খুলনা | বুধবার | ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮ | ৫ পৌষ ১৪২৫ |

Shomoyer Khobor

খুলনায় নির্মিত হবে মাল্টিমিডিয়া ট্রান্সপোর্ট টার্মিনাল মেট্রোপলিটন পার্ক ও ফাইভ স্টার হোটেল প্রশস্ত হবে সড়ক ও প্রবেশপথ

এস এম আমিনুল ইসলাম | প্রকাশিত ১১ নভেম্বর, ২০১৮ ০১:২০:০০

মাল্টিমিডিয়া ট্রান্সপোর্ট টার্মিনাল, মেট্রোপলিটন পার্ক ও ফাইভ স্টার হোটেল নির্মাণসহ নানা পরিকল্পনা নিয়ে খুলনার জন্য সম্প্রতি গেজেট আকারে প্রকাশিত হয়েছে ডিটেইল এরিয়া প্লান (ড্যাপ)। এ প্লানে যানজট নিরসনে সড়ক ও সড়কের প্রবেশ পথ প্রশস্ত করণের জন্য বিশেষ নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এসব নির্দেশনা বাস্তবায়ন হলে খুলনা হবে আধুনিকমানের পরিকল্পিত নগরী। সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলো বলছে, ড্যাপের নির্দেশনা অনুসরণে ইতোমধ্যে তারা নির্ধারিত স্থানে প্রকল্প বাস্তবায়নে উদ্যোগ নিয়েছেন। 
জানা গেছে, ১৯৪৭ সালে দেশ বিভাগের পরই দেশে নগরায়নের ছোঁয়া লাগে। পরে ১৯৬১ সালে মোট জনসংখ্যার শতকরা ৪.৭৮ ভাগ লোক শহরে বসবাস শুরু করে যা ১৯৮১ সালে বেড়ে ১৫.০৮ ভাগে উন্নীত হয়। বর্তমানে মোট জনসংখ্যার ৩০ শতাংশের বেশী লোক শহরে বসবাস করে। দেশে দ্রুত এ নগরায়নের সাথে সাথে বেড়েছে নাগরিক চাহিদা, যেমন রাস্তাঘাট, ড্রেন, স্কুল, কলেজ, খেলার মাঠ, আবাসন ব্যবস্থা, স্বাস্থ্য ও চিত্ত বিনোদন ইত্যাদি সুযোগ সুবিধা। কিন্তু খুলনা দেশের তৃতীয় বৃহত্তম নগরী হওয়া সত্ত্বেও ইতোপূর্বে এসব চাহিদা পূরণে তেমন দৃশ্যমান উন্নয়ন হয়নি। তবে বর্তমানে খুলনায় উন্নয়নের মাত্রা বেড়েছে ও উন্নয়ন সহায়ক পরিবেশ সৃষ্টি হচ্ছে। এছাড়া ধারণা করা হচ্ছে খুলনাই হবে ভারত, মিয়ানমার ও ভুটানের সাথে যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম। তাই নগরীর বাসিন্দা এবং বিনিয়োগকারীদের সঠিক ও নিরাপদ বিনিয়োগের স্থান হিসেবে নতুন নতুন স্কুল, কলেজ, রাস্তাঘাট, ড্রেনেজ ও অন্যান্য নাগরিক সুবিধাসহ বিভিন্ন অবকাঠামো নির্মাণের জন্য সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব প্রেরণ করা হয়। চলতি বছর গত ১৭ জুলাই ওইসব প্রস্তাব খুলনা এলাকার জন্য ড্যাপ হিসেবে অনুমোদন পেয়েছে। ড্যাপে আগামী ১০ বছরের মধ্যে মানসিক হাসপাতাল, আলিয়া মাদ্রাসা, বাজার, বাস-টার্মিনাল, সিমেট্রী, কলেজ, কমিউনিটি পার্ক, কেডিএ ভবন সম্প্রসারন, কাউন্সিলর ভবন, ক্রিমেটোরিয়াম-১, ময়ূরী আবাসিক প্রকল্প, প্রতিবন্ধী স্কুল, ফায়ার স্টেশন, মৎস্য বাজার, জেনারেল হাসপাতাল, কবরখানা, ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট, আইটি