খুলনা | রবিবার | ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮ | ২ পৌষ ১৪২৫ |

সরাসরি কৃষক পর্যায়ে চাল সংগ্রহের উদ্যোগ নিন

২০ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:১০:০০

সরাসরি কৃষক পর্যায়ে চাল সংগ্রহের উদ্যোগ নিন

চলতি আমন মৌসুমে অভ্যন্তরীণ বাজার থেকে মোট ৬ লাখ মেট্রিক টন আমন চাল (সিদ্ধ) কেনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। ৩৬ টাকা কেজি দরে এ চাল সংগ্রহ করা হবে। সংগ্রহ সন্তোষজনক হলে পরবর্তীতে আরো ২ থেকে ৩ লাখ টন সংগ্রহ করা হবে। আগামী তিন মাস এ চাল সংগ্রহ চলবে। কিন্তু কৃষক পর্যায়ে এ চাল সংগ্রহের কোন নীতিমালা না থাকায় প্রতি বছর ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে মাঠ পর্যায়ের চাষিরা। আর লাভবান হচ্ছেন মধ্যস্বত্বভোগী ফড়িয়া বা মিল মালিকরা। এবারও তার ব্যত্যয় ঘটেনি।
খুলনায় এবার রোপা আমনের বাম্পার ফলনের আশা করছে কৃষি বিভাগ। যাদের মাথার ঘাম পায়ে ফেলে দিন রাত কঠোর পরিশ্রমের এ ফসল, তারা কি এবারও তাদের খরচ পুষিয়ে নিতে পারবেন এমন প্রশ্ন থেকেই যায়। কারণ প্রতি বছর ধানের প্রকৃত দাম থেকে বঞ্চিত হয় কৃষক। বর্তমানে ধানের যা বাজার দর তা দিয়ে উৎপাদন খরচই ওঠে না। অথচ মিল মালিকেরা কৃষকদের কাছ থেকে ধান কিনে প্রায় ১১ টাকা লাভে সরকারের কাছে চাল বিক্রি করছে। কৃষকরা বলছেন, পাঁচ বছর ধরে ধানের দাম কম। এ মৌসুমে আমন ধানের ফলন ভালো হয়েছে। কিন্তু বাজারদর কম। বর্তমানে মোটা জাতের আমন ধান বিক্রি হচ্ছে প্রতি বস্তা (২৮ কেজি) ৩৭০ টাকা। অথচ এ ধান উৎপাদন করতে তাঁদের ৪০০ টাকা খরচ হয়েছে। আর সেই ধান দিয়ে চাল তৈরি করে সরকারি গোডাউনে চাল বেচে মিল মালিকেরা (মিলাররা) লাভ করবে ২০০ টাকা। সরকার চালকল মালিকদের কাছ থেকে কিনবে ৩৬ টাকা কেজি হিসাবে। এটা ঠিক যে তাঁরা প্রতি কেজি চালে ১০ টাকার বেশি লাভ করবেন। তবে চালকলের মেশিন খরচ, শ্রমিকের বেতন ও অন্যান্য ব্যয় এ লাভ থেকে কাটা যায়। আবার ধান ছাঁটাইয়ের পর এ চাল পালিশ করতে প্রতি কেজিতে দুই থেকে আড়াই টাকা খরচ হয়। 
সারা দেশে গত আমন মৌসুমে কৃষকের কাছ থেকে সরকারি খাদ্য গুদামে কোনো ধান কেনা হয়নি। তবে মিলারদের কাছ থেকে চাল কেনা হয়। সরাসরি কৃষকের কাছ থেকে চাল না কেনার ফলে লাভবান হয় মিল মালিক। ক্ষতি হয় কৃষকের, যারা রোদ-বৃষ্টি উপেক্ষা করে হাড় ভাংগা পরিশ্রমে ফসল উৎপাদন করে দিনের পর দিন ন্যার্য মূল্য থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। কৃষক ধান চাষ করতে যে ঋণ নেয় ওই ঋণ শোধ করে সংসার চালাতেই কঠিন হয়ে পড়ে। কৃষকের কষ্টার্জিত ফসলের মূল্য তাদের হাতে পৌঁছাতে সরকারের এখনই নজর দেয়া প্রয়োজন বলে আমরা মনে করি।
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ

তোমাদের এই ঋণ কোনদিন শোধ হবেনা----

তোমাদের এই ঋণ কোনদিন শোধ হবেনা----

১৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:১০

উৎসবমুখর নির্বাচন সবার কাম্য 

উৎসবমুখর নির্বাচন সবার কাম্য 

১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:১০



শীত কষ্টের না হয়ে উৎসবের হয়ে উঠুক

শীত কষ্টের না হয়ে উৎসবের হয়ে উঠুক

১২ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:১০

নারীর শেকল ভাঙার গান বেগম রোকেয়া

নারীর শেকল ভাঙার গান বেগম রোকেয়া

১০ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:১০






এইডস সংক্রমন রোধে  সচেতনতা জরুরী

এইডস সংক্রমন রোধে  সচেতনতা জরুরী

০৩ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:১০


ব্রেকিং নিউজ