খুলনা | সোমবার | ২২ এপ্রিল ২০১৯ | ৯ বৈশাখ ১৪২৬ |

Shomoyer Khobor

উপজেলা নির্বাচনে অংশ না নিলেও চাঙ্গা তৃণমূল

সুবিধাবাদীদের দল ত্যাগে মনোবল বেড়েছে বিএনপি’র নেতা-কর্মীদের

আশরাফুল ইসলাম নূর | প্রকাশিত ০২ এপ্রিল, ২০১৯ ০১:৩০:০০

কাউন্সিলরদের দলত্যাগ ও উপজেলা নির্বাচনে অংশ না নেয়াতে উল্টো মনোবল বেড়েছে খুলনা বিএনপি’র নেতা-কর্মীদের। ২৬ মার্চ জাতীয় ও স্বাধীনতা দিবসের র‌্যালি, জেলা বিএনপি’র নির্বাহী কমিটির সভা ও সর্বশেষ প্রতিকী অনশন কর্মসূচিতে ঐক্যবদ্ধ উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো। এক যুগ স্রোতের বিপরীতে হামলা-মামলা সয়ে দলীয় কর্মসূচিতে হঠাৎ উপস্থিতি বৃদ্ধি-তারই প্রমাণ বলছেন নেতৃবৃন্দ।
দলীয় সূত্রমতে, গত ৩০ মার্চ জেলা আইনজীবী সমিতির মিলনায়তনে জেলা বিএনপি’র নির্বাহী কমিটির সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন দলটির সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম মঞ্জু। পরদিন ৩১ মার্চ চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা ও মুক্তির দাবিতে নগর বিএনপি’র প্রতিকী অনশন কর্মসূচিতে সভাপতি এড. শফিকুল আলম মনাসহ দলটির জেলা শাখার নেতা-কর্মীরা যোগ দেন। ক’দিন আগেও নগর ও জেলা ইউনিটের মধ্যে শীর্ষ নেতাদের মধ্যে দূরত্ব ছিল। কর্মসূচিতে স্বতঃস্ফূর্ত ঐক্যবদ্ধ এ অংশগ্রহণকে উৎসাহিত করছে তৃণমূল নেতা-কর্মীদের। গত ২৪ মার্চ শহিদ হাদিস পার্কে অনুষ্ঠিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে কেসিসি’র ১২ কাউন্সিলর ও ৮ জন বিএনপি নেতা আ’লীগে যোগ দেন। তবে একটুও বিচলিত নয় তৃণমূল নেতা-কর্মীরা। হামলার শিকার ও অহেতুক মামলার ঝামেলায় না জড়াতে নাম প্রকাশে আপত্তি জানিয়ে এ বিষয়ে মন্তব্য করেছেন সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের কয়েকজন নেতা-কর্মী।
একাধিক বিএনপি কর্মী বললেন, “ দুর্দিনে যারা দল ত্যাগ করেছে তাদের আদর্শ নেই। ওয়ার্ড পর্যায়ের নেতা-কর্মী, সমর্থকদের সাথে তাদের কোন সম্পর্ক নেই। বিএনপি’র মনোনয়নে নির্বাচিত হয়েছেন তবে বিএনপি নেতা-কর্মীদের আপন করে নিতে পারেননি। জনবিচ্ছিন্ন জনপ্রতিনিধিরাই দল ত্যাগ করে। জনসম্পৃক্তরা জনগণের মনের ভাষা বোঝে। সুবিধাবাদীদের দল ত্যাগে বিএনপি একটি পরিচ্ছন্ন সংগঠনে পরিণত হলো। নিশ্চয় আগামীতে জনগণ তাদের উচিত জবাব দিবেন বলে মন্তব্য একাধিক বিএনপি কর্মীর। কেডি ঘোষ রোডের দলীয় কার্যালয়ের সামনে দাঁড়িয়ে এ প্রতিবেদকের  নিকট এমনি মন্তব্য করেন তারা। ১৬ ও ২০নং ওয়ার্ড বিএনপি’র দু’জন কর্মী থানা মোড়ে চায়ের কাপে চুমুক দিতে দিতে বললেন, “ওরা আ’লীগে যোগ দেয়ায় ওয়ার্ড বিএনপি’র মিছিলে লোক বেড়েছে। আজকে (২৬ মার্চ) না ডাকতেই অনেকেই হাজির হয়েছি। যারা বহুদিন পার্টি অফিসের দিকেই আসতামই না।”
নগর বিএনপি’র সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু বলেন, “খুলনা বিএনপি এখন সম্পূর্ণ আবর্জনামুক্ত ও ঐক্যবদ্ধ। সুবিধাবাদীদের দল ত্যাগে মাঠপর্যায়ের ত্যাগী-পরীক্ষিত কর্মীদের মনোবল বেড়েছে। সম্প্রতি কর্মসূচিতে নেতা-কর্মীর উপস্থিতি বেড়েছে। আগামীতে দলীয় নেতা-কর্মীদের পাশাপাশি পেশাজীবী ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের সরব উপস্থিতি খুলনা বিএনপিতে চমক সৃষ্টি করবে।”
জেলা বিএনপি’র সভাপতি এড. শফিকুল আলম মনা বলেন, “চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগারে রেখে এই ফ্যাসিস্ট সরকারের অধীনে আরও কোন নির্বাচনে যাবে না বিএনপি। এ সিদ্ধান্ত ইতিবাচক হিসেবেই নিয়েছে তৃণমূল নেতা-কর্মী। দলের সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে উপজেলা নির্বাচনে অংশ নেয়ায় কয়েকজনকে বহিষ্কার করেছে দল। উপজেলা নির্বাচনে অংশ না নিলেও তৃণমূল বিএনপি কর্মীরা চাঙ্গা রয়েছে; গত নির্বাহী কমিটির সভার আলোচনায় এসব বিষয়ে উঠে এসেছে। আগামীতে কঠোর কর্মসূচি সফলে খুলনা বিএনপি নেতা-কর্মীরা ঐক্যবদ্ধভাবে প্রস্তুত।”
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ






পরিত্যক্ত ২০ পিলার ‘গলার কাঁটা’

পরিত্যক্ত ২০ পিলার ‘গলার কাঁটা’

০৬ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯ ০১:২০








ব্রেকিং নিউজ








পবিত্র শবেবরাত আজ রাতে

পবিত্র শবেবরাত আজ রাতে

২১ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:৫৭