খুলনা | সোমবার | ১৯ অগাস্ট ২০১৯ | ৪ ভাদ্র ১৪২৬ |

শিরোনাম :
মোংলায় সাংগঠনিক তদন্তে এসে অভিযুক্তের সাথে ভ্রমণ ও ভুরিভোজ কেন্দ্রীয় বিএনপি নেতারডেঙ্গু আক্রান্ত ৫৩ হাজার, চিকিৎসা শেষে ফিরেছে ৪৫ হাজারবেসরকারি বিশ্ববিদ্যায়ের শিক্ষার্থী শিঞ্জন একদিনের রিমান্ডে অবরুদ্ধ কাশ্মীরে বাড়ছে নিরাপত্তা বাহিনীর নির্যাতন, চলছে বাছবিচারহীন গ্রেফতারখুলনায় প্রাধিকারপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে গাড়ি ও ড্রাইভারের সুবিধা গ্রহণে অনিয়মের অভিযোগ!ফের নগরীর বেসরকারি বিশ্বদ্যিালয়ের বিবিএ’র ছাত্রীকে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণের অভিযোগঈদযাত্রায় সড়কে গেছে ২২৪ প্রাণস্ত্রী পরিচয়ে কুয়াকাটাসহ নগরীর বিভিন্ন আবাসিক হোটেলে ওই ছাত্রীকে রেখেছিলো ‘শিঞ্জন রায়’

Shomoyer Khobor

পুরুষদের জন্য টাখনু গিরার নীচে কাপড় পরিধান ও কোরআনের নির্দেশ

মুহাম্মদ মাহফুজুর রহমান আসরাফি | প্রকাশিত ০৭ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯ ০০:১০:০০

