খুলনা | শনিবার | ২৪ অগাস্ট ২০১৯ | ৯ ভাদ্র ১৪২৬ |

Shomoyer Khobor

৫০ জনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ

রূপপুর প্রকল্পে বালিশকাণ্ড, অতিরিক্ত ৩৬ কোটি টাকা ফেরত চায় কমিটি

খবর প্রতিবেদন | প্রকাশিত ১৬ জুলাই, ২০১৯ ০০:৪৫:০০


পাবনার রূপপুর পরমাণু বিদ্যুৎ প্রকল্প এলাকায় কর্মকর্তা-কর্মচারীদের থাকার জন্য বিছানা, বালিশ ও আসবাবপত্র অস্বাভাবিক মূল্যে ক্রয়ের অভিযোগের সত্যতা পেয়েছে এ ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটি। অনিয়মের চিত্র তুলে ধরে হাইকোর্টে এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন জমা হয়েছে। আগামী ২১ জুলাই বিচারপতি তারিক উল হাকিমের নেতৃত্বাধীন হাইকোর্ট বেঞ্চে এ প্রতিবেদন দাখিল করা হবে।
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, হিসাবে মালামালের প্রকৃত মূল্য অপেক্ষা ৩৬ কোটি ৪০ লাখ টাকা বেশি দেখানো হয়েছে। এই টাকা সরকারের কোষাগারে জমা দেওয়ার সুপারিশ করেছে তদন্ত কমিটি। এছাড়া ঘটনার সঙ্গে জড়িত প্রকৌশলী মাসুদ আলমসহ প্রায় ৫০ জনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণেরও সুপারিশ করা হয়েছে।
সোমবার সংশ্লিষ্ট কোর্টের এ মামলার ডেপুটি এ্যার্টনি জেনারেল আমাতুল করীম এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, ‘এ্যাটর্নি জেনারেল কার্যালয়ে গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের তদন্ত কমিটির দাখিল করা প্রতিবেদনে অধিক মূল্যে আসবাবপত্র ক্রয়ের অভিযোগের সত্যতা পাওয়ার কথা উল্লেখ করা হয়েছে।’ হিসাবে মালামালের প্রকৃত মূল্য অপেক্ষা ৩৬ কোটি ৪০ লাখ টাকা বেশি দেখানো হয়েছে। এই টাকা সরকারের কোষাগারে জমা দেওয়ার সুপারিশ করেছে তদন্ত কমিটি। প্রতিবেদনে ঘটনার সঙ্গে জড়িত প্রকৌশলী মাসুদ আলমসহ প্রায় ৫০ জনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণেরও সুপারিশ করা হয়েছে।
গত ২ জুলাই পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্পের আওতায় নির্মাণাধীন ভবনে আসবাবপত্র বিশ্বস্ততার সঙ্গে (গুড ফেইথ) কেনা ও উত্তোলনের ব্যর্থতা কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়েছিলেন হাইকোর্ট।
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ












পেঁয়াজের বাজার বেসামাল

পেঁয়াজের বাজার বেসামাল

২৪ অগাস্ট, ২০১৯ ০০:৫৮