খুলনা | বৃহস্পতিবার | ২২ অগাস্ট ২০১৯ | ৭ ভাদ্র ১৪২৬ |

উপকূলীয় ভেড়ীবাঁধ দ্রুত মেরামতে উদ্যোগ নিন 

০৫ অগাস্ট, ২০১৯ ০০:০০:০০

উপকূলীয় ভেড়ীবাঁধ দ্রুত মেরামতে উদ্যোগ নিন 

হুমকীর মুখে বৃহত্তর খুলনার-সাতক্ষীরা পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)-১ ও ২ এর  ৮শ’ কিলোমিটার ভেড়ীবাঁধ। দিন দিন নদীর জোয়ারের পানির তোড়ে ভেড়ীবাঁধ ভাঙন তীব্র আকার ধারণ করায় আইলা বিধ্বস্ত খুলনার কয়রা, দাকোপ ও সাতক্ষীরার শ্যামনগর, আশাশুনিসহ উপকূলীয় এলাকার লক্ষ লক্ষ মানুষ চরম আতঙ্কের মধ্যে দিয়ে দিন কাটাচ্ছে। এসব ভেড়ীবাঁধ সংস্কারের দাবিতে মানববন্ধনসহ বিভিন্ন কর্মসূচি দিলেও ফল পাচ্ছে না পাউবে’র সংশ্লিষ্টদের কাছ থেকে। এতে উপকূলবাসীরা রয়েছে উদ্বেগ আর উৎকন্ঠায়। 
চলছে বর্ষা মৌসুম। এরই মাঝে ক্ষতিগ্রস্ত ভেড়ীবাঁধ সংস্কার না হওয়ায় জোয়ারের পানিতে কপোতাক্ষ নদের দু’পাড়ের একাধিক স্থানের ভেড়ীবাঁধ ভেঙে ইতোমধ্যে বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়েছে। গতকালও পাইকগাছার লতা ইউনিয়নের এক স্থানে পাউবো’র কিছু অংশ জোয়ারের পানি উপচে পড়ে লোকালয়ে লবণাক্ত পানি ঢুকে অনেক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমের শুরুতেই নদীর প্রবল জোয়ারের তোড়ে বিভিন্ন এলাকার পাউবো’র ভেড়ীবাঁধে ভাঙন শুরু হয়। সঠিক সময়ে বাঁধ সংস্কারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ না নেয়ায় কারনে ক্ষতিগ্রস্ত এসব বাঁধ ভেঙে প্লাবিত হয় নদীর তীরবর্তী বিস্তীর্ণ  উপকূলীয় জনপদ। ক্ষতিগ্রস্ত হয় এলাকার সব মানুষ। উৎপাদন ব্যাহত হয় দেশের সাদা সোনা খ্যাত কোটি টাকার রপ্তানি পণ্য চিংড়ি মাছ। ইতিমধ্যে নদীর ভেড়ীবাঁধ ভেঙে আশ্রয়হীন হয়ে অনেকেই বাড়িঘর হারিয়েছে। ফলে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে তারা গ্রাম ছাড়া হতে বাধ্য  হয়েছে।
প্রতি বছরই ভেড়ীবাঁধ ভেঙে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয় সাধারণ মানুষ। কিন্তু ৫০ দশকের পর থেকে অদ্যাবধি এ দু’টি জেলার নদ-নদীর ভেড়ীবাঁধ তেমন কোন সংস্কার করা হয়নি। বর্ষা মৌসুম এলেই পানি উন্নয়ন বোর্ডের লোকজন ভেড়ীবাঁধ জরুরি সংস্কারের নামে সরকারি অর্থ লুটপাট করে থাকে। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয় না। উপকূলীয় উপজেলাগুলোতে কমপক্ষে ৫ লক্ষ মানুষের দিন কাটে ভাঙন আতঙ্কে। আমরা মনে করি, উপকূলীয় সুন্দরবন সংলগ্ন খুলনার কয়রা, দাকোপ ও সাতক্ষীরার শ্যামনগর ও আশাশুনির আইলা বিধ্বস্ত জনপদে এই মুহূর্তে যদি ভেড়ীবাঁধ মেরামত করা না হয় তাহলে মানুষ ঘর বাড়ি হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে যাবে। এ জনপদের মানুষের প্রাণের দাবি টেকসই ভেড়ীবাঁধ নির্মাণে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের সমন্বয়ে দ্রুত কার্যকরী ব্যবস্থা নেয়া হোক। 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ








রক্তে ভেজা ‘পনেরই আগস্ট’ আজ

রক্তে ভেজা ‘পনেরই আগস্ট’ আজ

১৫ অগাস্ট, ২০১৯ ০০:০০


মহামিলনের পবিত্র হজ্জ শুরু

মহামিলনের পবিত্র হজ্জ শুরু

১০ অগাস্ট, ২০১৯ ০০:০০




ব্রেকিং নিউজ










সংসদ বসছে  ৮ সেপ্টেম্বর

সংসদ বসছে  ৮ সেপ্টেম্বর

২২ অগাস্ট, ২০১৯ ০০:৫৮