খুলনা | শুক্রবার | ২২ নভেম্বর ২০১৯ | ৮ অগ্রাহায়ণ ১৪২৬ |

বিশ্বকাপের অর্জন ধরে আগামীতে  এগোতে হবে টাইগারদের

০৮ জুলাই, ২০১৯ ০০:০০:০০

বিশ্বকাপের অর্জন ধরে আগামীতে  এগোতে হবে টাইগারদের

ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় আসর দ্বাদশ বিশ্বকাপ থেকে বাংলাদেশ হারের মধ্য দিয়ে বিদায় নিয়েছে। খেলায় হারজিত থাকবে। তবে চলতি বিশ্বকাপে টাইগারদের অর্জনের খতিয়ান কম নয়। বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের এবারের বিশ্বকাপের অর্জনের খতিয়ান রয়েছে অনেক। এ অর্জন ধরেই আগামীতে এগিয়ে যেতে হবে টাইগারদের।
জয়-পরাজয়ের সমীকরণে বিশ্ব ক্রিকেটের কিংবদন্তিদের পর্যবেক্ষণে বর্তমান বাংলাদেশের ক্রিকেট যেভাবে মূল্যায়িত হয়েছে, সামনে এগিয়ে যাওয়ার জন্য তা বড় অনুপ্রেরণা। এর আগে কোনো বিশ্বকাপেই এভাবে শিরদাঁড়া টান করে দাঁড়াতে দেখা যায়নি টাইগারদের। অগ্রগতির সূচকে এটি নিঃসন্দেহে ভিন্নভাবে মূল্যায়িত হওয়ার দাবি রাখে। তবে এবারের বিশ্বকাপে দলগত অর্জনের পাশাপাশি ব্যক্তিগত অর্জনের যদি সমীকরণ করা হয়, তাহলে বলতে হয় সাকিব আল-হাসানের ঔজ্জ্বল্য আমাদের ফের গৌরবান্বিত করেছে। এবারের বিশ্বকাপে দু’টি শতক, পাঁচ’টি অর্ধশতক আর ১১টি উইকেট ছিনিয়ে নিয়ে বিশ্বকাপের ইতিহাসে সেরা ১০ সব্যসাচীর একজন বনে গেছেন তিনি। ক্রিকেটের তীর্থক্ষেত্র কিংবা রাজসিক হিসাবে যে লর্ডস খ্যাত, সেখানেই সাকিবের অর্জনের মুকুটে যুক্ত হলো নতুন পালক। একই সঙ্গে এই মাঠেই বোলিংয়ে ফের মুনশিয়ানা দেখিয়ে পাঁচ উইকেট তুলে নিয়ে বাংলাদেশের হয়ে একদিনের ক্রিকেটে দ্রুততম ১০০ উইকেট শিকারির খাতায় নাম লেখালেন মুস্তাফিজুর রহমান। পাশাপাশি মুশফিকুর রহিম, মাহমুদুল্লাহ, মেহেদী হাসান, মোসাদ্দেক হোসেন নিজ নিজ ক্ষেত্রে ছন্দে ছিলেন। অর্জন আরও আছে। সাত ইনিংসের তিনটিতে ৩০০ প্লাস রান, অসিদের বিপক্ষে দলের সর্বোচ্চ ইনিংস-এসবই উল্লেখযোগ্য। দলনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজার এটাই শেষ বিশ্বকাপ হলেও ক্রিকেটাঙ্গনে তার মতো সব্যসাচী পথপ্রদর্শক হয়েই থাকবেন। সাকিবের পারফরম্যান্সের কারণে মাশরাফি অন্তত সেমিতে খেলার আশা করেছিলেন। আশাহত দলনায়ক সতীর্থের প্রতি যে সম্মান দেখিয়েছেন তাও অনুকরণীয়। 
ক্রিকেট হলো টিমওয়ার্ক। এখানে নিজ নিজ ক্ষেত্রে সেরাটা না দিতে পারলে হোঁচট খাওয়ার শঙ্কা থাকেই। তার পরও এবারের বিশ্বকাপে আমাদের ক্রিকেট যে বার্তা দিয়েছে, তা হচ্ছে বাংলাদেশ দুর্বল নয়, বরং লড়াই করে প্রতিপক্ষকে পরাস্ত করার কৌশল আয়ত্ত করে নিয়েছে। এই অর্জন ধরেই এগোতে হবে। যে কোনো পরিস্থিতিতেই আমরা পাশে রয়েছি বাংলাদেশের এই দামাল ছেলেদের। আমরা সেমিফাইনালে যেতে পারিনি সত্য কিন্তু তাতে করে তাদের লড়াকু মানসিকতা ম্লান হয়নি। এর জন্যই আমরা টাইগারদের অভিবাদন জানাই। আজ হয়নি, কাল না হোক, অন্তত পরশু আমরা সফল হবোই। এটাই আমাদের প্রত্যাশা।
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ








বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস আজ

বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস আজ

১৪ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০


ঘূর্ণিঝড়ে ঢাল হলো সুন্দরবন

ঘূর্ণিঝড়ে ঢাল হলো সুন্দরবন

১২ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০




ব্রেকিং নিউজ