খুলনা | সোমবার | ১৯ অগাস্ট ২০১৯ | ৪ ভাদ্র ১৪২৬ |

শিরোনাম :
মোংলায় সাংগঠনিক তদন্তে এসে অভিযুক্তের সাথে ভ্রমণ ও ভুরিভোজ কেন্দ্রীয় বিএনপি নেতারডেঙ্গু আক্রান্ত ৫৩ হাজার, চিকিৎসা শেষে ফিরেছে ৪৫ হাজারবেসরকারি বিশ্ববিদ্যায়ের শিক্ষার্থী শিঞ্জন একদিনের রিমান্ডে অবরুদ্ধ কাশ্মীরে বাড়ছে নিরাপত্তা বাহিনীর নির্যাতন, চলছে বাছবিচারহীন গ্রেফতারখুলনায় প্রাধিকারপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে গাড়ি ও ড্রাইভারের সুবিধা গ্রহণে অনিয়মের অভিযোগ!ফের নগরীর বেসরকারি বিশ্বদ্যিালয়ের বিবিএ’র ছাত্রীকে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণের অভিযোগঈদযাত্রায় সড়কে গেছে ২২৪ প্রাণস্ত্রী পরিচয়ে কুয়াকাটাসহ নগরীর বিভিন্ন আবাসিক হোটেলে ওই ছাত্রীকে রেখেছিলো ‘শিঞ্জন রায়’

Shomoyer Khobor

আরও ২২ পণ্য বাজার থেকে সরিয়ে ফেলার নির্দেশ

১৬ পণ্যের লাইসেন্স বাতিল ও ২৬টির স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার বিএসটিআই’র

