খুলনা | বৃহস্পতিবার | ২৩ মে ২০১৯ | ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ |

Shomoyer Khobor

দেশের সমুদ্র সুরক্ষায় কোস্ট গার্ড বাহিনীর সক্ষমতা বাড়ছে

মাহমুদ হাসান, মোংলা   | প্রকাশিত ২৬ জানুয়ারী, ২০১৯ ০০:৫৬:০০


দেশের সমুদ্র সীমার তলদেশে যে বিপুল সম্পদ রয়েছে তা সুরক্ষায় বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড বাহিনীর সক্ষমতা বেড়েই চলছে। এ বাহিনীর সক্রিয় উপস্থিতি দেশের উপকূলীয় এলাকার জনগণের সামাজিক নিরাপত্তায় বিশেষ ভূমিকা রাখছে। বঙ্গোপসাগর বিধৌত নদী-মাতৃক বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক ব্যবস্থার উন্নয়ন বিভিন্ন নদ-নদী এবং বিশাল সমুদ্রের নিজস্ব এলাকা ব্যবহারের মধ্যে নিহিত। স্বাধীনতা উত্তর বাংলাদেশে যথোপোযুক্ত সামুদ্রিক আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর অনুপস্থিতিতে বাংলাদেশ নৌ-বাহিনী তার নিজ দায়িত্বের অতিরিক্ত হিসাবে কোস্ট গার্ড বাহিনীর ভূমিকা পালন করে আসছিল। বেসামরিক প্রশাসনের নিয়ন্ত্রণাধীন আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্ব বাংলাদেশ নৌ-বাহিনীর আওতাভূক্ত না হওয়ায় উপকূলীয় এলাকার জানমালের নিরাপত্তাসহ সমুদ্র সম্পদের যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিতকল্পে একটি পৃথক সামুদ্রিক আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী গঠনের প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়। যার ফলশ্র“তিতে “কোস্ট গার্ড এ্যাক্ট ১৯৯৪” মহান জাতীয় সংসদে পাশ করার মাধ্যমে বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড গঠন করা হয় এবং ১৯৯৫ সালের ১৪ ফেব্র“য়ারীতে একটি আধা সামরিক বাহিনী হিসাবে বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড বাহিনী যাত্রা শুরু করে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড বাহিনী দেশের সমুদ্র সীমানা, তৎসংলগ্ন উপকূলীয় অঞ্চল এবং বিভিন্ন নদ নদীতে অত্যন্ত নিষ্ঠা ও নির্ভরতার সাথে অর্পিত দায়িত্ব পালন করে আসছে। কালের পরিক্রমায় আজ বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড বাহিনী উপকূলীয় অঞ্চলে একটি আস্থা ও নির্ভরতার প্রতীকে পরিণনত হয়েছে। বাংলাদেশের মোট বাণিজ্যের ৯০ ভাগেরও বেশী পণ্যের আমদানি ও রপ্তানি সমুদ্র পথে হয়ে থাকে। তাই আমদানি ও রপ্তানি কাজে ব্যবহৃত সকল প্রকার দেশী ও বিদেশী বানিজ্যিক জাহাজ সমূহের নদী ও সমুদ্রপথে নিরাপদ চলাচল নিশ্চিত করতে তথা দেশের অর্থনীতির প্রবাহ অব্যহত রাখতে কোস্টগার্ড বাহিনীর সক্রিয় ভূমিকার কোন বিকল্প নেই। আন্তর্জাতিক নিয়ম অনুসারে সমুদ্রতীর হতে ১২ নটিক্যাল মাইল পর্যন্ত টেরিটোরিয়াল সী এলাকা এবং ২০০ নটিক্যাল মাইল পর্যন্ত (এক্সলুসিভ ইকোনোমিক জোন) এর সকল অধিকার সমূহ সমুন্নত রাখতে বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড বাহিনীর প্রয়োজনীয়তা অপরিহার্য। এদেশের উপকূলীয় অঞ্চলে বসবাসকারী জনগণের মূল জীবিকা এবং রপ্তানি আয়ের প্রায় ৩০ শতাংশ সামুদ্রিক মৎস্য সম্পদের উপর নির্ভরশীল। এছাড়া বঙ্গোপসাগরে রয়েছে প্রাকৃতিক