খুলনা | রবিবার | ২৬ জানুয়ারী ২০২০ | ১২ মাঘ ১৪২৬ |

Shomoyer Khobor

কুমিল্লায় খাস কামরায় বিচারকের সামনেই এক আসামির ছুরিকাঘাতে আরেক আসামি খুন

খবর প্রতিবেদন | প্রকাশিত ১৬ জুলাই, ২০১৯ ০০:৩৩:০০


হত্যা মামলায় হাজিরা দিতে এসেছিলেন দুই আসামি। চলছিল সাক্ষ্য গ্রহণ। ঠিক এ সময় বিচারকের সামনেই বিতণ্ডার জেরে ছুরি নিয়ে এক আসামি অন্য আসামিকে ধাওয়া করেন। দৌড়ে জীবন বাঁচাতে আশ্রয় নেন অন্য একটি আদালতে। সেখানে গিয়েই ঘাতক উপর্যুপরি ছুরি মারতে থাকেন। এতে ওই আসামি ঘটনাস্থলেই নিহত হন।
গতকাল সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে কুমিল্লার অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ ৩য় আদালতের বিচারক বেগম ফাতেমা ফেরদৌসের খাসকামরায় এ ঘটনা ঘটে। মামলার আইনজীবী এ্যাসিস্টেন্ট পাবলিক প্রসিকিউটর (এপিপি) নূরুল ইসলাম এ কথা জানান।
নিহত ব্যক্তির নাম ফারুক। তিনি লাকসাম উপজেলার বাসিন্দা। পেশায় তিনি ছিলেন একজন রাজমিস্ত্রি। এ ঘটনায় হাসান নামের অপর এক আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকেই হাসানকে গ্রেফতার করা হয়। সম্পর্কে উভয়ে আপন মামাতো-ফুফাতো ভাই।
অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ তৃতীয় আদালতের রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী (এপিপি) নুরুল ইসলাম জানান, মনোহরগঞ্জ উপজেলায় ২০১৩ সালের ২৬ আগস্ট ঘটে যাওয়া একটি হত্যা মামলার আসামি ছিলেন হাসান ও ফারুক। হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ছোরাটি উদ্ধার করেছে পুলিশ।
আইনজীবী (এপিপি) নূরুল ইসলাম জানান, ২০১৩ সালে কুমিল্লার মনোহরগঞ্জের কান্দি গ্রামে হাজী আবদুল করিমকে হত্যার ঘটনা ঘটে। সোমবার ওই মামলার জামিনে থাকা আসামিদের হাজিরার দিন ধার্য ছিল। বেলা ১১টার দিকে এ মামলার আসামিরা আদালতে প্রবেশের সময় ৪নং আসামি ফারুককে ছুরি নিয়ে তাড়া করে ৮নং আসামি হাসান। এ সময় জীবন বাঁচাতে ফারুক বিচারকের খাস কামরায় ঢুকে যায়। হাসান সেখানে ঢুকে টেবিলের ওপর ফেলে ফারুককে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করে। ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে ফারুককে ওই কক্ষের ফ্লোরে ফেলেও ছুরিকাঘাত করা হয়। এ সময় আদালতে অন্য একটি মামলার হাজিরা দিতে আসা কুমিল্লার বাঙ্গরা থানার এএসআই ফিরোজ এগিয়ে গিয়ে হাসানকে আটক করে। এ সময় আদালতকক্ষে বিচারক, আইনজীবী ও অন্য আসামিদের মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। গুরুতর আহত ফারুককে কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন।   
