খুলনা | মঙ্গলবার | ১০ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২৫ অগ্রাহায়ণ ১৪২৬ |

Shomoyer Khobor

প্রায় দু’লাখ গ্রাহকের জন্য একটি বিদ্যুৎ আদালত

যশোরসহ ৪ জেলার মাত্র একজন বিচারকের হাতে ১৭শ’ ৭০ মামলা : স্টাফ মাত্র দু’জন

জাহিদ আহমেদ লিটন, যশোর | প্রকাশিত ২২ জুলাই, ২০১৯ ০০:৪৩:০০

যশোরসহ ৪ জেলার মাত্র একজন বিচারকের হাতে ১৭শ’ ৭০ মামলা : স্টাফ মাত্র দু’জন

প্রায় দু’হাজার মামলায় জর্জরিত যশোর বিদ্যুৎ আদালত। মাত্র একজন বিচারক পরিচালনা করছেন ১৭শ’ ৭০টি মামলা। যা নিয়ে হিমশিম খেতে হয় দু’জন স্টাফকে। যশোরসহ চার জেলার বিদ্যুৎ গ্রাহকদের নানা অনিয়মের ও আইন ভঙ্গের বিচারকার্য চলে এ আদালতেই।
সূত্র জানায়, যশোর, নড়াইল, ঝিনাইদহ ও মাগুরা জেলা নিয়ে বিদ্যুৎ বিভাগের যশোর সার্কেল গঠিত। এ চার জেলার প্রায় দু’লাখ গ্রাহকের নানা সুবিধা ও অসুবিধার দেখভাল করে যশোর ওজোপাডিকো কর্তৃপক্ষ। আর এসব জেলার গ্রাহকের অনিয়ম, দুর্নীতি ও বিদ্যুৎ চুরি সংক্রান্ত মামলার বিচারকার্য পরিচালনা করে যশোরের বিদ্যুৎ আদালত। ১৯৯৬ সালে যশোরের চাঁচড়া বিদ্যুৎ ভবনে স্থাপিত হয় এ আদালত। এরপর থেকে গত প্রায় দু’যুগ যাবৎ অনিয়ম ও দুর্নীতি সংক্রান্ত মামলা পরিচালনা করে যাচ্ছে বিদ্যুৎ আদালত। গ্রাহকের বিদ্যুৎ চুরি, অবৈধ সংযোগ, ওভার লোডসহ নানা অনিয়মের বিরুদ্ধে কর্তৃপক্ষ যশোরের বিদ্যুৎ আদালতে মামলা করে থাকেন। আর বিচারের মাধ্যমে এসব ঘটনার সমাধান দেন এ আদালত। এ কারণে মামলার ভুক্তভোগী চার জেলার মানুষকে এ কাজে ছুটে আসতে হয় যশোরে।  
বিদ্যুৎ আদালত সূত্র জানায়, ১৯৯৬ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে ২০১৯ সালের জুন মাস পর্যন্ত এ আদালতে মোট মামলা চলমান রয়েছে ১ হাজার ৭শ’ ৭০টি। আর গত ছয় মাসে এ আদালতে মামলা হয়েছে ১৭৪টি। একজন দায়িত্বপ্রাপ্ত বিচারক এসব মামলা পরিচালনা করে থাকেন। বর্তমানে বিদ্যুৎ আদালতে বিচারকের দায়িত্ব পালন করছেন যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ পদ মর্যাদার আয়শা আক্তার মৌসুমী। আর সাথে রয়েছেন একজন মাত্র পেশকার মনোয়ার হোসেন। দু’জনের দায়িত্বেই চলছে চার জেলার সমন্বয়ে গঠিত বিদ্যুৎ আদালতের সকল কার্যক্রম। যা সামাল দিতে তাদেরকে হিমশিম খেতে হচ্ছে। একইসাথে বিচার প্রার্থীদেরও দূর-দূরান্ত থেকে যশোরে যাতায়াতসহ নানা দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে বলে আগতরা মন্তব্য করেন।
সূত্র জানায়, আদালতে দায়েরকৃত বিদ্যুৎ সংক্রান্ত মামলায় কারাদন্ডের বিধান থাকলেও জরিমানার রায় হয়ে থাকে বেশির ভাগ মামলায়। ২০১৮ সালে এ সংক্রান্ত সংশোধনীতে বলা হয়েছে, বিদ্যুৎ আদালত কোন মামলায় কাউকে জরিমানা করলে তিনি সাথে সাথেই জরিমানার টাকা পরিশোধ করবেন। নতুবা তাকে কারাদণ্ড দিয়ে কারাগারে পাঠানো হবে। আর জরিমানার টাকা পরিশোধ করা হলে মামলাটি সাথে সাথেই খারিজ হয়ে যাবে। এ কারণে বিদ্যুৎ সংক্রান্ত মামলায় জনগন আদালতে গিয়ে বিচারের রায়ের জরিমানা প্রদান করলে সহজে মামলা থেকে মুক্তি পেতে পারেন। নতুবা তাকে বিদ্যুৎ সংক্রান্ত অন্যায় কর্মকান্ডের দায়ে কারাভোগ করতে হবে।
