খুলনা | রবিবার | ১৮ নভেম্বর ২০১৮ | ৪ অগ্রাহায়ণ ১৪২৫ |

Shomoyer Khobor

ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচনী আইন লঙ্ঘন করেছে : কাদের

শেখ হাসিনার পক্ষে দু’টি সংগ্রহের মাধ্যমে আ’লীগের মনোনয়ন বিক্রি কার্যক্রম উদ্বোধন

খবর প্রতিবেদন | প্রকাশিত ১০ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:৪৮:০০

আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহণ করবে বলে মনে করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, ‘মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাহেব, আমার তো তাদের টোন এ্যান্ড টেনোরে মনে হচ্ছে তাঁরা নির্বাচনে আসবেন।’ শুক্রবার সকাল ১০টায় প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার পক্ষে দু’টি মনোনয়নপত্র কিনে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের মনোনয়ন বিক্রির কার্যক্রম উদ্বোধন করেন। এর মধ্যে একটি ফরম কেনা হয়েছে শেখ হাসিনার নিজের আসন গোপালগঞ্জ-৩ (টুঙ্গীপাড়া-কোটালীপাড়া) এর জন্য। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ফরম কিনে দলটির ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক শেখ আবদুল্লাহর কাছে হস্তান্তর করেন।
শেখ হাসিনার জন্য কেনা অন্য ফরমটি কোন আসনের তা জানাননি কাদের। তিনি স্পিকার শিরিন শারমিন চৌধুরীর পক্ষে রংপুর-৬ আসনের জন্য আরেকটি মনোনয়নপত্র কেনেন। পরে এটি ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বি মিয়ার কাছে হস্তান্তর করেন।
এদিকে আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ সাধারণ সম্পাদক কাদেরের পক্ষে নোয়াখালী-৫ আসনের মনোনয়ন সংগ্রহ করেন। এরপরই সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। নির্বাচনকে সামনে রেখে সারা দেশে উৎসব মুখর পরিবেশ বিরাজ করছে বলে দাবি করেন তিনি।
এ সময় হুঁশিয়ারি জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘গোটা বাংলাদেশে এখন একটা উৎসব মুখর, ফ্যাস্টিভাল মুড বিরাজ করছে। নির্বাচনকে সামনে রেখে এর বাইরে যারা যাবেন, যারা নির্বাচন বিরোধী তৎপরতা করবেন, জনগণ কিন্তু প্রতিরোধ করবে।’
এরপরই সারাদেশ থেকে আসা আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা জাতীয় সংসদে প্রতিদ্বন্দ্বিতার জন্য দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ শুরু করেন। প্রতিটি ফরমের মূল্য এবারে পাঁচ হাজার টাকা বাড়িয়ে ৩০ হাজার টাকা নির্ধারণ করেছে আওয়ামী লীগ। এবার অস্থায়ী নির্বাচনী কার্যালয়ে প্রতিটি বিভাগের জন্য আলাদা আটটি বুথ করা হয়েছে।
এক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ১১ নভেম্বর বিকেল সাড়ে ৩টায় বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে আওয়ামী লীগের সংসদীয় বোর্ডের সভায় মনোনয়ন বিক্রির শেষ তারিখ নির্ধারণ করা হবে।
এদিকে নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার পর রাজশাহীতে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট কিভাবে জনসভা করলো সেটাই একটা বিরাট প্রশ্ন বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, এটা তারা করতে পারে না। এই জনসভার মাধ্যমে তারা নির্বাচনী আচরণবিধি বা আইন সুস্পষ্টভাবে লঙ্ঘন করেছে। 
শুক্রবার আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের রোগমুক্তি কামনায় দোয়া মাহফিল শেষে সাংবাদিকদের একথা বলেন তিনি। রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউ’তে আওয়ামী লীগের কার্যালয়ের সামনে অনুষ্ঠিত এ মিলাদ মাহফিলে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তিনি। 
তিনি বলেন, প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) তাদের যে শর্তে অনুমোদন দিয়েছে তা তারা মানেনি। তারা তো তাদের বক্তব্যে আন্দোলনের কথা বলেছে, নির্বাচন বিরোধী বক্তব্য দিয়েছে। তাদের ৭ দফা দাবি না মানলে তারা আন্দোলনে যাবে। তফসিল ঘোষণার পর এই অবস্থায় এ রকম জনসভা করে, এ রকম বক্তব্য কি তারা দিতে পারে? প্রধান নির্বাচন কমিশনার তার বক্তব্যে নির্বাচনের আচরণবিধি সম্পর্কে যে সুস্পষ্ট বক্তব্য দিয়েছেন, এটা কি তার লঙ্ঘন নয়? এ প্রশ্নটাই সিইসি’র কাছে রেখে যাচ্ছি।
তিনি বলেন, তারা আন্দোলন করতে পারবে না। সিলেট থেকে শুরু করে ঢাকা, চট্টগ্রাম সব জায়গায় দেখা গেছে তারা নির্বাচন মুখী ও সমাবেশে আন্দোলন বিমুখ জনগণ। তাদের আন্দোলনের ভাঙা হাট জমছে না। এটাই সর্বশেষ রাজশাহীর সমাবেশ থেকে প্রমাণ হলো। 
৭ দফা দাবি মেনে না নিলে বিএনপি নির্বাচনে যাবে না। এ বিষয়ে তিনি আরও বলেন, অপেক্ষা করুন ৩০ তারিখ পর্যন্ত। তলে তলে তারা নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত হচ্ছে আর সামনে দিয়ে ফাঁকা আওয়াজ তুলছে। যদি কিছু আদায় করে নিতে পারে এই আশায়। এ সময় সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের রোগমুক্তি কামনায় দোয়া প্রার্থনা করা হয়। তিনি দীর্ঘদিন যাবত অসুস্থ অবস্থায় সিঙ্গাপুরে চিকিৎসারত রয়েছেন।


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