খুলনা | বৃহস্পতিবার | ১৮ জুলাই ২০১৯ | ৩ শ্রাবণ ১৪২৬ |

শিরোনাম :

Shomoyer Khobor

মনোনয়ন ফিরে পেলেন যারা

খবর প্রতিবেদন  | প্রকাশিত ০৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১৩:২৯:০০

একাদশ সংসদ নির্বাচনে রিটার্নিং কর্মকর্তার যাচাই-বাছাইয়ে বাতিল হওয়া মনোনয়নপত্রের ওপর শুনানী শুরু করেছে নির্বাচন কমিশন। আজ সকালে নির্বাচন ভবনের লিফটের ১০ তলায় এজলাসে চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী নবাব মো. শামছুল হুদার মাধ্যমে শুনানী শুরু হয় এবং মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয় তার। এরপর আপিল আবেদনের সিরিয়াল অনুযায়ী একে একে প্রার্থীদের শুনানী গ্রহণ করা হচ্ছে। 
ইতিমধ্যে বগুড়া-৭ আসনে বিএনপি প্রার্থী মোরশেদ মিল্টন বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে। খাগড়াছড়ির বিএনপি প্রার্থী আবদুল ওয়াদুদ ভুঁইয়ার সিদ্ধান্ত এখনো অপেক্ষমান। অপেক্ষমান আছে ঝিনাইদহ-১ আসনের মো. আব্দুল ওয়াহাবের মনোনয়নপত্র। ঢাকা-২০ আসনে বিএনপি মনোনয়নপ্রত্যাশী তমিজ উদ্দিনের মনোনয়ন বৈধ। এছাড়াও বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে সাতক্ষীরা-২ আফসার আলীর মনোনয়নপত্র।
কিশোরঞ্জ-২ আসনে মেজর (অব) মো আখতারুজ্জামানের মনোনয়ন বৈধ। চাপাইনবাগঞ্জ-২ আসনের মো. তৈয়ব আলীর মনোনয়নপত্র বৈধ। পটুয়াখালী-৩ আসনে বিএনপি প্রার্থী গোলাম মওলা রনির স্বাক্ষর না থাকায় আটকে ছিল মনোনয়নপত্র। আপিলের মাধ্যমে তার মনোনয়নপত্রও বৈধ ঘোষনা করেছে ইসি। ঢাকা-১ আসনে খন্দকার আবু আশফাকের মনোনয়ন বৈধ ঘোষণা। মোহাম্মদ শাহজাহান পটুয়াখালী-৩ আসন থেকে বৈধতা পেয়েছেন। সুমন সন্যামত পটুয়াখালী-১ বৈধতা পেয়েছেন। পারভেজ হোসেন দিনাজপুর-১ আসন থেকে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন। তার মনোনয়ন অবৈধ ঘোষণা করা হয়েছে। জহিরুল ইসলাম মিন্টু মাদরীপুর-১ আসনে বৈধ। এস এম খলিলুর রহমান ঠাকুরগাঁও-৩ বাতিল। বৈধতা পেয়েছেন ফজলুর রহমান জয়পুরহাট-১ থেকে।
একইভাবে বিএনপির প্রার্থী পাবনা-৩ আসনের মো. হাসানুল ইসলাম ইসলাম বৈধ। বাতিল করা হয়েছে ফেনী-১ এর মিজানুর রহমানের মনোনয়নপত্র। বাতিল হয়েছে ড. মিজানুুল হকের মনোনয়নপত্র। তিনি কিশোরগঞ্জ-৩ আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী। বাতিল হয়েছে ময়মনসিংহ-৪ আসনের আবু সাইদ মহিউদ্দিনের মনোনয়নপত্র। অপেক্ষমান আছেন নেত্রকোনা-১ ও পঞ্চগড়-১ আসনের মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম ও মো. তৌহিদুল ইসলামের মনোনয়নপত্র। ময়মনসিংহ-২ আসনে মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে মো. এমদাদুল হকের। বৈধতা পেয়েছে মানিকগঞ্জ-২ আসনের মো. আবিদুর রহমান খানের মনোনয়নপত্র। বাতিল হয়েছে খুলনা-২ ও নাটোর-১ আসনের এস এম এরশাদুজ্জামান ও শ্রী বীরেন্দ্র নাথ সাহার মনোনয়নপত্র। বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে সিরাজগঞ্জ-৩ আসনের মো. আইনাল হকের মনোনয়নপত্র।  বাতিলের খাতায় যুক্ত হয়েছে ঢাকা-১ ও বগুড়া-৩ আসনের মো. আইয়ুব খান ও মো. আব্দুল মুহিতের মনোনয়নপত্র। গাজীপুর-২ মো. জয়নাল আবেদীন, ব্রাহ্মণবাড়ীয়া-৬ জেসমিন নুর বেবী, রংপুর-৪ মোস্তফা সেলিম বৈধতা পেয়েছেন। এস এম শফিকুল আলম খুলনা-৬ আসন থেকে মনোনয়নের বৈধতা পেয়েছেন। আশরাফুল হোসেন আলম বগুড়া-৪ আসনে অবৈধ ঘোষণা করা হয়েছে। ১০ জনের স্বাক্ষর গড়মিল থাকায় বাতিল হয়েছে। বৈধতা পেয়েছেন হবিগঞ্জ-১ ও ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়া-৩ আসনের জুবায়ের আহমদ ও আবদুল্লাহ আল হেলালের মনোনয়নপত্র। বাতিলের খাতায় নাম উঠেছে হবিগঞ্জ-২, ঢাকা-১৪, সাতক্ষীরা-১ আসনের এস এম মুজিবুর রহমানের মনোনয়নপত্র। বৈধতা পেলেন বরিশাল-২ আসনের মো. আনিসুজ্জামান। ঢাকা-৫ আসনে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপির) গণশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক ও শিক্ষক নেতা মো: সেলিম ভুইয়া পেলেন মনোনয়নের বৈধতা। 
মনোনয়নপ্রত্যাশীদের আপিল আবেদনের প্রেক্ষিতে আজ সকাল থেকে এই শুনানী শুরু হয়। এর আগে গত ২রা ডিসেম্বর সারাদেশের রিটার্নিং কর্মকর্তারা যাচাই-বাছাই করে ৭৮৬ মনোয়নয়নপ্রত্যাশীর মনোনয়নপত্র বাতিল করে। ওই সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ করে গত তিনদিন নির্বাচন কমিশনের আপিল আবেদন করেন ৫৪৩ প্রার্থী। আজ থেকে এই আবেদনের ওপর শুনানী। এই শুনানী চলবে আগামী ৮ই ডিসেম্বর পর্যন্ত।  
প্রধান নির্বাচন কমিশনারসহ অন্যান্য কমিশনাররা সেখানে উপস্থিত  থেকে আপিল শুনানি গ্রহণ করছেন। আজ এক থেকে ১৬০ পর্যন্ত ক্রমিক নম্বরের আবেদনের শুনানি হবে। সূত্র : মানবজমিন অনলাইন 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