খুলনা | বুধবার | ২৭ মার্চ ২০১৯ | ১২ চৈত্র ১৪২৫ |

Shomoyer Khobor

প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্র“তির প্রায় ৮ বছরেও শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়নি খুলনার দু’টি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের

বশির হোসেন | প্রকাশিত ১৩ জানুয়ারী, ২০১৯ ০১:৩০:০০

প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্র“তির প্রায় ৮ বছরেও শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়নি খুলনার দু’টি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের

প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্র“তির প্রায় ৮ বছরেও শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করতে পারেনি খুলনার দু’টি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়। তবে রূপসা ব্রিজ সংলগ্ন সালাহউদ্দিন ইউসুফ সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় চলতি বছর থেকেই নির্দেশনা পাওয়ায় আগামী সপ্তাহে শিক্ষার্থী ভর্তি শুরুর পরিকল্পনা রয়েছে। যদিও জনবল বলতে শুধুমাত্র একজন প্রধান শিক্ষক। অন্যটিতে অবকাঠামো নির্মাণের কাজ শেষ হয়নি এবং নির্দেশনা না আসায় বটিয়াঘাটায় দেলদার আহমেদ সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়’ এ বছরে শিক্ষা কার্যক্রম শুরু নিয়ে অনিশ্চয়তা কাটেনি। অন্যটি শুরু হয়েছে ২০১৭ সালে। উল্লেখ্য ২০১১ সালে খালিশপুরে এক জনসভায় খুলনায় ৩টি নতুন সরকারি স্কুল প্রতিষ্ঠার প্রতিশ্র“তি দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী।
সংশ্লিষ্টরা জানান, ২০১১ সালের ৫ মার্চ নগরীর খালিশপুর প্রভাতি স্কুল মাঠের জনসভায় খুলনায় নতুন তিনটি স্কুল নির্মাণের ঘোষণা দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পরের বছরই তিনটি স্কুল নির্মাণের প্রকল্প তৈরি করে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর। প্রায় ২ বছর পর নগরীর খানজাহান আলী থানার বালুর মাঠ এলাকায় একটি, লবণচরা এলাকায় একটি এবং সোনাডাঙ্গা মহিলা ক্রীড়া কমপ্লেক্স এলাকায় একটি বিদ্যালয় নির্মাণের সিদ্ধান্ত হয়। কিন্তু জমি অধিগ্রহণ নিয়ে জটিলতার কারণে সোনাডাঙ্গা এলাকার বিদ্যালয়টি সরিয়ে নিয়ে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের পাশে কৃষ্ণনগর এলাকায় নিয়ে যাওয়া হয়।
প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা জানান, এর পর ২০১৫ সালে সবার প্রথমে খানজাহান আলী বিদ্যালয়ের কাজ শুরু  হলেও এক বছর পর ২০১৬ সালের শুরু হয় অন্য দু’টি প্রতিষ্ঠানের নির্মাণ কাজ।
সরেজমিন ঘুরে ও শিক্ষা বিভাগের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, লবণচরা এলাকার বিদ্যালয়ের মূল অবকাঠামোর কাজ প্রায় শেষের পথে। বিদ্যালয়টির চতুর্থতলা পর্যন্ত হস্তান্তর করা হয়েছে। তবে আনুষঙ্গিক অনেক কাজ এখনো বাকি। বেশির ভাগ ফার্নিচারও চলে এসেছে। কিন্তু নির্মাণ কাজ সম্পূর্ণ শেষ না হওয়া এবং প্রধান শিক্ষক ছাড়া অন্যকোন জনবল নিয়োগ না হওয়ায় চলতি বছরে শিক্ষার্থী ভর্তি হবে না এমনি ভেবেছিল সংশ্লিষ্টরা। তবে হঠাৎ করে গত ৯ জানুয়ারি মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর থেকে চলতি বছরেই শিক্ষার্থী ভর্তির মাধ্যমে শ্রেণী কার্যক্রম শুরুর নির্দেশনা দেয়া হয়। ইতোমধ্যে জেলা প্রশাসক, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) ও বিদ্যালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক ঠাকুরদাস তরফদার বৈঠক করেছেন নির্দেশনা বাস্তবায়নে। তবে কোন কোন শ্রেণীতে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে, শিক্ষকসহ অন্যান্য জনবল নিয়োগ কবে নাগাদ হবে তার কোন স্পষ্ট তথ্য নেই সংশ্লিষ্টদের কাছে।
অন্যদিকে বটিয়াঘাটা স্কুলের অবকাঠামো কাজ এখনো শেষ হয়নি। আনুষঙ্গিক প্রায় সব কাজই বাকি। শিক্ষা প্রকৌশল সূত্রে জানায়, বিদ্যালয়টির মাটি সংক্রান্ত জটিলতার কারণে কাজ শুরু করতে দেরি হয়েছে। এছাড়া সরকারী নির্দেশনা না পাওয়ায় চলতি বছরে এই স্কুলে শিক্ষা কার্যক্রম শুরু নিয়ে অনিশ্চয়তা রয়েছে।
লবণচরাস্থ সালাহউদ্দিন ইউসুফ সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ঠাকুরদাস তরফদার বলেন মাউশির চিঠি নিয়ে জেলা প্রশাসকের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছি। শিগগির জেলা প্রশাসকের বিদ্যালয় পরিদর্শনের পর সভার মাধ্যমে শিক্ষার্থী ভর্তি ও অন্যান্য বিষয় সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। প্রধান শিক্ষক বলেন, নতুন এই স্কুলে আমি ছাড়া অন্য কোনো জনবল নেই। বিদ্যালয়ের নতুন ভবনে আসবাবপত্র, বেঞ্চসহ অন্যান্য উপকরণ স্থাপনের কাজও শেষ হয়নি। শিক্ষা প্রকৌশল বিভাগের সাথে দ্রুত সকল কাজ শেষ করার জন্য যোগাযোগ করে চলেছি।
খুলনার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) গোলাম মাঈন উদ্দিন হাসান জানান, সালাহউদ্দিন ইউসুফ সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের এই বছরেই শিক্ষার্থী ভর্তির মাধ্যমে শ্রেণী কার্যক্রম শুরুর নির্দেশনা পেয়েছি। তাই চলতি সপ্তাহে আনুসঙ্গিক সকল কাজ শেষ করে ভর্তি বিজ্ঞপ্তি দেয়ার ব্যাপারে  সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। শিক্ষকসহ প্রয়োজনীয় জনবল চেয়ে মাউশিতে চিঠি দেয়া হয়েছে। তারাও একটি জনবল কাঠামো পাঠিয়েছে। দু’একদিনের মধ্যে সব ঠিক হয়ে যাবে বলে আশা ব্যক্ত করেন তিনি।

 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ







একাত্তরের স্মৃতির রোডম্যাপ

একাত্তরের স্মৃতির রোডম্যাপ

২৬ মার্চ, ২০১৯ ০১:৪৩


স্বাধীনতা ও আমাদের প্রত্যাশা

স্বাধীনতা ও আমাদের প্রত্যাশা

২৬ মার্চ, ২০১৯ ০১:৪২