খুলনা | মঙ্গলবার | ১৫ অক্টোবর ২০১৯ | ২৯ আশ্বিন ১৪২৬ |

Shomoyer Khobor

কোন আর্চ পয়েন্ট নেই : সরবরাহের অপেক্ষায় ৬ হাজার 

ডিজিটাল নম্বর প্লেটের সুবিধা নেই খুলনায়

এন আই রকি | প্রকাশিত ১৪ জুলাই, ২০১৯ ০০:৫৪:০০

২০১২ সালের অক্টোবর থেকে খুলনা অঞ্চলের যানবাহন গ্রাহকদের ডিজিটাল নম্বর প্লেট (ডিএনপি) বিতরণ শুরু করে বিআরটিএ। সাত বছরে ৫৪ হাজারের বেশি গ্রাহক ডিএনপির জন্য আবেদন করেছে। তবে ডিএনপির সকল সুবিধা থেকে বঞ্চিত হওয়ার কারণে অনেক গ্রাহকই সেটা নিচ্ছে না। যার ফলে বিআরটিতে পড়ে রয়েছে ৬ হাজারেরও বেশি ডিএনপি।  
গ্রাহকদের অভিযোগ, খুলনা বিভাগে কোন আর্চ পয়েন্ট (ডিএনপি’র ডিভাইজ সনাক্তকরণ মেশিন) না থাকার কারণেই ডিএনপির উপকারিতা থেকে সকলেই বঞ্চিত হচ্ছেন গ্রাহকরা। তবে বিআরটিএ’র দাবি, ডিএনপির ব্যবহারের ফলে সরকারি ট্যাক্স ফাঁকি প্রতিরোধ, অন- টেস্ট লেখা যানবাহনের সংখ্যা এবং একই নম্বরে একাধিক যানবাহন চলাচল কমেছে।
নগরীর দৌলতপুর এলাকার বাসিন্দা মোঃ আলামিন শেখ জানান, মোটরসাইকেলের রেজিস্ট্রেশনের টাকা জমা দেওয়ার সময় ডিএনপির টাকাও জমা দেওয়া বাধ্যতামূলক। যার কারনে প্রায় দুই হাজার দুইশ’ ৬০ টাকা রেজিস্ট্রেশনের সাথে অতিরিক্ত জমা দিতে হয়। বিএরটিএ থেকে মোবাইলে মেসেজ আসার পর সেখানে গিয়ে যানবাহনে ডিএনপি লাগাই। সেখানকার কর্মকর্তারা জানিয়েছিলেন, যানবাহন চুরি হওয়ার সম্ভাবনা কমে গেছে। সহজেই গাড়ির অবস্থান সনাক্ত করা যাবে। ডিএনপির মধ্যে এক ধরনের চিপ রয়েছে যার মাধ্যমে আর্চ পয়েন্টের সাহায্যে গাড়ির অবস্থান গতিবিধিসহ সকল সুবিধা পাওয়া যাবে। একই ধরনের অভিযোগ করেছেন একাধিক মোটরসাইকেল, প্রাইভেটকার, পিকআপ ও ট্রাক মালিক গ্রাহকরা। তাদের দাবি, খুলনায় ডিএনপি সরবরাহ শুরু হয়েছে প্রায় ৭ বছর। কিন্তু এখনও কোন আর্চ পয়েন্ট করা হয়নি। যার ফলে এই এলাকার যানবাহনের মালিকরা সকল সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। তাই অবিলম্বে খুলনায় আর্চ পয়েন্ট স্থাপন করা জরুরি। তাহলে গাড়ি চুরি, গাড়ির গতিরোধসহ সকল অপকর্ম নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে।
ডিজিটাল নম্বর প্লেট সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান টাইগার আইটির খুলনার কর্মকর্তা মোঃ সোহেল ইসলাম বলেন, ডিএনপি’র সরবরাহ সন্তোষজনক। তবে সম্প্রতি ৬ হাজারের বেশি ডিএনপি জমা রয়েছে। অনেক গ্রাহক সেগুলো নিতে আসছে না। কারণ হিসেবে তিনি বলেন, খুলনা বিআরটিএ’র আওতাধীন অনেক যানবাহন পার্শ্ববর্তী জেলাগুলোতে চলাচল করে। যেখানে ডিএনপি বা নম্বর প্লেটই লাগে না। বিশেষ করে উপজেলা পর্যায়ে। সেখানকার গ্রাহকরা ডিএনপি’র টাকা জমা দিলেও সেটি নিতে আসছেন না। এছাড়া অনেক গ্রাহক ডিএনপি আসার পর তাকে দেওয়া কনফরমেশন মেসেজ চেক করেন না। যার কারণেই ডিএনপি সরবরাহ কিছুটা কমছে। তিনি বলেন, আর্চ  পয়েন্ট শুধু ঢাকায় রয়েছে। যার ফলে যে কোন ডিএনপি সংযুক্ত যানবাহন ঢাকায় প্রবেশ করার সাথে সাথে তার অবস্থান চিহ্নিত করা সম্ভব। 
বিআরটিএ খুলনা সার্কেলের সহকারী পরিচালক মোঃ আবুল বাসার বলেন, ডিএনপি’র অনেক উপকারীতা। এর মধ্যে প্রধান হলো সরকারি রাজস্ব ফাঁকি দেওয়া কমেছে। এছাড়া অনেক যানবাহন দীর্ঘদিন ধরে আর অন টেস্ট লেখা থাকে না। সম্প্রতি গ্রাহকদের সচেতনতা কমে যাওয়ার কারণে ডিএনপি সরবরাহ কমেছে। আর্চ  পয়েন্টে পর্যায়ক্রমে খুলনাতে বসানো হবে। যে সকল যানবাহনে ডিএনপি আছে সেগুলো আর্চ  পয়েন্টের মধ্যে প্রবেশ করার সাথে সাথেই অবস্থান চিহ্নিত করা সম্ভব। ঢাকাসহ দেশের কয়েকটি স্থানে আর্র্চ পয়েন্ট পরীক্ষামূলকভাবে স্থাপন করা হয়েছে। 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ





ফুলবাড়ীগেটে ইয়াবাসহ যুবক আটক

ফুলবাড়ীগেটে ইয়াবাসহ যুবক আটক

১৫ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০









ব্রেকিং নিউজ






ফুলবাড়ীগেটে ইয়াবাসহ যুবক আটক

ফুলবাড়ীগেটে ইয়াবাসহ যুবক আটক

১৫ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০