খবর প্রতিবেদন | প্রকাশিত ১২ জুন, ২০১৯ ০০:৪৩:০০

নমুনা পরীক্ষায় নিম্নমান ধরা পড়ায় ২৯ পণ্যের লাইসেন্স বাতিল ও স্থগিত করেছে মান নিয়ন্ত্রক সংস্থা স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশন (বিএসটিআই)। এসব পণ্যের মধ্যে ১৮টির লাইসেন্স বাতিল করা হয়েছে। ১১টি পণ্যের লাইসেন্স স্থগিত করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার বিএসটিআইর এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। বিএসটিআই জানায়, প্রথম ধাপে যে ৪৩টি পণ্যের লাইসেন্স স্থগিত করা হয়েছে, সেগুলোর মধ্যে ২৬টির স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার ও ১৬ পণ্যের লাইসেন্স বাতিল করা হয়েছে। 
দ্বিতীয় ধাপে লাইসেন্স বাতিল করা হয়েছে দু’টি পণ্যের আর স্থগিত করা হয়েছে ১১ পণ্যের লাইসেন্স। লাইসেন্স বাতিল হওয়া পণ্যগুলো হচ্ছে থ্রি স্টার ফ্লাওয়ার মিলের থ্রি স্টার ব্যান্ডের হলুদের গুঁড়া এবং এগ্রো অর্গানিকের খুসবু ব্র্যান্ডের ঘি। লাইসেন্স স্থগিত হওয়া পণ্যগুলো হচ্ছে প্রাণ ডেইরির প্রাণ প্রিমিয়াম ব্র্যান্ডের ঘি, স্কয়ার ফুড এ্যান্ড বেভারেজের রাঁধুনী ব্র্যান্ডের ধনিয়ার গুঁড়া ও জিরার গুঁড়া, হাসেম ফুডসের কুলসন লাচ্ছা সেমাই, যমুনা কেমিক্যালের এ-৭ ব্র্যান্ডের ঘি, কুইন কাউ ফুডের গ্রিন মাউন্টেন বাটার অয়েল, এস এ সল্টের মুসকান লবণ, কনফিডেন্স সল্টের কনফিডেন্স লবণ, জে কে ফুডের মদিনা লাচ্ছা সেমাই, বিসমিল্লাহ সল্টের উট ব্র্যান্ডের লবণ ও জনতা সল্টের নজরুল লবণ।
প্রথম ধাপে স্থগিত করা ১৬টি পণ্যের লাইসেন্স বাতিল করা হয়েছে। তা হচ্ছে মিষ্টি মেলা লাচ্ছা সেমাই, ডানকানস মিনারেল ওয়াটার, পুষ্টি সরিষার তেল, নূর স্পেশাল লবণ, দাদা সুপার লবণ, তিন তীর লবণ, লাকি সল্টের মদিনা, স্টারশিপ লবণ, তাজ লবণ, মোল্লা সল্ট, প্রাণ হলুদের গুঁড়া, প্রাণ লাচ্ছা সেমাই, জেদ্দা লাচ্ছা সেমাই, ড্যানিশ কারি পাউডার, ড্যানিশ হলুদের গুঁড়া, সান চিপস ও অমৃত লাচ্ছা সেমাই।
লাইসেন্স বাতিল হওয়া পণ্যগুলোর মান উন্নয়নের পর নতুন লাইসেন্স গ্রহণ ছাড়া এসব পণ্য বিক্রি ও বিতরণ থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। স্থগিত হওয়া পণ্যের মান উন্নয়ন করে পুনঃ অনুমোদন ছাড়া বিক্রি ও বিতরণ নিষিদ্ধ করা হয়েছে।
এদিকে প্রথম ধাপে স্থগিত করা ২৬টি পণ্যের লাইসেন্সের স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করা হয়েছে। এই পণ্যগুলো হচ্ছে দীঘি ড্রিংকিং ওয়াটারের পানি দীঘি, আররা ফুডের আররা পানি, এসিআই সল্টের এসিআই পিওর লবণ এবং এসিআই পিওর ধনিয়া গুঁড়া, মধুমতি সল্টের মধুমতি লবণ, নিউজিল্যান্ড ডেইরির ডুডলস নুডুলস, প্রাণ এগ্রোর প্রাণ কারি পাউডার, সিটি অয়েলের তীর সরিষার তেল, গ্রিন ভেজিটেবল অয়েলের জিবি সরিষার তেল, তানভির ফুডের ফ্রেশ হলুদের গুঁড়া, বাঘাবাড়ী স্পেশাল ঘি, মধুবন লাচ্ছা সেমাই, ওয়েল ফুড লাচ্ছা সেমাই, মিঠাই সুইটসের মিঠাই লাচ্ছা সেমাই, মধুফুল লাচ্ছা সেমাই, ইমতিয়াজ ব্রেডের মেহেদি বিস্কুট, নিশিতা ফুডসের নিশিতা সুজি, মঞ্জিল হলুদের গুঁড়া, কাশেম ট্রেডার্সের ডলফিন মরিচের গুঁড়া, আমিরুল ট্রেডার্সের সূর্য ব্র্যান্ডের মরিচের গুঁড়া, কে আর ফুডের কিং ময়দা, গ্রিন ল্যান্ডস মধু, রূপসা ফার্মেন্টেড মিল্ক্ক, শান হলুদের গুঁড়া ও মক্কা চানাচুর।
লাইসেন্স স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার হওয়া পণ্যগুলোর মান বাংলাদেশ মানের সমপর্যায়ে রেখে বাজারজাত করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
