খুলনা | মঙ্গলবার | ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ২ আশ্বিন ১৪২৬ |

শিরোনাম :

Shomoyer Khobor

সামনে কঠিন পরীক্ষা ফুটবলের

ক্রীড়া প্রতিবেদক | প্রকাশিত ১৩ জুন, ২০১৯ ০০:০০:০০

সামনে কঠিন পরীক্ষা ফুটবলের

লাওসকে টপকে বিশ্বকাপ ও এশিয়ান কাপের যৌথ বাছাইপর্ব নিশ্চিত করেছে বাংলাদেশ। আগামী ১৭ জুলাই জানা যাবে সামনের দিনগুলোতে আমাদের পরীক্ষা দিতে হবে এশিয়ান কোন কোন প্রতিপক্ষের বিপক্ষে। বাছাইপর্বের ড্র অনুষ্ঠিত হবে ১৭ জুলাই মালয়েশিয়ায়। বিশ্বকাপের মূল বাছাইপর্বে খেলার যোগ্যতা অর্জন করেছে বাংলাদেশ। তবে সামনের দিনগুলোতে কঠিন পরীক্ষাই অপেক্ষা করছে বাংলাদেশ ফুটবলের জন্য। এশিয়ার বড় বড় প্রতিপক্ষের বিপক্ষে খেলা। বিশ্বকাপ না হলেও এশিয়ান কাপের চূড়ান্তপর্বে খেলার হাতছানি। 
যৌথ বাছাইপর্বে এশিয়া থেকে অংশ নেবে ৪০টি দেশ। ৮টি গ্র“পে পাঁচটি করে দল থাকবে। সেপ্টেম্বরের ৫ তারিখ থেকে হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ে ভিত্তিতে শুরু হবে এ বাছাইপর্ব। এশিয়ান কাপের চূড়ান্তপর্বে গতবার থেকেই ২৪টি করে দেশ খেলছে। বিশ্বকাপ বাছাইয়ের পর এশিয়ান কাপের চূড়ান্ত পর্বে যাওয়ার লড়াইটাও বাংলাদেশের জন্য একটা বড় সুযোগ।
বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে বাজে ফলের পরেও বাংলাদেশের সামনে ছিল এশিয়ান কাপ বাছাইয়ে খেলার সুযোগ। কিন্তু সেটিও পারেনি বাংলাদেশ। ২০১৬ সালে ভুটানের কাছে হার সেই সম্ভাবনাকে শেষ করে দিয়েছিল। বিশ্বকাপ বাংলাদেশের লক্ষ্য কখনোই নয়। এশিয়ান কাপের চূড়ান্তপর্বই হোক জেমি ডে’র দলের স্বপ্ন। সে স্বপ্ন পূরণ হলে ফুটবল কিন্তু অনেকটা পথ এগিয়ে যায়।
এক নজরে বাছাইপর্বের ধাপগুলো : এশিয়া থেকে সরাসরি ৪টি দেশ বিশ্বকাপে খেলার টিকিট পাবে। আন্তমহাদেশীয় প্লে অফের বাধা টপকাতে পারলে সংখ্যাটা হবে ৫। কাতার বিশ্বকাপে এ সংখ্যাটা বাড়তে পারে।
প্রাক-বাছাইয়ের প্রথম পর্ব শেষে এখন বাছাইপর্বের দ্বিতীয় রাউন্ড : দ্বিতীয় রাউন্ডে খেলার জন্য আগে থেকেই অপেক্ষা করছে এশিয়ার শীর্ষ ৩৪ র‌্যাঙ্কিংধারী দল। এদের সঙ্গে এখন যোগ হবে বাংলাদেশসহ প্রথম রাউন্ড থেকে কোয়ালিফাই করে আসা ৬ দল। মোট ৪০ দল নিয়ে দ্বিতীয় পর্বের লড়াই। ৮ গ্র“পে ৫টি করে দল হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ে ভিত্তিতে খেলবে। এখান থেকে ৮ গ্র“পের পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষ ৮ দলের সঙ্গে চারটি সেরা রানার্সআপ-আপ দল নিশ্চিত করবে তৃতীয় রাউন্ড। একই সঙ্গে চীনে অনুষ্ঠেয় ২০২৩ সালের এশিয়ান কাপের চূড়ান্তপর্বে খেলার যোগ্যতাও অর্জন করবে এই ১২ দল।
১২ দলের তৃতীয় পর্ব : দুই গ্র“পে ভাগ হয়ে খেলবে ১২টি দল। প্রত্যেক গ্র“পের ৬টি দল হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ে ভিত্তিতে খেলবে একে ওপরের বিপক্ষে। দুই গ্র“প থেকে চ্যাম্পিয়ন ও রানার্সআপ দল পাবে কাতার বিশ্বকাপের টিকিট। দুই গ্র“পের তৃতীয় হওয়া দলের জন্যও থাকবে বিশ্বকাপ খেলার সুযোগ। তবে তার জন্য ডিঙাতে হবে আরও দুই রাউন্ডের বাধা।
চতুর্থ ও পঞ্চম পর্ব : এই পর্বটা আগের দুই গ্র“পের তৃতীয় হওয়া দল দুইটির জন্য। এদের মধ্যে জয়ী দল কিন্তু সরাসরি পাবে না বিশ্বকাপের টিকিট। পঞ্চম রাউন্ডে তাকে অপেক্ষা করতে হবে আন্তমহাদেশীয় প্লে অফ পর্বের জন্য। আন্তমহাদেশীয় প্লে অফে উত্তর ও মধ্য আমেরিকা (কনকাকাফ) অঞ্চলের বাছাইয়ের পয়েন্ট টেবিলের চতুর্থ দলের মুখোমুখি হবে। দুই লেগের এই খেলায় জয়ী দল পাবে বিশ্বকাপের টিকিট।
এশিয়ান কাপ বাছাইপর্ব : এশিয়ান কাপে খেলবে মোট ২৪টি দেশ। শুরুতে মোট ৪০ দল নিয়ে যৌথভাবে বিশ্বকাপ ও এশিয়ান কাপের টিকিটের লড়াই শুরু। ৮ গ্র“পে ৫টি করে দল হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ে ভিত্তিতে ভাগ হয়ে খেলবে। এখান থেকে ৮ গ্র“পের পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষ ৮ দলের সঙ্গে চারটি সেরা রানার্সআপ-আপ দল নিশ্চিত করবে বিশ্বকাপ বাছাইয়ের তৃতীয় রাউন্ড। একই সঙ্গে চীনে অনুষ্ঠিতব্য ২০২৩ সালের এশিয়ান কাপে খেলার যোগ্যতাও অর্জন করবে এই ১২টি দল। বাকি ২৮টি দেশের মধ্যে সেরা ২৪টি দলের সামনেও খোলা থাকবে এশিয়ান কাপের দরজা। ৬ গ্র“পে ৪টি করে দল খেলবে হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ে ভিত্তিতে। এর পরের ধাপের বিষয়টি নিয়ে এখনো খোলাসা করেনি এশিয়ান ফুটবল কনফেডারেশন। স্বাগতিক দল বিশ্বকাপ ও এশিয়ান কাপের চূড়ান্তপর্বে খেলবে সরাসরিই।
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ











হার দিয়ে শুরু বাংলাদেশের মেয়েদের

হার দিয়ে শুরু বাংলাদেশের মেয়েদের

১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০



ব্রেকিং নিউজ