খুলনা | বুধবার | ১৯ জুন ২০১৯ | ৬ আষাঢ় ১৪২৬ |

শিরোনাম :

Shomoyer Khobor

স্থানীয়দের বিরোধের কারণে বিলম্বিত সীমানা প্রাচীর নির্মাণ 

অবশেষে চলতি সেশনেই চালু হতে যাচ্ছে খুলনা নার্সিং কলেজের কার্যক্রম

বশির হোসেন | প্রকাশিত ১১ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯ ০১:৩০:০০

প্রতিষ্ঠার ১১ বছর পর চলতি সেশনে চালু হচ্ছে বহু প্রতীক্ষিত খুলনা নার্সিং কলেজের কার্যক্রম। আপাতত সীমানা প্রাচীর নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হলেই শিক্ষা কার্যক্রম চালু করা হবে বলে জানিয়েছেন অধ্যক্ষ খালেদা আক্তার। তবে স্থানীয় কয়েকটি পরিবারের বাধার কারণে সীমানা প্রাচীর নির্মাণে বিলম্ব হচ্ছে বলে জানা গেছে। চলতি মাসেই সীমানা প্রাচীরে দৃশ্যমান অগ্রগতি ও দুই মাসের মধ্যে কাজ সম্পন্ন হয়ে যাবে বলে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান সূত্রে জানা গেছে।
সংশ্লি¬ষ্ট সূত্রে জানা যায়, নার্সিং পেশায় উচ্চ শিক্ষার লক্ষ্য নিয়ে ২০০৭ সালের জানুয়ারি মাসে ঢাকা, চট্টগ্রাম ও বগুড়ার সাথে খুলনায়ও প্রতিষ্ঠা হয় নার্সিং কলেজ। বয়রার কলাবাগান এলাকা খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সামনে ১০ একর জমির উপর ১৬ কোটি ৫৬ লক্ষ টাকা ব্যয়ে প্রতিষ্ঠিত এ কলেজটির নির্মাণ কাজ থেমে যায় ২০০৯ সালে। সরকারের সাথে নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠানের বনিবনা না হওয়ায় দু’বছরের মাথায় কাজ বন্ধ করে দেয় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মুন কনস্ট্রাকশন। তখন একটি একাডেমিক ভবন, একটি গেস্ট হাউজ, দুইটি হোস্টেল, ও তিনটি স্টাফ কোয়ার্টার নির্মাণের নির্মাণ কাজের অধিকাংশ স¤পন্ন করা হয়। এরপর পার হয়েছে প্রায় ১০ বছর। কলেজ পরিচালনার জন্য অধ্যক্ষসহ বিভিন্ন পদে জনবল পদায়ন করা হলেও এর অনেকে বর্তমানে অন্য প্রতিষ্ঠানে সংযুক্ত হয়ে দায়িত্ব পালন করছেন। প্রয়োজনীয় বেশির ভাগ ফার্নিচারই চলে এসেছে। তবে সীমানা প্রাচীর নির্মাণে বিপত্তির কারণে গত সেশনে কলেজের কার্যক্রম শুরু করা সম্ভব হয়নি। 
গতকাল রবিবার সরেজমিন পরিদর্শনে গিয়ে দেখা যায় কলেজের প্রতিবেশী যে সকল বাসিন্দারা সীমানা প্রাচীর না থাকায় সেখান দিয়ে চলাচল করতো মূলতঃ তারাই ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে সীমানা প্রাচীর করতে বাধা দিচ্ছে। এ ব্যাপারে কলেজ কর্তৃপক্ষ একাধিকবার স্থানীয়দের সাথে মীমাংসার চেষ্টা করেছেন। কলেজ কর্তৃপক্ষ বলছে শিক্ষা কার্যক্রম চালুর জন্য প্রায় শতভাগ কাজ শেষ। সীমানা প্রাচীরের নির্মাণের কাজ চলছে। দু’এক মাসের মধ্যে প্রচীরের নির্মাণ কাজ শেষ হলেই চলতি সেশনেই শিক্ষা কার্যক্রম চালু করতে আশাবাদী তারা। 
খুলনা নার্সিং কলেজের অধ্যক্ষ খালেদা আখতার সময়ের খবরকে বলেন সীমানা প্রাচীরের নির্মাণ কাজ শেষ হলেই চলতি সেশনেই আমরা শিক্ষার্থী ভর্তির বিজ্ঞপ্তি দেবো। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান সীমানা প্রাচীর নির্মাণের কাজ করছে। স্থানীয় কয়েকটি পরিবারের সাথে সামান্য সমস্যা আছে তা শিগগিরই সমাধান হয়ে যাবে।
স্বাধীনতা নার্সেস পরিষদ (স্বানাপ) সংগঠনের খুলনা বিভাগীয় সভানেত্রী শীলা রানি দাস, খুলনায় নার্সিং কলেজটি চালু না হওয়ায় এ অঞ্চলের কর্মরত নার্সদের ঢাকা, চট্টগ্রাম, বগুড়ায় গিয়ে বিএসসি নার্সিং কোর্স করতে হচ্ছে। শিগগিরই নার্সিং কলেজের সকল জটিলতা দূর করে তা চালুর দাবি জানান তিনি।
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