প্রত্যাহার : স্কয়ার ফুড এ্যান্ড বেভারেজ, প্রাণ ডেইরির পণ্যসহ মোট ২২টি পণ্যকে ‘নিম্নমানের’ বলে ঘোষণা করেছে জাতীয় মান নির্ধারণকারী সংস্থা বিএসটিআই। এ সকল পণ্যগুলোকে বাজার থেকে সরিয়ে ফেলারও নির্দেশ দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। গতকাল মঙ্গলবার অপর এক বিজ্ঞপ্তির মাধ্যম আগামী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে বাজার থেকে পণ্যগুলো তুলে নিতে কোম্পানিগুলোকে নির্দেশ দেয় বিএসটিআই। এর আগে খোলা বাজার থেকে সংগ্রহ করা ৪০৬টি পণ্যের মধ্যে দ্বিতীয় দফায় অবশিষ্ট ৯৩টি পণ্যের মান পরীক্ষা করে প্রতিষ্ঠানটি।
বিএসটিআইয়ের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, পণ্যগুলোর মানোন্নয়ন করে পুনঃ অনুমোদন ব্যতিরেকে সংশ্লিষ্ট উৎপাদনকারী, সরবরাহকারী, পাইকারি ও খুচরা বিক্রেতাদের পণ্য বিক্রি-বিতরণ ও  বাণিজ্যিক বিজ্ঞাপন প্রচার হতে বিরত থাকার জন্য এবং সংশ্লিষ্ট উৎপাদনকারীগণকে বিক্রিত মালামাল বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের ৭২  ঘণ্টার মধ্যে বাজার থেকে প্রত্যাহারের নির্দেশ প্রদান করা হলো।
যে ২২টি কোম্পানিকে বাজার থেকে তাদের পণ্য সরিয়ে ফেলতে বলা হয়েছে তাদের মধ্যে রয়েছে, প্রাণ ডেইরির প্রাণ প্রিমিয়াম ব্র্যান্ডের ঘি, স্কয়ার ফুড এ্যান্ড বেভারেজের রাঁধুনী ব্র্যান্ডের ধনিয়া গুঁড়া ও জিরার গুঁড়া, হাসেম ফুডসের কুলসন ব্র্যান্ডের লাচ্ছা সেমাই, এস এ সল্টের মুসকান ব্র্যান্ডের আয়োডিনযুক্ত লবণ। এছাড়া রয়েছে, চট্টগ্রামের যমুনা কেমিক্যাল ওয়ার্কসের এ-৭ ব্র্যান্ডের ঘি, চট্টগ্রামের কুইন কাউ ফুড প্রোডাক্টসের গ্রিন মাউন্টেন ব্র্যান্ডের বাটার অয়েল, চট্টগ্রামের কনফিডেন্স সল্টের কনফিডেন্স ব্র্যান্ডের আয়োডিনযুক্ত লবণ, ঝালকাঠির জে কে ফুড প্রোডাক্টের মদিনা ব্র্যান্ডের লাচ্ছা সেমাই, চাঁদপুরের বিসমিল্লাহ সল্ট ফ্যাক্টরির উট ব্র্যান্ডের আয়োডিনযুক্ত লবণ এবং চাঁদপুরের জনতা সল্ট মিলসের নজরুল ব্র্যান্ডের আয়োডিনযুক্ত লবণ। এসব পণ্যের লাইসেন্স স্থগিত করেছে বিএসটিআই। এ ছাড়া থ্রি স্টার ফ্লাওয়ার মিলের থ্রি স্টার ব্র্যান্ডের হলুদের গুঁড়া এবং এগ্রো অর্গানিকের খুশবু ব্র্যান্ডের ঘি নিম্নমানের হওয়ায় কোম্পানি দু’টির লাইসেন্স বাতিল করেছে প্রতিষ্ঠানটি।
এগুলো বাদে নাম প্রকাশ না করে আরও ৮টি প্রতিষ্ঠান বিএসটিআইয়ের কোনো লাইসেন্স ছাড়াই পণ্য বাজারজাত করছিল। নাম না থাকায় প্রতিষ্ঠানগুলোর বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা করা হয়েছে বলে জানিয়েছে বিএসটিআই।
বাজার থেকে ৪০৬টি পণ্যের নমুনা সংগ্রহ করে তার মান পরীক্ষা করে বিএসটিআই। প্রথমধাপে ৩১৩টি পণ্যের মান পরীক্ষার ফল প্রকাশ করে তারা। গত ১ মে সেখান থেকে ৫২টি ব্র্যান্ডের পণ্যকে নিম্নমানের বলে ঘোষণা করা হয়। অবশ্য কয়েকটি পণ্য মানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলে তাদের উপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয় বিএসটিআই। গতকাল দ্বিতীয় ধাপে বাকি ৯৩টি পণ্যের মান পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হল।
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ

সম্মানী না মিললে সভায় আগ্রহ নেই

সম্মানী না মিললে সভায় আগ্রহ নেই

১৯ অগাস্ট, ২০১৯ ০০:৫০



ফের বাড়লো স্বর্ণের দাম

ফের বাড়লো স্বর্ণের দাম

১৯ অগাস্ট, ২০১৯ ০০:৪৫










ব্রেকিং নিউজ