খুলনা | বুধবার | ১৯ জুন ২০১৯ | ৬ আষাঢ় ১৪২৬ |

Shomoyer Khobor

জরুরি অবস্থা ঘোষণা : সংবিধান স্থগিত

সুদানের ক্ষমতাচ্যুৎ প্রেসিডেন্ট গ্রেফতার : নিয়ন্ত্রণে সেনাবাহিনী 

খবর প্রতিবেদন | প্রকাশিত ১২ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:৫৩:০০

প্রায় ৩০ বছর ক্ষমতায় থাকা সুদানের প্রেসিডেন্ট ওমর আল বশিরকে ক্ষমতাচ্যুৎ করা হয়েছে। দেশটির শাসনভার নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে সেনাবাহিনী। এরই মধ্যে বশিরকে গ্রেফতারও করেছে দেশটির সেনাবাহিনী। স্থগিত করেছে সংবিধান, জারি করেছে তিন মাসের জন্য জরুরি অবস্থা। সীমান্তে নজরদারি বাড়ানো হয়েছে।
বৃহস্পতিবার বিকেলে সুদানের প্রথম ভাইস প্রেসিডেন্ট, প্রতিরক্ষামন্ত্রী এবং সামরিক বাহিনীর শীর্ষ কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট জেনারেল আহমেদ আওয়াদ ইবনে ইউসুফ রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে প্রচারিত এক ভাষণে ক্ষমতা দখলের এই ঘোষণা দেন। তিনি ঘোষণা দেন, ক্ষমতা হস্তান্তর দেখভালের জন্য দুই বছরের জন্য একটি সামরিক পরিষদ গঠন করা হয়েছে। তিন মাস ধরে জারি থাকবে জরুরি অবস্থা এবং রাত ১০টা থেকে ভোর ৪টা পর্যন্ত থাকবে কারফিউ। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত সীমান্ত বন্ধ থাকবে, ২৪ ঘণ্টার জন্য বন্ধ থাকবে আকাশসীমা।
প্রেসিডেন্ট ওমর আল বশিরের পদত্যাগের দাবিতে হাজার হাজার মানুষ রাজধানী খার্তুমে বিক্ষোভ করে। কয়েক মাস ধরে বশিরের বিরুদ্ধে তীব্র আন্দোলন হচ্ছিল সুদানে। বশিরকে গ্রেফতারের কথা জানানো হয়। তবে কোথায় রাখা হয়েছে তা জানানো হয়নি।
খার্তুমে ক্ষমতাসীন দলের সহযোগী সংগঠন ইসলামিক মুভমেন্টের প্রধান কার্যালয় দুমড়ে-মুচড়ে দেয় সেনা সদস্যরা। অন্যান্য এলাকায়ও বশিরের দলের কার্যালয়ে হামলার খবর পাওয়া যায়।
অন্যদিকে সামরিক বাহিনীর ক্ষমতা দখলের সঙ্গে সঙ্গে গ্রেফতার করা হয় বশিরের অনুগত প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মদ তাহের আয়ালা, ক্ষমতাসীন দল ন্যাশনাল কংগ্রেস পার্টির প্রধান আহেমদ হারুন, সাবেক প্রতিরক্ষামন্ত্রী আবদেল রহিম মোহাম্মদ হুসেইন, সাবেক সরকার বিষয়ক মন্ত্রী আওয়াদ আল-জাজ, সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট বেরি হাসান সালেহ ও আলি উথমান তাহাকেও।
প্রতিরক্ষামন্ত্রী ইবনে ইউসুফ জানান, বশিরের শাসনামলে দেশের ব্যবস্থাপনা দুর্বল, দুর্নীতি ব্যাপক এবং ন্যায়বিচারের উপস্থিতি কমে যায়। 
রুটি ও জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর কারণে বশিরের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ শুরু হয়েছিল। বিক্ষোভকারীদের হটাতে নিরাপত্তা বাহিনীর বলপ্রয়োগের কারণে উল্টো এই বিক্ষোভ তার পতনের দাবিতে বৃহত্তর আন্দোলনে রূপ নেয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে কয়েকদিন ধরেই সামরিক বাহিনীর মধ্যে কানা ঘুষার খবর ছড়াচ্ছিল।
সুদানের একটি বার্তা সংস্থা জানিয়েছে, পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, দেশটির রাজনৈতিক বন্দিদের মুক্ত করে দেওয়া হচ্ছে।
প্রসঙ্গত, ১৯৮৯ সালে সেনাবাহিনীর ব্রিগেডিয়ার জেনারেল থাকাকালে বশির আল-ওমর ‘অভ্যুত্থান’ ঘটিয়ে তৎকালীন নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী সাদিক আল-মাহদীকে উৎখাত করেন। পরে নির্বাচনের মাধ্যমে সরকার গঠন করেন তিনি। কয়েক বছর ধরে তার বিরুদ্ধে ‘সামরিক অভ্যুত্থান’ চেষ্টা হয়েছিল। কিন্তু সেসব উতরে ৩০ বছর ধরে দারিদ্র্যপীড়িত দেশটি চালিয়ে আসছিলেন তিনি। রাষ্ট্রের অভ্যন্তরে বশিরের বিরুদ্ধে জনরোষ থাকলেও তিনি কট্টর আরব জাতীয়তাবাদীদের কাছে পরিচিত ছিলেন ইসরায়েল বিরোধী নেতা হিসেবে।
ওমর আল বশিরের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে (আইসিসি) গ্রেফতারী পরোয়ানা ছিল। তাঁকে সুদানের পশ্চিমাঞ্চলের দারফুর এলাকায় সংঘটিত যুদ্ধাপরাধ ও মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত করা হয়েছে।
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ










উড়িষ্যায় দেয়াল ধসে নিহত ৪

উড়িষ্যায় দেয়াল ধসে নিহত ৪

১০ জুন, ২০১৯ ০০:০০




ব্রেকিং নিউজ







কেসিসিতে আগুনে আতঙ্ক

কেসিসিতে আগুনে আতঙ্ক

১৯ জুন, ২০১৯ ০১:২৩