খুলনা | সোমবার | ১৭ জুন ২০১৯ | ৩ আষাঢ় ১৪২৬ |

Shomoyer Khobor

যশোরে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে এখন ওসি মোয়াজ্জেম

শহরের দু’টি বাড়ি পুলিশী নজরদারিতে গণমাধ্যম কর্মীদেরও সরব উপস্থিতি

যশোর প্রতিনিধি | প্রকাশিত ১২ জুন, ২০১৯ ০০:৪৪:০০

যশোরে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে এখন ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন। শহর ও শহরতলীতে তার দু’টি বাড়ি এখন পুলিশী কড়া নজরদারিতে রয়েছে। সেখানে এখন পুলিশ ও গণমাধ্যম কর্মীদের সরব উপস্থিতি। ঈদের আগের রাতে যশোরে পরিবারের সদস্যদের সাথে ফোনালাপ তাকে আলোচনায় নিয়ে এসেছে। 
সূত্র জানায়, দেশের আলোচিত ফেনীর সোনাগাজী থানার ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনের বাড়ি যশোরে। শহরের চাঁচড়া ডালমিল রায়পাড়া ও শহরতলীর পুলেরহাটে তার দু’টি বাড়ি রয়েছে। মিডিয়ায় ফলাও করে এ তথ্য প্রচার না হওয়ায় যশোরবাসী খানিকটা থমকে ছিল। কিন্তু ওসি মোয়াজ্জেমের একটি ফোনালাপের তথ্য প্রচার হওয়ায় তিনি যশোরের মানুষের কাছে আলোচনায় উঠে এসেছেন। এরপর থেকে নড়েচড়ে বসেছে যশোর জেলা প্রশাসন। তারা বাড়ি দু’টিতে নজরদারি বৃদ্ধি করেছে। এছাড়া ডালমিল রায়পাড়া ও পুলেরহাট এলাকায় কয়েকটি আইন প্রয়োগকারী সংস্থা তাদের তৎপরতাও বৃদ্ধি করেছে বলে প্রশাসন সূত্রে জানা যায়। এলাকাবাসী বলেছে, কোতোয়ালী থানার একজন ইন্সপেক্টর গতকাল মঙ্গলবার দু’দফা তার বাড়িতে ফোর্স নিয়ে হাজির হন ও পরিবারের সদস্যদের সাথে কথা বলেন। একই সাথে ওসি মোয়াজ্জেমের যশোরের দু’টি বাড়িতে তথ্য সংগ্রহে সারাদিনই গণমাধ্যম কর্মীদের ভীড় ছিল।  
সূত্র জানায়, দেশের আলোচিত ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন নিখোঁজ হবার আগে চাঁদরাতে যশোর শহরের বাড়িতে ফোন করেছিলেন। এ সময় তিনি পরিবারের সকল সদস্যদের খোঁজ-খবর নেন। ঈদে বাড়ি আসতে পারছেন না বলে জানান। এছাড়া তিনি সবাইকে শান্ত থাকতে বলেন ও নিজে ভালো আছেন বলেও জানান। রংপুর থেকে তিনি এ ফোনটি করেছিলেন। এরপর পরিবারের সঙ্গে গত ৭ দিনেও তার আর কোন যোগাযোগ হয়নি। তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটিও বন্ধ রয়েছে।
পরিবারিক সূত্রে জানা গেছে, ওসি মোয়াজ্জেমের বাবার নাম মৃত খন্দকার আনসার আলী। পাঁচ ভাই এক বোনের মধ্যে তিনি বড়। তার এক ভাই সৌদি আরবে ও আরেক ভাই আমেরিকা প্রবাসী। মোয়াজ্জেম এ বাড়িতে থেকেই শিক্ষাজীবন শেষ করেছেন। তিনি ১৯৮৫ সালে এসএসসি পাস করেন। এরপর ১৯৯২ সালে বিএনপি-জামায়াত শাসনামলে এস আই পদে চাকুরিতে প্রবেশ করেন বলে সূত্রটি জানিয়েছে। পুলিশে চাকুরির পর থেকে বাড়ির সাথে তার যোগাযোগ কমে যায়। তিনি কালেভর্দে বা বছরে বাড়িতে আসতেন। 
এ ব্যাপারে যশোর কোতোয়ালী থানার অফিসার ইনচার্জ অপূর্ব হাসান বলেন, ওসি মোয়াজ্জেম সংক্রান্ত তাদের কাছে কোন তথ্য বা প্রশাসনিক কোন নিদের্শনা নেই। তবে এ ব্যাপারে আইন প্রয়োগকারী কোন সংস্থা তাদের কাছে সহযোগিতা চাইলে তারা এগিয়ে যাবেন। 
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