একটি মেশিন আবিষ্কার করে যে কোম্পানি, তার যন্ত্র অংশ সম্পর্কে জানে বেশী ঐ কোম্পানি। যদি কখনো কোন মেশিন বিকল হয় তখন সংস্কারের জন্য সবথেকে ভালো উপায় হয়, যে কোম্পানি এই মেশিনটি আবিষ্কার করেছে তাদের দ্বারা। যেহেতু তারাই এ সম্পর্কে বেশি ধারনা রাখে। মানুষ সৃষ্টি করেছেন, মহান আল্লাহ তায়ালা। এই মানুষ সুষ্ঠু সুন্দরভাবে, কিভাবে এই দুনিয়াতে বসবাস করতে পারে তা আল্লাহই ভাল জানে। মহান আল্লাহ্ পুরুষদের শারীরিক কল্যাণের জন্য টাখনুর নীচে কাপড় পরিধান করা হারাম ঘোষণা করেছেন। কিন্তু মানুষ টাখনুর নীচে কাপড় পরিধান করা ছোট অপরাধ মনে করে। অনেকের কাপড় এত লম্বা যে, তা মাটি স্পর্শ করে। কেউবা আবার পরিধেয় বস্ত্র দ্বারা পিছণ থেকে মাটি সমান করতে করতে যায়। টাখনুর নীচে এভাবে কাপড় ঝুরিয়ে পড়া হারাম।
এ প্রসঙ্গে মহান আল্লাহ তায়ালা বলেন, “উদ্ধতভাবে পৃথিবীতে বিচরণ করো না, কারণ আল্লাহ কোন উদ্ধত অহংকারীকে ভালোবাসেনা।” নবী করিম (সাঃ) বলেছেন, “যে ব্যক্তি পায়ের টাখনু গিরার নীচ পর্যন্ত ঝুলিয়ে লুঙ্গি পরবে সে জাহান্নামে যাবে” (বুখারী)। অন্য স্থানে নবী করিম (সাঃ) আরো বলেন, “আল্লাহ তায়ালা ঐ ব্যক্তির দিকে দৃষ্টি দেবেন না যে, অহংকার ও গৌরব করে তার লুঙ্গি ঝুলিয়ে পরিধান করে (বুখারী ও মুসলিম)। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “টাখনুর নীচে কাপড়ের যে অংশটুকু থাকবে তাহা জাহান্নামে যাবে” (নাসাই ও আহমাদ)। এই হাদিসে অহংকার ও নিরহাংকারের মধ্যে কোন পার্থক্য করা হয়নি।
বেশী শাস্তি এ জন্য হবে যে, সে এক সঙ্গে দু’টি হারাম কাজ করেছে,
প্রথমত ঃ টাখনুর নীচে কাপড় পড়া, দ্বিতীয়ত ঃ অহংকার প্রদর্শন। পরিমিত পরিমাণ থেকে নীচে ঝুলিয়ে যেকোন বস্ত্র পরিধান করাই ‘ইসবালের আওতাভূক্ত এবং তা হারাম।’ “ইবনু ওমর (রাঃ) বর্ণিত হাদীসে রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এরশাদ করেন, “লুঙ্গি, জামা ও পাগরীতে ইসরাল (ঝুলিয়ে পরা) রয়েছে, এগুলি থেকে যেকোন একটিকে কোন ব্যক্তি অহংকারবশে টেনে ছেচড়ে নিয়ে বেড়ালে ক্বিয়ামত দিবসে আল্লাহ তার প্রতি সদয় দৃষ্টি দিবেন না (সূত্রঃ আবু দাউদ, নাসাই, মিশকাত-৪৩৩২)। নবী করিম (সাঃ) আরও বলেছেন, “তিন শ্রেণীর লোকের সাথে আল্লাহ ক্বিয়ামতের দিন কথা বলবেনা এবং তাদের প্রতি দৃষ্টিপাত করবেনা এবং তাদের জন্য কঠিন আযাবের ব্যবস্থা করে রেখেছেন, এরা হলো (ক) যারা লুঙ্গি বা জামা-কাপড় টাখনু গিরার নীচে ঝুলিয়ে পড়ে, (খ) যারা দান বা উপকার করে খোঁটা দেয়, (গ) এবং যারা মিথ্যা কসম খেয়ে পণ্য বিক্রয় করে। হাদিসে আরও আছে, “একবার এক ব্যক্তি অহংকারের সাথে দামী কাপড়-চোপড় পরে এবং চুল আঁচড়িয়ে রাস্তায় বের হলো এবং দম্ভভরে চলতে শুরু করলো, হঠাৎ যমীন তাকে তলিয়ে নিতে থাকলো, ক্বিয়ামত পর্যন্ত সে তলাতে থাকবে।” নবী করিম (সাঃ) আরও বলেন, “মুমিনের জন্য লুঙ্গি পরিধানের নির্ধারিত পন্থা হলো পায়ের নলার অর্ধেক পর্যন্ত পরিধান করা। তবে হাটু হতে পায়ের টাখনু গিরা পর্যন্ত সীমার মধ্যে যে কোন দৈর্ঘ্য পড়া যেতে পারে। এতে কোন প্রকার ক্ষতি বা গুনাহ নেই। কিন্তু টাখনুর নীচে গেলে তা জাহান্নামে যাবে। এ নির্দেশ পায়জামা, লুঙ্গি, পরিধানের যেকোন কাপড়, জুব্বা এবং জামা সম্পর্কে সমানভাবে প্রযোজ্য। অন্য এক হাদিসে উল্লেখ করা হয়েছে, হযরত আবু হুরায়রা (রাঃ) বলেন, এক বার এক ব্যক্তি টাখনু গিরা পর্যন্ত লুঙ্গি ঝুলিয়ে পরে নামাজ পড়ছিল, রাসূলুল্লাহ (সাঃ) তাকে বললেন, “তুমি গিয়ে ওজু করে এসো। তারপর সে ওজু করে আসলে তিনি আবারও বলেলেন, তুমি গিয়ে ওজু করে এসো। তখন এক ব্যক্তি বললো, ইয়া রাসূলুল্লাহ্! আপনি তাকে বারবার ওজু করে আসার জন্য কেন বলছেন ? তারপর লোকটি চুপ করলে নবী করিম (সাঃ) বললেন, সে টাখনু গিরার নীচে পর্যন্ত লুঙ্গি পরে নামাজ পড়ছিল, যে ব্যক্তি টাখনু গিরার নীচে কাপড় পরে নামাজ পড়ে আল্লাহ তার নামায কবুল করেন না।
পরিশেষে বলতে চাই উপরোক্ত আলোচনা ও বিষয় বিশ্লেষণের মাধ্যমে বলা যায়, পুরুষদের জন্য টাকনু গীরার নীচে কাপড় পরিধান করা মারাত্মক ক্ষতিকারক, যার প্রভাব ব্যক্তি ও সমাজের উপরে বিস্তার লাভ করে। তাই মহান আল্লাহ্ বিধি-বিধান অনুযায়ী মুসলিম ও ইসলামী সংস্কৃতি লালন করা উচিত।

লেখক : প্রভাষক, ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগ, মাতৃভাষা ডিগ্রী কলেজ। শরণখোলা ও খতিব মল্লিকের বেড কেন্দ্রীয় ঈদগাহ্ ময়দান, রামপাল, বাগেরহাট।


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ



পবিত্র হজ্ব আজ

পবিত্র হজ্ব আজ

১০ অগাস্ট, ২০১৯ ০০:৫১


মিনায় হজযাত্রীরা

মিনায় হজযাত্রীরা

০৯ অগাস্ট, ২০১৯ ০০:৫৪


পবিত্র ঈদুল আযহা ১২ আগস্ট

পবিত্র ঈদুল আযহা ১২ আগস্ট

০৩ অগাস্ট, ২০১৯ ০১:০৭


১১ আগস্ট সৌদি আরবে  ঈদুল আযহা

১১ আগস্ট সৌদি আরবে  ঈদুল আযহা

৩০ জুলাই, ২০১৯ ০১:১৯





ব্রেকিং নিউজ