খুলনা | বুধবার | ২৩ অক্টোবর ২০১৯ | ৮ কার্তিক ১৪২৬ |

Shomoyer Khobor

রমজানে ধ্বংস কার জন্য  

মুফতি রবিউল ইসলাম রাফে | প্রকাশিত ১৫ মে, ২০১৯ ০১:০১:০০

পবিত্র মাহে রমজানের রহমতের দশকের আজ ৯ম দিন। রমজান মাস আমাদের জন্য নিয়ে আসে মাগফিরাত বা পাপ মোচনের অপূর্ব সুযোগ। কবির ভাষায়, “সাগর-নদীর কূল-কিনারায় ফেনা ভেসে আসে, রমজানের এই বরকত মাসে পাপ চলে যায় ভেসে”। যে এই মাসে নিজের গোনাহ মাফ করাতে পারল না আল্লাহর রসুল (সাঃ) তাকে হতভাগা হিসেবে উল্লেখ করেছেন। বিশিষ্ট সাহাবী কায়াব বিন উজরা (রাঃ) হতে বর্ণিত আছে, একদিন হুজুর (সাঃ) এরশাদ করলেন, তোমরা মিম্বরের নিকটবর্তী হও। আমরা হাজির হলাম। অতঃপর হুজুর (সাঃ) যখন মিম্বরের প্রথম সিঁড়িতে পা মোবারক রাখলেন বললেন, আমীন। অর্থাৎ আল্লাহ তুমি কবুল কর।  আবার যখন দ্বিতীয় সিঁড়িতে পা রাখলেন বললেন, আমীন। পুনরায় তৃতীয় সিঁড়িতে উঠে বললেন, আমীন। খোৎবা শেষে যখন হুজুর (সাঃ) মিম্বর হতে অবতরণ করেন, আমরা জিজ্ঞাসা করলাম হুজুর!  আজ মিম্বরে উঠার সময় যা কিছু শুনলাম তা’ ইতিমধ্যে কখনও শুনি নাই। হুজুর (সাঃ) এরশাদ করলেন, এই মাত্র হযরত জীবরাঈল (আঃ) এসে বললেন, ধ্বংস হোক ঐ ব্যক্তি যে রমজান  পেল অথচ তার গোনাহ মাফ হলো না, আমি বললাম আমীন। অর্থাৎ তাই হোক। দ্বিতীয় সিঁড়িতে পা রাখার সময় জীবরাঈল (আঃ) বললেন, ধ্বংস হোক ঐ ব্যাক্তি যার সামনে আপনার নাম নেওয়া সত্ত্বেও আপনার প্রতি দরুদ পড়ল না। আমি বললাম আমীন। আবার যখন তৃতীয় সিঁড়িতে পা রাখলাম তখন জীবরাঈল (আঃ) বললেন, ধ্বংস হোক ঐ ব্যক্তি যে তার মাতা-পিতা অথবা উভয়ের একজনকে বার্ধক্যে পেল আর সে তাদের খেদমত দ্বারা নিজেকে  জান্নাতে পৌঁছাইতে পারল না। আমি বললাম আমীন। অর্থাৎ আল্লাহ তুমি কবুল কর (হাকিম)। এই হাদিসে তিনটি জিনিষের গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। রমজান মাসে গোনাহ মাফ করানো, নবী করীম (সাঃ) এর প্রতি দরূদ পেশ এবং মাতাপিতার খেদমত করা। পিতা-মাতার সাথে সদ্বব্যবহার করার জন্য আল্লাহ তায়ালা কুরআনে কারিমের বিভিন্ন আয়াতে জোর তাকিদ দিয়েছেন (সূরা নিসা: ৩৬, সূরা আনকাবুত: ৮, সূরা বনী ঈসরাইল: ২৩-২৪, সূরা লুকমান: ১৪)। দরূদ শরীফের গুরুত্ব সম্পর্কে মহান আল্লাহ তায়ালা এরশাদ করেন, নিশ্চয় আল্লাহ এবং তার ফেরেশতাগণ নবীর উপর দরূদ পাঠান। হে ঈমানদারগণ, তোমরাও তার প্রতি দরূদ বা সালাম পাঠাও (সূরা আহযাব: ৫৬)। এ ব্যাপারে হুজুর (সা.) এরশাদ করেন, যে আমার প্রতি একবার দরুদ পেশ করবে আল্লাহ তার উপরে  দশটি রহমত প্রেরণ করবেন (মুসলিম)। তাই আসুন, আমরা সবাই মিলে এই মহিমান্বিত মাসে এই তিনটি কাজ বেশী বেশী করি এবং মহান আল্লাহর মাগফিরাত হাসিল করি। 
(লেখক: আরবী সাহিত্যিক ও মুহাদ্দিস, জামি’য়া ইসলামিয়া মারকাযুল উলুম, বাগমারা, খুলনা)
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ




পবিত্র আখেরি চাহার শোম্বা ২৩ অক্টোবর

পবিত্র আখেরি চাহার শোম্বা ২৩ অক্টোবর

৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০

ব্যভিচার : কারণ ও তার শাস্তির বিধান

ব্যভিচার : কারণ ও তার শাস্তির বিধান

২৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০

গীবত বা পরনিন্দা ঘৃণ্যতম অপরাধ

গীবত বা পরনিন্দা ঘৃণ্যতম অপরাধ

২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:৩৮


মশা প্রসংগে মহাগ্রন্থ আল কুরআন

মশা প্রসংগে মহাগ্রন্থ আল কুরআন

১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০

আশুরার তাৎপর্য ও শিক্ষা

আশুরার তাৎপর্য ও শিক্ষা

০৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০১:০৫

পবিত্র আশুরা ১০ সেপ্টেম্বর

পবিত্র আশুরা ১০ সেপ্টেম্বর

০১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:৩১

আল্ কুরআন ও আধুনিক বিজ্ঞান

আল্ কুরআন ও আধুনিক বিজ্ঞান

৩০ অগাস্ট, ২০১৯ ০০:০০



ব্রেকিং নিউজ

প্রখ্যাত সুফিসাধক খানজাহান (রহঃ)

প্রখ্যাত সুফিসাধক খানজাহান (রহঃ)

২৩ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:৪১