খুলনা | মঙ্গলবার | ২১ মে ২০১৯ | ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ |

Shomoyer Khobor

ঈদে ঢাকা-খুলনাসহ ৮ জোড়া স্পেশাল 

ঢাকা-রাজশাহী রুটে বনলতা ট্রেনের পর এবার চালু হচ্ছে ঢাকা-পঞ্চগড় এক্সপ্রেস 

নিজস্ব প্রতিবেদক  | প্রকাশিত ১৬ মে, ২০১৯ ০০:৪৩:০০

রাজশাহী-ঢাকা-রাজশাহী রুটে নতুন বিরতিহীন ‘বনলতা এক্সপ্রেস’ ট্রেনের পর এবার পঞ্চগড়-ঢাকা-পঞ্চগড় রুটে নতুন ট্রেন ‘পঞ্চগড় এক্সপ্রেস’ চালু হচ্ছে। বাংলাদেশের দ্বিতীয় দীর্ঘতম এই ট্রেনটি আগামী ২৫ মে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে উদ্বোধন করবেন। গতকাল বুধবার রাজধানীর রেলভবনে আসন্ন ঈদুল ফিতর উপলক্ষে রেলওয়ের প্রস্তুতি বিষয়ে সংবাদ সম্মেলন রেলমন্ত্রী মোঃ নূরুল ইসলাম সুজন এ তথ্য জানান। এর আগে রেল বিভাগ জানিয়েছিল, বায়ো-টয়লেট সম্বলিত কোচের মাধ্যমে ‘বনলতা এক্সপ্রেস’  ট্রেন চালুর মধ্য দিয়ে পরিবেশবান্ধব রেল ব্যবস্থায় বাংলাদেশ আরও এক ধাপ এগিয়ে গেছে। ‘পঞ্চগড় এক্সপ্রেস’ও একই সুবিধা-সম্বলিত হবে বলে জানিয়েছেন  রেলপথ মন্ত্রী। এদিকে ঈদ যাত্রায় খুলনা-ঢাকা রুটে একটি স্পেশালসহ ৮ জোড়া স্পেশাল ট্রেন থাকছে। 
মন্ত্রী বলেন, ‘আমরা ইতোমধ্যে ঢাকা থেকে রাজশাহী ও রাজশাহী থেকে ঢাকা একটি ননস্টপ ট্রেন উদ্বোধন করেছি। এ মাসেও ঈদের পূর্বে আরেকটি সুখবর আছে।  সেটা হলো, আরেকটি নতুন ট্রেন আমরা উদ্বোধন করতে যাচ্ছি।’ ট্রেনটির সময়সূচি প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, ‘এটি (পঞ্চগড় এক্সপ্রেস) দুপুর ১২টা ১৫ মিনিটে ওখান (পঞ্চগড়) থেকে ছাড়বে, ঢাকায় এসে পৌঁছাবে রাত ১০টা ৩৫ মিনিটে। আবার ঢাকা থেকে ছাড়বে রাত ১২টা ১০ মিনিটে। পঞ্চগড়ে পৌঁছাবে সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটে।’ 
নূরুল ইসলাম সুজন আরও বলেন, ‘এটা বিরতিহীন ট্রেন নয়, তবে বিরতিহীনের কাছাকাছি। এটি ঢাকা থেকে বিরতিহীনভাবে পার্বতীপুর পর্যন্ত যাবে। পার্বতীপুরের পর দিনাজপুর, দিনাজপুরের পর ঠাকুরগাঁও, এরপর পঞ্চগড়ে যাবে। ঢাকা থেকে পঞ্চগড়ের মধ্যে মাত্র তিনটি স্টপেজ থাকবে।’  
ঈদ উপলক্ষে ট্রেন যাত্রা বিষয়ে রেলমন্ত্রী বলেন, ঈদের সম্ভাব্য তারিখ ৫ জুন ধরা হয়েছে। সে অনুযায়ী সব প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। ঈদের প্রায় পাঁচদিন আগে ৩১ মে থেকে রেলওয়েতে ট্রেনের কোনও ডে-অফ থাকবে না। ফলে ৪৮টি বিশেষ ট্রিপ পরিচালিত হবে। এ জন্য আগামী ২২ মে থেকে ঈদের অগ্রিম টিকিট দেওয়া হবে। ২২ মে দেওয়া হবে ৩১ মের টিকিট, ২৩ মে দেওয়া হবে ১ জুনের টিকিট, ২৪ মে দেওয়া হবে ২ জুনের টিকিট, ২৫ মে দেওয়া হবে ৩ জুনের টিকিট এবং ২৬ মে দেওয়া হবে ৪ জুনের টিকিট। আর ফেরত যাত্রীদের জন্য ২৯ মে দেওয়া হবে ৭ জুনের টিকিট, একইভাবে ৩০ ও ৩১ মে এবং ১ ও ২ জুন দেওয়া হবে যথাক্রমে ৮, ৯, ১০ ও ১১ জুনের টিকিট। একজন যাত্রী একসঙ্গে সর্বোচ্চ ৪টি টিকিট কিনতে পারবেন। এ জন্য অবশ্যই জাতীয় পরিচয়পত্র লাগবে। স্পেশাল ট্রেনের কোনও সিট মোবাইল অ্যাপে পাওয়া যাবে না। প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত টিকেট বিক্রি চলবে। এবার প্রথমবারের মতো কমলাপুর রেল স্টেশন ছাড়াও চারটি স্থানে টিকিট বিক্রি করা হবে। কমলাপুর থেকে গোটা পশ্চিমাঞ্চল জুড়ে ট্রেনের টিকেট, বিমানবন্দর স্টেশন থেকে চট্টগ্রাম ও নোয়াখালীগামী আন্তঃনগর ট্রেনের টিকিট, তেজগাঁও থেকে ময়মনসিংহ ও জামালপুরগামী ট্রেনের টিকিট, বনানী থেকে নেত্রকোনাগামী মোহনগঞ্জ ও হাওড় এক্সপ্রেসের টিকিট ও ফুলবাড়িয়া (পুরাতন রেলওয়ে স্টেশন) থেকে সিলেট ও কিশোরগঞ্জগামী সব আন্তঃনগর ট্রেনের টিকেট বিক্রি করা হবে। 
এ সময় রেলমন্ত্রী জানান, বিভিন্ন রুটে ৮ জোড়া স্পেশাল ট্রেন চলবে। ঢাকা-দেওয়ানগঞ্জ-ঢাকা রুটে এক জোড়া, চট্টগ্রাম-চাঁদপুর-চট্টগ্রাম রুটে দুই জোড়া, মৈত্রী এক্সপ্রেস দিয়ে খুলনা-ঢাকা-খুলনা স্পেশাল। এছাড়া ঢাকা-ঈশ্বরদী-ঢাকা রুটে একটি, লালমনিরহাট-ঢাকা-লালমনিরহাট রুটে একটি, শোলাকিয়া স্পেশাল ১ ভৈরববাজার-কিশোরগঞ্জ-ভৈরববাজার রুটে ও শোলাকিয়া স্পেশাল-২ ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ-ময়মনসিংহ রুটে ঈদের দিন স্পেশাল ট্রেন হিসেবে চলবে। স্পেশাল ট্রেনের টিকিট অ্যাপসের মাধ্যমে কেনা যাবে না বলেও জানান রেলমন্ত্রী। 
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ










যাকাত গরিবের হক

যাকাত গরিবের হক

২১ মে, ২০১৯ ০০:৫২