গ্যাস, তেল ও অন্যান্য বহু অনাবিষ্কৃত খনিজ সম্পদে সমৃদ্ধ। এ সকল মৎস্য ও খনিজ সম্পদ রক্ষায় কোস্ট গার্ড বাহিনীর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। ভৌগলিক অবস্থান ও দীর্ঘ ৭১০ কিঃ মিঃ সমুদ্র উপকূলবর্তী অঞ্চল থাকায় সমুদ্র ও নদী পথে চোরাচালান বেশী হয়ে থাকে। এসব রোধকল্পে কোস্ট গার্ড বাহিনীর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। তাছাড়া দেশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ চট্টগ্রাম এবং মংলা সমুদ্র বন্দরে আগত বিদেশী ও দেশী বাণিজ্যিক জাহাজসমূহের নিরাপত্তা প্রদান, সুবিশাল সুন্দরবনের পর্যটক, মৌয়াল, চিংড়ি চাষি, মাঝি ও অন্যান্য জনগণের নিরাপত্তা প্রদান করে কোস্ট গার্ড দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে চলেছে।
বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড বাহিনী জন্মলগ্ন থেকে জলোচ্ছাস, ঘূণিঝড়, সুনামি ও দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ায় উপকূলীয় জনগণকে সার্বিক সহায়তা এবং ত্রাণ ও উদ্ধার তৎপড়তা অভিযানে অংশগ্রহণ করে সর্বমহলে প্রশংশিত হয়েছে। তাই জাতীয় ও অর্থনৈতিক উন্নয়নে কোস্ট গার্ড বাহিনীর অবদান অপরিসীম। বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড বাহিনী মানব পাচার রোধ ও মাদক দ্রব্য উদ্ধার, অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার ও পাচার রোধ, শুল্ক ফাঁকি দিয়ে অবৈধ পথে পাচার করে আনা ভারতীয় শাড়ি কাপড় জব্দ করাসহ সমুদ্রপথে মরণ নেশা গাঁজা, হিরোইন, ইয়াবা, ফেন্সিডিল, মদ, বিয়ার, বিদেশী সিগারেটসহ বিভিন্ন অবৈধ পণ্য জব্দ করেছে। দেশের উপকূলীয় এলাকার জনগণের সার্বিক নিরাপত্তায় সদা জাগ্রত কোস্ট গার্ড বাহিনীর প্রতিটি সদস্য। কোস্ট গার্ড বাহিনী দেশের উপকূলীয় এলাকার শিক্ষা স্বাস্থ্যর উন্নয়নেও নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে। বিশেষ করে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে বিনামূল্যে শিক্ষা সামগ্রী বিতরণসহ উপকূলীয় এলাকায় জেলেদের লাইফ জ্যাকেট প্রদান করাসহ ফ্রি চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছে। দেশের বিশাল সমুদ্র এলাকার সার্বিক নিরাপত্তায় নিয়োজিত রয়েছে বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড বাহিনীর ৫৭টি জাহাজ।
বিশেষ করে গত ৩ বছরে কোস্ট গার্ড বাহিনীর বহরে যুক্ত হয়েছে ৪টি অত্যাধুনিক যুদ্ধ জাহাজ সিজিএস সৈয়দ নজরুল, সিজিএস তাজউদ্দিন, সিজিএস কামরুজ্জামান ও সিজিএস মুনসুর আলী। ৮৭ মিটার দৈর্ঘ্য ও ১০.৫ মিটার প্রস্ত এ জাহাজগুলো দেশের সামুদ্রিক নিরাপত্তায় দারুন ভূমিকা রাখছে। এছাড়াও আগামী ২০২৫ সালের মধ্য বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড বাহিনীকে একটি ত্রিমাত্রিক বাহিনী হিসেবে গড়ে তুলতে বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ব্যাপক পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে।


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ









রোজার ছাড় যাদের জন্য

রোজার ছাড় যাদের জন্য

২৩ মে, ২০১৯ ০১:০০