ভিলেজ, নিম্ন আয়ের মানুষের জন্য আবাসন, মেট্রোপলিটন পার্ক, নার্সিং ট্রেনিং সেন্টার, বিদ্ধাশ্রম, পার্ক, খেলার মাঠ, প্রাইমারী স্কুল, প্রাইভেট ইউনিভার্সিটি, রিহ্যাবিলিটেশন অঞ্চল, আবাসিক এরিয়া, স্যানিট্যারী লান্ডফিল, সেকেন্ডারী স্কুল, সাইট এন্ড সার্ভিস, সলিড ওয়েস্ট ড্যাম্পিং সাইট, স্টেডিয়াম, ময়লা আবর্জনায় শৃঙ্খলা ফেরাতে সেকেন্ডারী ট্র্যানেস্ফার স্টেশন, টিটিসি, টাউন সেন্টার, ট্রাক টার্মিনাল, ওয়াটার ওয়াল্ড ও পাইকারী কাঁচা বাজার ইত্যাদি প্রকল্প বাস্তবায়নের নির্দেশনা রয়েছে। এর মধ্যে মাল্টিমিডিয়া ট্রান্সপোর্ট টার্মিনাল পুরাতন রেল স্টেশন এলাকায়, মেট্রোপলিটন পার্ক খোলা বাড়িয়া এবং ফাইভ স্টার হোটেল বিলপাবলা ও জাবুসায় নির্মিত হবে। সম্প্রতি কিছু উন্নয়ন চিত্র যেমন, বিদ্যুৎ কেন্দ্র, এয়ারপোর্ট, নতুন রেলপথ, পোর্ট-এর কার্যক্রম বৃদ্ধি এরই প্রাথমিক ধাপ। এছাড়া বাকি প্রকল্পগুলো সংশ্লিষ্ট দফতরগুলো ড্যাপ নির্ধারিত স্থানে বাস্তবায়নের উদ্যোগ নিয়েছে। বিশেষ করে উন্নয়ন কার্যক্রম যাতে নির্দেশনা অনুযায়ী হয় তার জন্য খুলনা উন্নয়ন কর্তপক্ষসহ (কেডিএ) সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান নিজ নিজ পর্যায়ে পরিকল্পনা গ্রহন করেছে। কিন্তু উন্নয়নের এ ছোঁয়া লাগতেই দেখা গেছে খুলনা শহরের প্রায় প্রত্যেকটি গুরুত্বপূর্ণ স্থানে যানজট সৃষ্টি হচ্ছে। দিনের বেশির ভাগ সময়ই যানজট লেগেই থাকে। 
এ ব্যাপারে কেডিএ’র প্রধান প্রকৌশলী কাজী সাবিরুল আলম বলেন, যানজট নিরসনে ড্যাপে রাস্তা-ঘাট বিশেষ করে সড়কের প্রবেশ পথ প্রশস্ত  করা পরিকল্পনা রয়েছে। ইতোমধ্যে কেডিএ ওই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন শুরু করেছে। কেডিএ’র নবাগত চেয়ারম্যান  বিগ্রেডিয়ার জেনারেল এ এস এম মাহমুদ হাসান গত ৭ নভেম্বর খুলনা প্রেসক্লাবে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় সভায় এ বিষয়ে ধারনা দেন। সভায় তিনি কর্পোরেশনসহ সবাইকে এর সাথে সম্পৃক্ত করে তিলোত্তমা নগরী গড়তে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। তিনি অরো বলেন, ড্যাপে নতুন প্রস্তাবের পাশাপাশি বিদ্যমান অবস্থার উন্নয়নের বিষয়েও দিক নির্দেশনা রয়েছে। নতুন প্রস্তাবসমূহ যাতে বিষদভাবে বাস্তবায়ন হয় তার জন্য উন্নয়ন কাজে নিয়োজিত প্রত্যেকটি প্রতিষ্ঠানকে মহাপরিকল্পনা সম্পর্কে অবহিত করা হয়েছে। যাতে প্রতিষ্ঠানগুলো ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশে রুপান্তরের জন্য কাজ করতে পারে।


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