খুলনা | সোমবার | ১৯ অগাস্ট ২০১৯ | ৪ ভাদ্র ১৪২৬ |

শিরোনাম :
মোংলায় সাংগঠনিক তদন্তে এসে অভিযুক্তের সাথে ভ্রমণ ও ভুরিভোজ কেন্দ্রীয় বিএনপি নেতারডেঙ্গু আক্রান্ত ৫৩ হাজার, চিকিৎসা শেষে ফিরেছে ৪৫ হাজারবেসরকারি বিশ্ববিদ্যায়ের শিক্ষার্থী শিঞ্জন একদিনের রিমান্ডে অবরুদ্ধ কাশ্মীরে বাড়ছে নিরাপত্তা বাহিনীর নির্যাতন, চলছে বাছবিচারহীন গ্রেফতারখুলনায় প্রাধিকারপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে গাড়ি ও ড্রাইভারের সুবিধা গ্রহণে অনিয়মের অভিযোগ!ফের নগরীর বেসরকারি বিশ্বদ্যিালয়ের বিবিএ’র ছাত্রীকে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণের অভিযোগঈদযাত্রায় সড়কে গেছে ২২৪ প্রাণস্ত্রী পরিচয়ে কুয়াকাটাসহ নগরীর বিভিন্ন আবাসিক হোটেলে ওই ছাত্রীকে রেখেছিলো ‘শিঞ্জন রায়’

Shomoyer Khobor

ঈদে দুই নাতনিকে পাশে পেলেন, ‘বাড়ির খাবার’ খেলেন খালেদা জিয়া

খবর প্রতিবেদন | প্রকাশিত ১৫ অগাস্ট, ২০১৯ ০০:৪১:০০

কোরবানির ঈদের দুপুরে বঙ্গবন্ধু মেডিকেলের কেবিনে দুই নাতনিকে পাশে বসিয়ে বাসায় রান্না করা খাবার খেয়েছেন দুর্নীতির সাজায় কারাবন্দী বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া। সোমবার স্বজনদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, অসুস্থতার কারণে কারা তত্ত্বাবধানে হাসপাতালে থাকা সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী ঈদের দিন দুই নাতনিকে কাছে পেয়ে খুশি হয়েছেন।
খালেদা জিয়ার ছোট ছেলে প্রয়াত আরাফাত রহমান কোকোর স্ত্রী শর্মিলা রহমান সিঁথি তাদের দুই মেয়ে জাহিয়া ও জাফিয়াকে নিয়ে সোমবার দুপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে যান কারাবন্দী খালেদা জিয়াকে দেখতে।
পরিবারের সদস্যরা জানান, জাহিয়া ও জাফিয়া দাদীর পা ছুঁয়ে সালাম করলে দুই নাতনিকে বুকে জড়িয়ে আদর করেন খালেদা জিয়া।
৭৪ বছর বয়সী খালেদা জিয়া ডায়াবেটিকস, আর্থারাইটিস ছাড়াও দাঁত ও চোখের সমস্যায় ভুগছেন। তাকে চলাচল করতে হয় হুইল চেয়ারে করে। ডায়াবেটিসের কারণে প্রতিদিন তাইনসুলিন নিতে হয়।
এর মধ্যেও ঈদের দিন দুই নাতনিকে কাছে পেয়ে খালেদা জিয়ার কিছুটা সময় ‘অন্যরকম কেটেছে’ বলে মন্তব্য করেন এ পরিবারের ঘনিষ্ঠ একজন। তিনি বলেন, “উনি সবার কাছ থেকে পরিবারের অন্যদের খোঁজ-খবর নেন। দেশে কী হ”েছ, কী পরি¯ি’তি তা জানতে চান।”
কারা কর্তৃপক্ষ এবার পরিবারের ছয়জনকে খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করার অনুমতি দিয়েছিল। কোকোর স্ত্রী ও দুই মেয়ে ছাড়াও খালেদা জিয়ার ছোট ভাই শামীম এস্কান্দার, স্ত্রী কানিজ ফাতেমা ও ছেলে অভিক এস্কান্দার গিয়েছিলেন দেখা করতে।
দুপুর দেড়টার দিকে হাসপাতালের কেবিন ব্লকে আসার পর প্রায় দুই ঘণ্টা তারা ছয় তলায় খালেদা জিয়ার কেবিনে কাটান। শর্মিলা এ সময় বাসা থেকে নিয়ে আসা খাবার খেতে দেন শাশুড়িকে।
একজন আত্মীয় জানান, ঈদের দিন শর্মিলার আনা খাবারের মধ্যে ছিল পোলাও, মাংসের রেজালা, আলুর চপ, সবজি, জর্দা, দুধ-সেমাই ও মিষ্টি।
সেবার জন্য খালেদা জিয়ার সঙ্গে কারাগারে থাকা গৃহকর্মী ফাতেমা বেগমও একই সঙ্গে ঈদের খাবার খেয়েছেন বলে জানান ওই আত্মীয়।  
দুর্নীতির দুই মামলায় ১৭ বছরের সাজা নিয়ে গত বছরের ৮ ফেব্র“য়ারি থেকে কারাবন্দি রয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। অসুস্থতার কারণে গত ১ এপ্রিল থেকে তাকে রাখা হয়েছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালের কেবিন ব্লকের ৬২১ নম্বর কেবিনে। অন্তরীণ অবস্থায় এটি তার টানা চতুর্থ ঈদ।
এর আগে সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় খালেদা জিয়াকে গ্রেফতার করে সংসদ ভবনে স্থাপিত উপ-কারাগারে বন্দী করে রাখা হয়েছিল। সেখানেও তাকে দু’টি ঈদ কাটাতে হয়েছিল।
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ

সম্মানী না মিললে সভায় আগ্রহ নেই

সম্মানী না মিললে সভায় আগ্রহ নেই

১৯ অগাস্ট, ২০১৯ ০০:৫০



ফের বাড়লো স্বর্ণের দাম

ফের বাড়লো স্বর্ণের দাম

১৯ অগাস্ট, ২০১৯ ০০:৪৫










ব্রেকিং নিউজ