এদিকে, যশোর, নড়াইল, মাগুরা, ঝিনাইদহসহ চার  জেলার বিদ্যুৎ সংক্রান্ত মামলার আদালত যশোরে হওয়ায় ওইসব জেলার ভুক্তভোগী মানুষকে মামলার কাজে যশোরে আসতে হয়। আর আদালতে বিচারক একজন হওয়াতে তাদেরকে মামলার কাজে দূর-দূরান্ত থেকে এসে জটিলতায় পড়তে হচ্ছে। মামলা জটের কারণে সমাধান না পেয়ে তাদেরকে বাড়ি ফিরে যেতে হচ্ছে এবং মামলার পরবর্তী তারিখে ফের আদালতে আসতে হচ্ছে। ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ থেকে যশোরের বিদ্যুৎ অফিসে আসা এক গৃহবধূ জানান, গত ২০১৪ সালে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগের মাধ্যমে ইজিবাইক চার্জ দেয়া সংক্রান্ত একটি মামলার কাজে তিনি এসেছেন। এ মামলার মূল অভিযুক্ত তার স্বামী গত বছর হৃগরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। এ সংক্রান্ত কাগজপত্র আদালতে উপস্থাপন করা হলেও তিনি এখনো মামলা থেকে নিস্কৃতি পাচ্ছেন না। তিনি বলেন, মামলার মূল অভিযুক্ত ব্যক্তি মারা গেলে মামলাটি খারিজ হয়ে যাবার কথা। কিন্তু আজো তিনি এ বিষয়ে কোন সমাধান পাচ্ছেন না। প্রতিমাসেই তাকে এ কাজে কালীগঞ্জ থেকে যশোরে যাতায়াত করতে হচ্ছে।
এ বিষয়ে যশোর বিদ্যুৎ আদালতের পেশকার মনোয়ার হোসেন বলেন, চার জেলার সমন্বয়ে গঠিত যশোর বিদ্যুৎ আদালতে বিচারকসহ তারা দু’জন মাত্র স্টাফ রয়েছেন। অথচ মামলা রয়েছে ১৭শ’ ৭০টি। যা নিয়ে তাদেরকে হিমশিম খেতে হয়। লোকবল বাড়ানো হলে তারা ভুক্তভোগী জনগনের কাক্সিক্ষত সেবা দিতে পারতেন। 
বিষয়টি নিয়ে যশোর বিদ্যুৎ আদালতের বিচারক যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ পদ মর্যাদার আয়শা আক্তার মৌসুমীর সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করে হলেও তাকে পাওয়া যায়নি। তবে পেশকার মনোয়ার হোসেন বলেন, ম্যাডাম এ সংক্রান্ত বিষয়ে কোন সাংবাদিকের সাথে কথা বলেন না।  
এ ব্যাপারে ওয়েস্টজোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড যশোর সার্কেলের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী শহিদুল আলম বলেন, যশোর সার্কেলের বিদ্যুৎ আদালতের কার্যক্রম স্বাভাবিক গতিতে চলছে। বিদ্যুৎ সংক্রান্ত গ্রাহকের সকল অনিয়মের মামলার বিচারকাজ এ আদালত করে থাকেন। বিদ্যুৎ আইন ভঙ্গকারী চার জেলার গ্রাহককে সুষ্ঠু সমাধান পেতে এ আদালতেই আসতে হবে বলে তিনি জানান।


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ








আন্তর্জাতিক মানবাধিকার  দিবস আজ 

আন্তর্জাতিক মানবাধিকার  দিবস আজ 

১০ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০




সম্মেলন সফলে নগর যুবলীগের মিছিল

সম্মেলন সফলে নগর যুবলীগের মিছিল

১০ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০


ব্রেকিং নিউজ


টানা দ্বিতীয় জয়ে শীর্ষে খুলনা

টানা দ্বিতীয় জয়ে শীর্ষে খুলনা

১০ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০