলাম এর আদালতে পুলিশের ৫ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন।  
এ বিষয়ে মামলা তদন্ত কর্মকর্তা মোঃ তৌহিদুল ইসলাম জানান, এজাহারভুক্ত আসামিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৫ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়েছে। এজাহারের বাদিনীর অভিযোগের বিষয়গুলো তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। এজাহারে উল্লেখিত ভিকটিমকে ধর্ষণের স্থান সমূহের মধ্যে কয়েকটি স্থানের তদন্ত করে সত্যতা পাওয়া গেছে। 
 

বার পঠিত

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ










খুলনায় তৎপর ৮টি গ্রুপ 

খুলনায় তৎপর ৮টি গ্রুপ 

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০১:২০




ব্রেকিং নিউজ











‘খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যের আরো অবনতি’

‘খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যের আরো অবনতি’

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:৪৩