পুলিশ সুপারের ভাষ্যে হত্যার বিবরণ : দুপুরে আদালত চত্বরেই ঘটনার বর্ণনা দেন পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘আজ (সোমবার) একটা হত্যা মামলার সাক্ষ্য গ্রহণ তৃতীয় জজ আদালতে। এ মামলার দুই আসামির একজনের নাম হচ্ছে হাসান, আরেকজনের নাম ফারুক। দু’জনই হচ্ছে মামাতো-ফুফাতো ভাই। দু’জনেই জামিনে ছিলেন, হাজিরা দিতে এসেছেন।’ ‘দু’জনের ভেতরে মামলা নিয়ে গ্যাঞ্জাম। যে ছুরিকাঘাত করেছে, সেই হাসান মনে করেন যে তিনি নির্দোষ এবং তিনি ফারুকের কারণে এ মামলার আসামি হয়েছেন। ফারুক মার্ডারটা করেছেন। ফারুকের কারণে হাসানও এ মামলায় জড়িয়ে গেছেন। এটা হাসানের ধারণা।’
জেলা পুলিশ সুপার আরো বলেন, “হাসান যখন আদালতে হাজিরা দিতে আসেন, তার আগে ফারুককে ফোন করে হাসান বলছেন, ‘হাজিরা দিতে হবে না? না হলে তো বেল (জামিন) কেটে দেবে।’ ফারুক বলেন, ‘আমি যেতে পারব না।’ তখন থেকেই কথা কাটাকাটি হচ্ছে।”
কথা কাটাকাটির জের ধরে উত্তপ্ত অবস্থায় দু’জন দু’ভাবে (আদালতে) এসেছেন বলেও গণমাধ্যমকে জানান জেলা পুলিশ সুপার। তিনি বলেন, ‘হাসান ফারুককে স্ট্যাব করবে, এ কারণে কোমরের মধ্যে একটা ছুরি নিয়ে এসেছেন। এজলাসের ভেতর দু’জন একত্রে দাঁড়িয়েছেন। এজলাসের ভেতর হাসান ফারুককে স্ট্যাব করার জন্য ধাওয়া করেছেন। একটা পর্যায়ে ফারুক দৌড় দিয়েছেন, সঙ্গে সঙ্গে পুলিশও দৌড় দিয়েছে।’ ‘দৌড়ে তৃতীয় জজ আদালতের ভেতরে ঢুকে স্ট্যাব করেছেন এবং একটা পর্যায়ে ফারুক পড়ে যান। তখন উপর্যুপরি ফারুকের ওপর স্ট্যাব করতে থাকেন। ফারুকের গায়ে তিন-চারটা স্ট্যাবের দাগ পেয়েছি। হাসানকে গ্রেফতার করেছি, একই সঙ্গে চাকুটা উদ্ধার করেছি,’ যোগ করেন সৈয়দ নুরুল ইসলাম।
পুলিশ গ্রেফতারের পর হাসানের প্রাথমিক জবানবন্দী নিয়েছে বলে জানান পুলিশ সুপার। তিনি বলেন, ‘হাসান এই কথাগুলোই বলেছেন, তিনি মনে করেন তিনি নির্দোষ। তিনি ফারুকের কারণে এই মামলার আসামি হয়েছেন, হয়রানি হচ্ছেন। সে কারণেই ফারুকের ওপর তাঁর ক্ষোভ। এই ক্ষোভের প্রকাশ ঘটেছে এই আদালতের ভেতরে এসে।’
এ ব্যাপারে বিচারক বেগম ফাতেমা ফেরদৌস বলেন, ‘আমার সামনে একজন আসামিকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হলো। আমার ওপরও হামলা হতে পারতো। আমাদের নিরাপত্তা কোথায়?’ 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ




জন্মদিনের অনুষ্ঠানে  নিয়ে গণধর্ষণ

জন্মদিনের অনুষ্ঠানে  নিয়ে গণধর্ষণ

২৬ জানুয়ারী, ২০২০ ০০:০০








নিমিষেই পুড়ে ছারখার  ২০০ বস্তি

নিমিষেই পুড়ে ছারখার  ২০০ বস্তি

২৫ জানুয়ারী, ২০২০ ০০:০০


ব্রেকিং নিউজ





জন্মদিনের অনুষ্ঠানে  নিয়ে গণধর্ষণ

জন্মদিনের অনুষ্ঠানে  নিয়ে গণধর্ষণ

২৬ জানুয়ারী, ২০২০ ০০:০০


কেইউজে’র নির্বাহী  কমিটির সভা 

কেইউজে’র নির্বাহী  কমিটির সভা 

২৬ জানুয়ারী, ২০২০ ০০:০০


সীমান্ত হত্যা নিয়ে ভাবতে হবে

সীমান্ত হত্যা নিয়ে ভাবতে হবে

২৬ জানুয়ারী, ২০২০ ০০:০০