খুলনা | রবিবার | ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮ | ২ পৌষ ১৪২৫ |

Shomoyer Khobor

গ্রেফতারের তালিকা এবার ইসিতে দিলো বিএনপি

‘হয়রানিমূলক মামলা নির্বাচনের পরিবেশ নষ্ট করে’ 

খবর প্রতিবেদন | প্রকাশিত ১৯ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:৪৬:০০

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে দেওয়া গ্রেফতার হওয়া নেতা-কর্মীদের তালিকা এবার নির্বাচন কমিশনে (ইসি) জমা দিয়েছে বিএনপি। রবিবার বেলা ১১টার দিকে আগারগাঁওয়ের নির্বাচন কমিশনে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের (সিইসি) কাছে এই তালিকা জমা দেয় বিএনপি’র কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের মামলা ও তথ্য সংরক্ষণ কর্মকর্তা মোঃ সালাহ উদ্দিন খানের নেতৃত্বে দুই সদস্যের প্রতিনিধি দল।
ইসির কাছে অভিযোগ করে বিএনপি বলেছে, প্রধানমন্ত্রীর কাছে মামলার তালিকা দেওয়া হয়েছে; কিন্তু তিনি তাঁর প্রতিশ্র“তি রক্ষা করেননি। তফসিল ঘোষণার পর থেকে এখন পর্যন্ত তাদের নেতা-কর্মীদের গ্রেফতার, মামলা ও হয়রানি অব্যাহত আছে। সেই সঙ্গে নির্বাচন কমিশনের নির্দেশ উপেক্ষা করে বিএনপি নেতা-কর্মীদের গ্রেফতার অব্যাহত রেখেছে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী বলেও অভিযোগ করে দলটি। তালিকা অনুযায়ী, তফসিল ঘোষণার পর থেকে এখন পর্যন্ত গ্রেফতার করা হয়েছে ৭৭৩ জন বিএনপি’র নেতা-কর্মী।
মৃত, অসুস্থ, হজ্ব পালনরত, বিদেশে অবস্থান করা ব্যক্তিদের মামলা করা হয়েছে উল্লেখ করে চিঠিতে বলা হয়, ১ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সংলাপে মিথ্যা ও গায়েবি মামলা এবং গ্রেফতারের তালিকা দেওয়ার জন্য জানান সরকার প্রধান। সেই আলোকে বিএনপি’র পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ও আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক বরাবর ৭ নভেম্বর প্রথম দফায় এক হাজার ৪৬টি মামলার তালিকা দেয় বিএনপি। দলটি পরে ১৩ নভেম্বর দ্বিতীয় দফায় এক হাজার দু’টি মামলার নম্বর, ধারাসহ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে জমা দেয়।
প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্র“তি অনুযায়ী, দুই দফায় মামলার তালিকা জমা দেওয়ার মামলাগুলো প্রত্যাহার ও গ্রেফতার হওয়া নেতা-কর্মীদের অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে কি না, তা এখন পর্যন্ত জানানো হয়নি বলেও চিঠিতে উল্লেখ করে বিএনপি।
চিঠিতে আরো বলা হয়, ‘প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া প্রতিশ্র“তি অনুযায়ী, মামলাগুলো প্রত্যাহার এবং গ্রেফতার হওয়া নেতা-কর্মীদের অব্যাহতি না দেওয়া নিঃসন্দেহে উদ্বেগজনক। গত ৮ নভেম্বর নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর থেকে আজ (রবিবার) পর্যন্ত প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, ৭৭৩ জন বিএনপি নেতা-কর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এর তালিকা গত ১৫ নভেম্বর নির্বাচন কমিশন বরাবর দেওয়া হয়েছে। তফসিল ঘোষণার পর আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী নির্বাচন কমিশনের অধীনে হলেও কমিশনের নির্দেশ উপেক্ষা করে ধারাবাহিকভাবে বিএনপি নেতা-কর্মীদের গ্রেফতার ও বাড়িতে পুলিশী তল্লাশি অব্যাহত রয়েছে। এ কারণে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে দেওয়া তালিকা আপনার (প্রধান নির্বাচন কমিশনার) বরাবর দেওয়া হলো।’ ‘তফসিল ঘোষণার পরও নির্বাচন কমিশনের নির্দেশ উপেক্ষা করে উল্লিখিত গায়েবি মামলার আসামিদের বাড়িতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর হুমকি ও গ্রেফতার অব্যাহত আছে। অবিলম্বে নেতা-কর্মীদের মামলা থেকে অব্যাহতিসহ গ্রেফতার বন্ধের জন্য আপনার (সিইসি) কাছে আবারও অনুরোধ করা হলো।’ এর আগে ১৬ নভেম্বর সিইসির কাছের ৪৭২ নেতা-কর্মীকে গ্রেফতারের তালিকা জমা দেয় বিএনপি। 
এ বিষয়ে রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘বিএনপি’র দেওয়া তালিকাটি আমি এখনো দেখিনি। তবে সত্যিকারের অর্থে যদি কোনো হয়রানিমূলক মামলা হয়ে থাকে, তাহলে আমরা অবশ্যই পুলিশ প্রশাসনকে নির্দেশনা দেব, যেন হয়রানিমূলক মামলা না করে। কারণ হয়রানিমূলক মামলা করলে নির্বাচনের পরিবেশ কিছুটা হলেও বিনষ্ট হবে। সুতরাং, কমিশন নির্দেশনা দেবে এই ধরনের কাজ থেকে বিরত থাকার জন্য।’
প্রিসাইডিং ও সহকারী প্রিসাইডিং কর্মকর্তাদের ফোন নিয়ে হরয়ানির বিষয়ে জানতে চাইলে নির্বাচন কমিশনার বলেন, ‘কমিশন থেকে এ ধরনের কোনো সিদ্ধান্ত দেওয়া হয়নি। যদি কেউ এ ধরনের কাজ করেন, তাহলে অতি উৎসাহী হয়ে করছেন। নির্বাচন কমিশন এর প্রমাণ পেলে ব্যবস্থা নেবে।’


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ

ড. কামাল হোসেনের  দুঃখ প্রকাশ

ড. কামাল হোসেনের  দুঃখ প্রকাশ

১৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:৪০













ব্রেকিং নিউজ