খুলনা | সোমবার | ১৭ জুন ২০১৯ | ৩ আষাঢ় ১৪২৬ |

Shomoyer Khobor

পে-অর্ডারের প্রায় সাড়ে তিন কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে মামলা

খুলনা কর অঞ্চলের সহকারী কমিশনার মেঝবাহ উদ্দিন বরখাস্ত : তদন্তে পিবিআই

সোহাগ দেওয়ান | প্রকাশিত ২৯ মে, ২০১৯ ০১:১০:০০

করদাতাদের দেয়া ৩ কোটি ৪৭ লাখ ৩৪ হাজার ৪১৯ টাকার পে-অর্ডার সরকারি কোষাগারে জমা না দিয়ে নিজেই আত্মসাত করেছেন খুলনার কর অঞ্চলের সহকারী কর কমিশনার মোঃ মেঝবাহ উদ্দিন আহমেদ! খুলনা, বাগেরহাট, কুষ্টিয়া ও মাগুরায় তিনি দায়িত্ব পালনকালে এ সকল ভয়াবহ অনিয়মের সাথে জড়িয়ে পড়েন। অবশেষে তার এ সকল অনিয়ম দুর্নীতি কর্তৃপক্ষের সামনে চলে আসে। তাকে সাময়িকভাবে বরখাস্তও করা হয়েছে। সরকারের নির্দেশনা মোতাবেক কর বিভাগ রাজস্ব আদালয়ে সাধারণ মানুষকে কর দিতে নানা ধরনের সুযোগ-সুবিধাসহ প্রচার প্রচারণা চালাচ্ছেন। অপরদিকে করদাতাদের টাকা সরকারি কোষাগারে না দিয়ে আত্মসাতের ঘটনা রীতিমতো সকলকে ভাবিয়ে তুলেছে। এধরণের অনিয়মের ঘটনা এই প্রথম বলে দাবি করছেন কর বিভাগসহ সংশ্লিষ্টরা।  
সরকারি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে খুলনার কর অঞ্চলের সহকারি কমিশনার মোঃ মেঝবাহ উদ্দিন আহমেদের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে সরকারি টাকা আত্মসাতের এ অভিযোগ তদন্তের জন্য পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) কে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে আদালত। খুলনা মহানগর হাকিম তরিকুল ইসলাম এ আদেশ দিয়েছেন। সোমবার মহানগর হাকিমের আদালত (খালিশপুর) অঞ্চলে মামলাটি দাখিল করেন খুলনা কর অঞ্চলের উপ-কর কমিশনার (সদর প্রশাসন) খোন্দকার তারিফ উদ্দিন আহমেদ। 
মামলার অভিযোগে বলা হয়, সহকারী কর কমিশনার মোঃ মেঝবাহ উদ্দিন আহমেদ খুলনা কর অঞ্চলের অধিনস্থ কর সার্কেল ১৪, বাগেরহাটে গত ২০১৭ সালের ৮ মে থেকে ২০১৮ সালের ৮ নভেম্বর পর্যন্ত করদাতাদের রাজস্ব হিসেবে দাখিলকৃত বেশ কিছু পে-অর্ডার, ডিডি, ক্রস চেক সরকারি কোষাগারের পরিচালিত হিসাবে চালানের মাধ্যমে জমা না দিয়ে বাগেরহাট সোনালী ব্যাংক শাখায় জমা দেন। পরবর্তীতে তিনি সেই একাউন্ট থেকে নিজের স্বাক্ষরের মাধ্যমে ২ কোটি ১০ লাখ ২৪ হাজার ৪২৩ টাকা উত্তোলন করে আত্মসাত করেন। মোট ৪০টি চেকের মাধ্যমে তিনি এ টাকা ব্যাংক থেকে উত্তোলন করেন। এছাড়াও মোংলা, কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা ও মাগুরায় দায়িত্বে থাকাকালীন সময় একই ভাবে বিভিন্ন ব্যাংক একাউন্টের মাধ্যমে ১ কোটি ৩৭ লাখ ১০ হাজার ৬ টাকা আত্মসাত করেছেন। এ সকল বিষয়ে কর্তৃপক্ষ অবগত হওয়ার পর প্রাথমিক তদন্তে তার এ সকল অনিয়মের সত্যতা পাওয়া যায়। পরে কর বিভাগের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে খুলনা কর বিভাগ। 
খুলনা কর অঞ্চলের কমিশনার প্রশান্ত কুমার রায় সময়ের খবরকে বলেন, এ ধরনের অনিয়ম এর আগে দেখা যায়নি। সহকারি কমিশনার মেঝবাহ উদ্দিন আহমেদের বিরুদ্ধে সরকারি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ প্রাথমিকভাবে প্রমাণিত হওয়ায় তার বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে। তাকে সাময়িকভাবে বরখাস্তও করা হয়েছে বলে জানান তিনি। 
 

বার পঠিত

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