খুলনা | সোমবার | ২২ এপ্রিল ২০১৯ | ৯ বৈশাখ ১৪২৬ |

Shomoyer Khobor

ভাই কাদেরকে যে কারণে  সরালেন এরশাদ

খবর প্রতিবেদন | প্রকাশিত ২৪ মার্চ, ২০১৯ ০০:১৭:০০

গত ২০ মার্চ ছিল জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি এইচ এম এরশাদের ৯০তম জন্মদিন। ওই দিন এবং এর পরদিন ২১ মার্চ এরশাদের সঙ্গে দলের অনেক বিষয় নিয়েই আলোচনা হয়েছে জাতীয় পার্টির কো চেয়ারম্যান ও সংসদের বিরোধী দলীয় উপনেতা জি এম কাদেরের সঙ্গে, যিনি এরশাদের ছোট ভাইও। সেদিন ভাই কাদেরকে প্রশংসায় ভাসিয়েছেন তিনি।
বিশেষ করে ২১ মার্চ এরশাদের বারিধারার বাসায় ছোট ভাই জি এম কাদের সঙ্গে অনেক কথা বলেন। সেখানে উপস্থিত জাতীয় পার্টির একজন নেতা নাম না প্রকাশের শর্তে বলেন, ‘ওই দিন স্যার (এরশাদ) জিএম কাদেরের প্রশংসা করেন এবং দোয়া করেন। স্যার বলেন, তুমি (কাদের) খুব ভালো করছ। ভালো ভাবে দল চালাচ্ছ। দোয়া করি।’
এর ঠিক একদিনের মাথায় অর্থাৎ ২২ মার্চ জি এম কাদেরকে দল পরিচালনায় ব্যর্থ উল্লেখ করে কো-চেয়ারম্যান পদ থেকে অপসারণ করেন এইচ এম এরশাদ। শুধু তাই না গতকাল শনিবার জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় উপনেতার পদ থেকেও জিএম কাদেরকে সরিয়ে দিয়ে সেই পদে সাবেক বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদকে নিয়োগ করেছেন এরশাদ। এইচ এম এরশাদ নিজেই সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা। ভাই ও দলীয় প্রধান এইচ এম এরশাদের এমন সিদ্ধান্তে অবাক হয়েছেন জি এম কাদের। তিনি বলেছেন, পুরো বিষয়টা অদ্ভুত লেগেছে।
২০১৪ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভাই এরশাদের নির্দেশে অংশ নেননি জি এম কাদের। অথচ ওই নির্বাচনে দলের অনেক নেতাই এরশাদের নির্দেশ মানেননি। ভাইয়ের প্রতি জিএম কাদেরের আনুগত্য নিয়ে দলটির বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের মধ্যে কোনো সংশয় নেই। তাহলে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এরশাদ কেন হঠাৎ করে এই সিদ্ধান্ত নিলেন, তা নিয়ে চলছে নানা আলোচনা।
জাতীয় পার্টিতে জিএম কাদেরের পক্ষে যেমন নেতারা আছেন তেমনি বিরোধী পক্ষও রয়েছে। ফলে এ নিয়ে দুই ধরনের বক্তব্য পাওয়া গেছে। জিএম কাদেরকে যারা পছন্দ করেন তারা এইচ এম এরশাদের এই হঠাৎ সিদ্ধান্তের পেছনে দু’টি কারণ দেখছেন। এক. জিএম কাদেরের কারণে দলের দলের প্রভাবশালী নেতারা দলের ওপর নিজেদের আধিপত্য বিস্তার করতে পারছেন না। দুই. ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের একটি অংশও জাতীয় পার্টিকে তাদের ইচ্ছেমতো ব্যবহার করতে পারছেন না। জিএম কাদের পুরোপুরি সরকারের ‘মুঠোর’ লোক নন বলেই তাদের মত। মূলত এই দু’টি কারণে এইচ এম এরশাদকে ‘ভুল’ বুঝিয়ে বা ‘চাপে’ ফেলে জিএম কাদেরকে দলের দায়িত্বপূর্ণ অবস্থান থেকে সরিয়ে দিয়েছেন।
এই পক্ষটি এর পেছনে জাতীয় পার্টির ৫ জন নেতার হাত আছে বলে মনে করছেন। এদের মধ্যে চারজনই আওয়ামী লীগের বা ক্ষমতাসীনদের পছন্দের লোক বলে দলে পরিচিত। একজন এরশাদের ঘনিষ্ঠ, যাকে সরকারপন্থীদের অনেকেই পছন্দ করেন না। 
এরশাদের বনানী কার্যালয়ে বসেন এমন একজন গুরুত্বপূর্ণ নেতা নাম না প্রকাশের শর্তে বলেন, জিএম কাদেরের সঙ্গে আওয়ামী লীগের একটি অংশের সম্পর্ক অনেক দিন ধরেই ভালো যাচ্ছিল না। ২০১৪ সালের নির্বাচন বর্জন করা এবং পরবর্তীতে ওই সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপের ব্যাপারে সমালোচনা করাটা আওয়ামী লীগের অনেক নেতাই ভালো ভাবে নেননি। ওই সময় থেকে দূরত্ব শুরু। এটা আর কখনো ঠিক হয়নি।
অপর পক্ষটি অবশ্য বলছেন, এরশাদের সঙ্গে জিএম কাদেরের মনোমালিন্যই এই সিদ্ধান্তের পেছনের কারণ। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে জিএম কাদের বলেন, দলের সবাই তো বলছে আমি দল ভালো পরিচালনা করছিলাম। তাহলে কেন এই সিদ্ধান্ত তা বলতে পারব না। তিনি বলেন, দলের মধ্যে ৪/৫ জন আছেন যারা আমি থাকি তা চাননি। এঁরা জ্যেষ্ঠ সদস্য। তারাই এইচ এম এরশাদকে ভুল বুঝিয়ে এমনটা করেছেন।
আপনার ব্যাপারে এইচ এম এরশাদের কোনো আপত্তি বা অসন্তোষ ছিল না জানতে চাইলে জিএম কাদের বলেন, না, তিনি আমাকে পছন্দ করেন। আমি যেভাবে দল চালাচ্ছি সেটাকে সমর্থন করেন। কাদের বলেন, যেদিন আমাকে অপসারণ করা হলো (২২ মার্চ) তার আগের দিন (২১ মার্চ) তিনি আমাকে দোয়া করেছেন। বলেছেন, তুমি খুব ভালো দল চালাচ্ছ। যেভাবে এগোচ্ছে সেভাবে এগিয়ে যাও।
অবশ্য এরশাদের ঘনিষ্ঠ এক নেতা বলেন, দলীয় চেয়ারম্যান দলের ভালোর জন্যই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তিনি বলেন, জিএম কাদের হয়তো আবেগের বশে দলের কোনো কোনো নেতাকে দায়ী করছেন। কিন্তু এটা একেবারেই ঠিক না। দলের চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ যে সিদ্ধান্ত দেন সেটাই সবাই মেনে নেন। সূত্র : প্রথম আলো অনলাইন।
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ






পরিত্যক্ত ২০ পিলার ‘গলার কাঁটা’

পরিত্যক্ত ২০ পিলার ‘গলার কাঁটা’

০৬ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯ ০১:২০








ব্রেকিং নিউজ








পবিত্র শবেবরাত আজ রাতে

পবিত্র শবেবরাত আজ রাতে

২১ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:৫৭