খুলনা | সোমবার | ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ৮ আশ্বিন ১৪২৬ |

Shomoyer Khobor

উপজেলা থেকে ইউপি উপনির্বাচন

কয়রা ও ডুমুরিয়ায় আ’লীগ বনাম আ’লীগের রাজনীতি!

আশরাফুল ইসলাম নূর | প্রকাশিত ০১ জুলাই, ২০১৯ ০১:১০:০০

কয়রা ও ডুমুরিয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আ’লীগ মনোনীত প্রার্থীরা নৌকা প্রতীক নিয়ে পরাজিত হন। নৌকা’র পরাজয় ও বিদ্রোহী প্রার্থীদের বিজয়ের পেছনে আধিপত্য বিস্তারে অভ্যন্তরীণ কোন্দলকেই দায়ী করেন স্থানীয় নেতাকর্মীরা। কয়রা সদরের ইউপি চেয়ারম্যান এসএম শফিকুল ইসলাম ও ডুমুরিয়ার গুটুদিয়ার চেয়ারম্যান মোস্তফা সরোয়ার উপজেলা নির্বাচনে অংশ নেয়ায় পদ দুটি শুণ্য হয়। আগামী ২৫ জুলাই এ দুটি ইউনিয়নের উপনির্বাচনের গতকাল রবিবার ছিল মনোনয়নপত্র জমা দেবার শেষ দিন ছিল। দলীয় মনোনয়নের বাইরে এবারও বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছে দলটির। ফলে দলটির অভ্যন্তরীণ কোন্দলের ঢেউ উপজেলা নির্বাচন থেকে ইউনিয়ন পরিষদের উপ-নির্বাচনেও পড়তে পারে। গতকাল কয়রায় ৭ ও গুটুদিয়ায় ৪ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।
দলীয় নেতাকর্মীরা জানান, ডুমুরিয়ার গুটুদিয়ার ইউপি চেয়ারম্যান মোস্তফা সরোয়ার আ’লীগের মনোনয়নে নৌকা প্রতীক নিয়ে উপজেলা নির্বাচনে অংশ নেয়ায় গত ৩ মার্চ পদটি শুণ্য হয়। তিনি একাধিকবার সংবাদ সম্মেলনে খুলনা-৫ আসনে দলীয় সংসদ সদস্যের বিরুদ্ধে ‘নৌকা’ প্রতীকের বিরোধিতা করার অভিযোগ করেছিলেন। দলীয় নেতাকর্মীদের মারপিট, ঘর-বাড়ী ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর-লুটপাটের অভিযোগ করেন তিনি। সর্বশেষ গত ২১ জুন খুলনা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে ডুমুরিয়া উপজেলায় নৌকা প্রতীকের ভরাডুবির জন্য একমাত্র স্থানীয় সংসদ সদস্যকেই দায়ী করেন তিনি। 
প্রসঙ্গত্ব, গত ১৮ জুন অনুষ্ঠিত ডুমুরিয়া উপজেলা নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে ৩৬ হাজার ৭৬২ ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করেন গাজী এজাজ আহম্মেদের ঘোড়া। গতকাল শেষ দিনে গুটুদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের উপনির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৪ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। তারা হলেন আ’লীগ মনোনীত কাজী আলমগীর হোসেন, স্বতন্ত্র প্রার্থী শেখ তুহিনুল ইসলাম, আবুল হাসান ও কাজী নুরুল ইসলাম।
অন্যদিকে, কয়রা উপজেলায় বিদ্রোহী প্রার্থী এসএম শফিকুল ইসলাম আনারস প্রতীকে ৪৪ হাজার ৭৭ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দি উপজেলা আ’লীগের সভাপতি জিএম মহসিন রেজা নৌকা প্রতীকে পেয়েছিলেন ৩৮ হাজার ৮৩০ ভোট। কয়রাতে অভ্যন্তরীণ কোন্দল এখনও প্রকট। সদর ইউনিয়ন পরিষদ উপনির্বাচনে উপজেলা চেয়ারম্যানের আর্শীবাদপুষ্ঠ কয়রা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মেহেদী হাসান দিদারকে দলীয় মনোনয়ন দিয়েছে আ’লীগ। তাতে ক্ষুব্ধ উপজেলা আ’লীগের শীর্ষ নেতারা। প্রকাশ্যে মুখ না খুললেও এ নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের ঘোর বিরোধীতা করবে দলের বৃহৎ অংশটি; স্থানীয় নেতাকর্মীদের সাথে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।
গতকাল শেষদিনে কয়রা সদর ইউনিয়ন পরিষদের উপনির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে সাতজন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। তারা হলেন আ’লীগ মনোনীত উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মেহেদী হাসান দিদার, যুবলীগ নেতা রবিউল ইসলাম রবিন, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা হুমায়ুন কবির হিরো, উপজেলা জাতীয় পার্টির সহ-সভাপতি এম রফিক সিরাজ, জাপা নেতা মোঃ মঞ্জুর হোসেন লাভলু, উপজেলা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শিক্ষক মোঃ হুমায়ুন কবির এবং আব্দুল্লাহ্ আল মামুন সুমন।
কয়রা ও ডুমুরিয়ায় বিদ্রোহী প্রার্থী সম্পর্কে কোন মন্তব্য করতে চাইছেন না জেলা আ’লীগের শীর্ষ নেতারা। জেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুজ্জামান জামাল জেলা আওয়ামী লীগে এই মুহুর্তে কোন দ্বন্দ্ব নেই বলে দাবি করেছেন।
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ









জাতীয় পার্টিতে ভাঙনের সুর!

জাতীয় পার্টিতে ভাঙনের সুর!

২৪ জুলাই, ২০১৯ ০০:৩৩





ব্রেকিং নিউজ











কয়রায় সাবেক ইউপি মেম্বরকে কুপিয়ে জখম

কয়রায় সাবেক ইউপি মেম্বরকে কুপিয়ে জখম

২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:৪৬