খুলনা | বুধবার | ২৭ মার্চ ২০১৯ | ১৩ চৈত্র ১৪২৫ |

Shomoyer Khobor

উপজেলা নির্বাচনে সাতক্ষীরার সাত উপজেলার ২১ আ’লীগ প্রার্থীর নাম পাঠানো হয়েছে কেন্দ্রে

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি | প্রকাশিত ১১ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯ ০০:১০:০০

উপজেলা নির্বাচনে সাতক্ষীরার সাত উপজেলার ২১ আ’লীগ প্রার্থীর নাম পাঠানো হয়েছে কেন্দ্রে

আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নের লক্ষে সাতক্ষীরার সাত উপজেলা থেকে ২১ জন প্রার্থীর নাম কেন্দ্রে পাঠিয়েছে জেলা আওয়ামী লীগ। এদের মধ্যে কারা পাচ্ছেন আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন তা নিয়ে সর্বত্র চলছে জল্পনা-কল্পনা। কেন্দ্রের সিদ্ধান্তের দিকে চেয়ে আছেন আওয়ামী লীগের তৃণমূল নেতা-কর্মীরা। 
আওয়ামী লীগের দলীয় সূত্র জানায়, চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়নের লক্ষে সাতক্ষীরা সদর উপজেলা থেকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এস এম শওকত হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান বাবু ও বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ গোলাম মোর্শেদের নাম কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে। 
তালা উপজেলা থেকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ঘোষ সনৎ কুমার, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ নুরুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সম্পাদক সৈয়দ ফিরোজ কামাল শুভ্রর নাম কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে। 
কলারোয়া উপজেলা থেকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যন ফিরোজ আহম্মেদ স্বপন, উপজেলা আওয়া লীগের সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম লাল্টু ও জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা সাজেদুর রহমান খান চৌধুরী মজনুর নাম পাঠানো হয়েছে। 
দেবহাটা উপজেলা থেকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জমান মনি, উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আব্দুল গণি এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি এড. গোলাম মোস্তফার নাম কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে।
কালিগঞ্জ থেকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাঈদ মেহেদী, প্রয়াত উপজেলা চেয়ারম্যান শেখ ওয়াহেদুজ্জামানের ছেলে শেখ মেহেদী হাসান সুমন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক এনামুল হোসেন ছোট ও জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য এড. মোজাহার হোসেন কান্টুর নাম কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে। 
শ্যামনগর থেকে উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক এড. জহুরুল হায়দার বাবু, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউল হক দোলন ও জেলা আওয়ামী লীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক জি এম শফিউল আজম লেলিনের নাম পাঠানো হয়েছে। 
আশাশুনি থেকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান এবিএম মোস্তাকিম এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এড. শহিদুল ইসলাম পিন্টুর নাম কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে।
দলীয় সূত্র আরো জানায়, গত ২৪ জানুয়ারি দেবহাটা উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় ১৪৮ জন কাউন্সিলরের ভোটে চেয়ারম্যান পদের প্রার্থী হিসেবে সর্বোচ্চ ৬৮ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন মনিরুজ্জামান মনি। তার নিকটতম প্রার্থী আব্দুল গণি পান ৩০ ভোট। এছাড়া চেয়ারম্যান পদে গোলাম মোস্তফা পান ২৮ ভোট। এ উপজেলা থেকে জেলা আওয়মী লীগ তাদের তিনজনের নাম কেন্দ্রে পাঠায়। 
গত ২৭ জানুয়ারি তালা উপজেলা আওয়ামী লীগের বিশেষ  বর্ধিত সভায় জেলা আ’লীগের নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে সর্বসম্মতিক্রমে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ঘোষ সনৎ কুমার, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ নুরুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সম্পাদক সৈয়দ ফিরোজ কামাল শুভ্রর নাম কেন্দ্রে পাঠানোর সিদ্ধান্ত হয়।
কলারোয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ৩০ জানুয়ারি পৃথক বর্ধিত সভা করে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান ফিরোজ আহম্মেদ স্বপন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম লাল্টুর নাম জেলায় পাঠায়। পরে জেলা আওয়ামী লীগ বিচার বিশ্লেষণ করে জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা সাজেদুর রহমান খান চৌধুরী মজনুর নাম যুক্ত করে কেন্দ্রে পাঠায়। 
সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ১৪টি ইউনিয়ন ও পৌরসভার ৩৯৫ জন কাউন্সিলরের অংশগ্রহণে ৩ ফেব্র“য়ারি জেলা শিল্পকলা একাডেমী মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত বিশেষ কাউন্সিলে কাউন্সিলরদের ভোটে এস এম শওকত হোসেন ১৬৪ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক ও বর্তমান সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান বাবু ১৪৪ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় এবং বর্তমান উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান গোলাম মোর্শেদ ৬২ ভোট পেয়ে তৃতীয় হন। তাদের তিনজনের নামই কেন্দ্রে পাঠায় জেলা আওয়ামী লীগ।
আর ৪ ফেব্র“য়ারি কালিগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভার ২৪১ জন কাউন্সিলরের মধ্যে ২৩৯ জন ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। এর মধ্যে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাঈদ মেহেদী ৭২ ভোট ও কুশুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়র শেখ মেহেদী হাসান সুমন একই সংখ্যক ভোট পেয়ে যৌথভাবে প্রথম হন। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৬২ ভোট পান উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও তারালী ইউপি চেয়ারম্যান এনামুল হোসেন ছোট। পরে নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে সমঝোতার ভিত্তিতে জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য এড. শেখ মোজাহার হোসেন কান্টুর নাম তালিকাভুক্ত করে চার জনের নামের তালিকা কেন্দ্রে পাঠান। 
অপরদিকে, ৫ ফেব্র“য়ারি অনুষ্ঠিত শ্যামনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় ২৩৩ জন কাউন্সিলরের ভোটে জহুরুল হায়দার বাবু ১১৪ ভোট পেয়ে প্রথম, আতাউল হক দোলন ৭৮ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় এবং শফিউল আযম লেনিন ২০ ভোট পেয়ে তৃতীয় হন। তাদের সবার নাম কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে। 
অপরদিকে আশাশুনিতে উপজেলা আওয়ামী লীগের দু’গ্র“পের পৃথক বর্ধিত সভা থেকে মনোনয়ন প্রার্থী হিসেবে এবিএম মোস্তাকিম ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এড. শহিদুল ইসলাম পিন্টুর নাম জেলায় পাঠানো হলে জেলা আওয়ামী লীগ ঐ দুই প্রার্থীর নাম কেন্দ্রে পাঠায়।
 
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ







একাত্তরের স্মৃতির রোডম্যাপ

একাত্তরের স্মৃতির রোডম্যাপ

২৬ মার্চ, ২০১৯ ০১:৪৩


স্বাধীনতা ও আমাদের প্রত্যাশা

স্বাধীনতা ও আমাদের প্রত্যাশা

২৬ মার্চ, ২০১৯ ০১:৪২