খুলনা | বুধবার | ২৭ মার্চ ২০১৯ | ১২ চৈত্র ১৪২৫ |

Shomoyer Khobor

আটক দুই আসামির ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী প্রদান

রূপসায় প্রকাশ্যে দু-হাতের কব্জি কর্তন মামলাটি চাঞ্চল্যকর হিসেবে ডিবিতে হস্তান্তর

রূপসা প্রতিনিধি | প্রকাশিত ১৩ জানুয়ারী, ২০১৯ ০১:৩০:০০

রূপসায় প্রকাশ্যে দু-হাতের কব্জি কর্তন মামলাটি চাঞ্চল্যকর হিসেবে ডিবিতে হস্তান্তর

রূপসা উপজেলার জনবহুল খান জাহান আলী ব্রীজের নিচে প্রকাশ্যে বৃদ্ধ সাদ্দাম হোসেনের দু’হাতের কব্জি ও দু’পায়ের রগ কর্তন মামলাটি চাঞ্চল্যকর হিসেবে পুলিশ সুপারের নির্দেশে ডিবিতে হস্তান্তর করা হয়েছে। দায়িত্ব পাওয়ার পরই জেলা ডিবি’র ওসি তোফায়েল আহম্মেদ, ইন্সপেক্টর কনি মিয়া ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা গত শুক্রবার রাতে অভিযান চালিয়ে রামপাল উপজেলার ঝনঝনিয়া এলাকা থেকে মামলার অন্যতম আসামি জাবুসা গ্রামের লোকমান ফকিরের পুত্র কামাল ফকির কে আটক করেছে। আটক কামাল এবং রিমান্ডে থাকা আসামি নজরুল ইসলাম ওরফে নজু ফকির ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী দিয়েছে।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই মুক্ত রায় চৌধুরী পিপিএম জানান, আটক আসামি কামাল এবং রিমান্ডে থাকা নজরুল ইসলাম ওরফে নজু ফকিরকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদের পর তারা ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী দিতে রাজি হয়। সে মোতাবেক গতকাল শনিবার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নুসরত জাহানের আদালতে উক্ত ২ আসামি ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি প্রদান করে। আসামি নজু ফকির ও কামাল উক্ত ঘটনার সাথে নিজেদের সম্পৃক্ততার কথা স্বীকার করে বিজ্ঞ আদালকে জানায় গত ৭ জানুয়ারি সকাল সাড়ে ৬টার দিকে জাবুসা গ্রামের মৃত শামসু শেখের পুত্র সাদ্দাম শেখ চা খাওয়ার উদ্দেশ্যে ব্রীজের নিচে আসে। এ সময় পূর্ব থেকে ওঁৎ পেতে থাকা কতিপয় দুবর্ৃৃত্তসহ তারা দুই জন সাদ্দাম হোসেনকে বেধড়ক মারপিট ও জখম করে। এ সময় তারা সাদ্দাম শেখ কে জাপটে ধরে দু’হাতের কব্জি কেটে বাহু  থেকে বিচ্ছিন্ন এবং দু’পায়ের রগ কেটে দেয়। তার আত্মচিৎকারে আশে পাশের লোক থাকলেও তাদের ভয়ে কেউ কাছে আসতে সাহস পায়নি। তারা চলে গেলে পরিবারের লোকজন সাদ্দামকে উদ্ধার করে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। এদিকে মামলার প্রধান আসামি উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-প্রচার সম্পাদক রবিউল ইসলাম লিটুকে ঢাকা থেকে গ্রেফতারের পর তাকেও ডিবি পুলিশ রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ অব্যাহত রেখেছে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা জানান, আসামি লিটুকে জিজ্ঞাসাবাদ অব্যাহত রয়েছে এবং আজ রবিবার তার রিমান্ড শেষ হবে।  

 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ







একাত্তরের স্মৃতির রোডম্যাপ

একাত্তরের স্মৃতির রোডম্যাপ

২৬ মার্চ, ২০১৯ ০১:৪৩


স্বাধীনতা ও আমাদের প্রত্যাশা

স্বাধীনতা ও আমাদের প্রত্যাশা

২৬ মার্চ, ২০১৯ ০১:৪২