যারা সুন্দরবনকে ধ্বংস করতে চায় তাদের আইনের আওতায় আনতে হবে : সিটি মেয়র


খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক বলেছেন সুন্দরবন আমাদের এ অঞ্চলকে প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে রক্ষা করে আসছে। যারা সুন্দরবনকে ধ্বংস করতে চায় তাদের আইনের আওতায় আনতে হবে। সবাইকে বৃক্ষরোপণে আরো বেশি উদ্বুদ্ধ করতে হবে। 
তিনি গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে সার্কিট হাউস মাঠে ১৫ দিনব্যাপী মেলার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন। খুলনায় গতকাল থেকে শুরু হয়েছে বিভাগীয় বৃক্ষরোপণ অভিযান ও ১৫ দিনব্যাপী বৃক্ষমেলা। খুলনা জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় সুন্দরবন পশ্চিম বন বিভাগ ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। 
সিটি মেয়র বলেন, বৃক্ষ অমূল্য সম্পদ। নির্মল পরিবেশ নিশ্চিতকরণ এবং ঝড়-জলোচ্ছ্বাস থেকে জানমাল রক্ষায় বৃক্ষ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। গাছ বাতাস থেকে ক্ষতিকর কার্বন-ডাই-অক্সাইড গ্রহণ করে এবং আমাদের বেঁচে থাকার জন্য অতি প্রয়োজনীয় অক্সিজেন নিঃসরণ করে। তাই আমাদের নিজেদের অস্তিত্বের প্রয়োজনে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বন রক্ষায় কার্যকর ব্যবস্থা নিতে হবে। 
খুলনার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন খুলনার বিভাগীয় কমিশনার লোকমান হোসেন মিয়া, রেঞ্জ ডিআইজি ড. খ: মহিদ উদ্দিন, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ হারুনুর রশীদ, বন সংরক্ষক মোঃ আমীর হোসাইন চৌধুরী, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক কাজী আব্দুল মান্নান, পুলিশ সুপার এসএম শফিউল্লাহ, কেএমপির উপ-কমিশনার মোঃ এহসান শাহ, খুলনা প্রেসক্লাবের সভাপতি এস এম হাবিব এবং কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক পংকজ কান্তি মজুমদার। স্বাগত জানান সুন্দরবন পশ্চিম বন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মোঃ বশিরুল-আল-মামুন। নার্সারি মালিক সমিতির পক্ষে অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন সমিতির সভাপতি মোঃ বদরুল আলম রয়েল। 
এর আগে নগরীর শহিদ হাদিস পার্ক থেকে বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে মেলা প্রাঙ্গণে এসে শেষ হয়। র‌্যালিতে বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ অংশগ্রহণ করে। বৃক্ষমেলায় বিভিন্ন ধরণের ৬১টি স্টল রয়েছে। মেলা প্রতিদিন সকাল নয়টা থেকে রাত আটটা পর্যন্ত চলবে।  


footer logo

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত।

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।