খুলনা | বুধবার | ২১ নভেম্বর ২০১৮ | ৭ অগ্রাহায়ণ ১৪২৫ |

Shomoyer Khobor

টানা ৮ম ইনিংসে ২০০’র নীচে অল আউটের লজ্জা

হতশ্রী ব্যাটিংয়ে প্রথম টেস্টে জিম্বাবুয়েকে জয় উপহার বাংলাদেশের

ক্রীড়া প্রতিবেদক | প্রকাশিত ০৭ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:৫৪:০০

শেষ পর্যন্ত পচা শামুকেই পা কাটলো বাংলাদেশের! যেই দলটার টেস্টের কুলীনতম ফরম্যাটে খেলতে অনীহা শুধু মাত্র অর্থের কারণে। সেই দলটাই ১৭ বছর পর বিদেশের মাটিতে পেলো প্রথম টেস্ট জয়। তাও ১১ মাস কোনও রকম টেস্ট না খেলে! সিলেটের অভিষেক ভেন্যু তাই পয়মন্ত হওয়ার বদলে স্বাগতিকদের ব্যর্থতার সাক্ষী হয়ে রইলো। প্রথম টেস্টে বাংলাদেশকে ১৫১ রানের বিশাল ব্যবধানে হারিয়েছে জিম্বাবুয়ে। এই জয়ে দুই টেস্টের সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল সফরকারীরা।   
সিলেটের টেস্ট অভিষেকে বাংলাদেশ খেলতে পারল না চার দিনও। পাত্তাই পেল না জিম্বাবুয়ের কাছে। রানের ব্যবধানে হার ১৫১ রানের। তবে লড়াইয়ের মানসিকতায় হারের ব্যবধান আরও অনেক বেশি। টেস্ট ক্রিকেটে দেড় যুগের পথচলায় এটি বাংলাদেশের সবচেয়ে বিব্রতকর পরাজয়গুলোর একটি। শেষ ইনিংসে জয়ের জন্য বাংলাদেশের প্রয়োজন ছিল ৩২১, শেষ দুই দিনে ২৯৫। বাংলাদেশ করতে পেরেছে কেবল ১৬৯। টেস্টে দুইশ’র নিচে গুটিয়ে যাওয়ার বিষাদযাত্রা দীর্ঘায়িত হলো টানা অষ্টম ইনিংসে।
জয়ের জন্য দ্বিতীয় ইনিংসে বাংলাদেশের লক্ষ্য ছিল ৩২১ রান। চতুর্থদিনের সকালের শুরুটা বাংলাদেশের মন্দ হয়নি। শুরুর এক ঘন্টা নিরাপদেই কাটিয়ে দেন ইমরুল কায়েস ও লিটন দাস। সমস্যার শুরু ওপেনিং জুটি ভাঙতেই। ৫৬ রানে ভাঙে ওপেনিং জুটি। লিটন দাস ফিরলেন উইকেটে সেট হওয়ার পর। মমিনুল হক শেষ কবে টেস্ট ম্যাচে ভালো খেলেছিলেন সেটা খুঁজে বের করতে হলে পরিসংখ্যান ঘাটতে হচ্ছে! মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ প্রথম ইনিংসে শূন্য রানের পর দ্বিতীয় ইনিংসে করলেন মাত্র ১৬। জায়গা বদলে একটু নিচের দিকে নেমেও উইকেট বাঁচাতে পারলেন না নাজমুল হোসেন শান্ত। লাঞ্চে গেল বাংলাদেশ ১১১ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে। ম্যাচে তখনই মূলতঃ একটাই অপেক্ষা-কত রানে হারছে বাংলাদেশ? সেই অপেক্ষা শেষ করতেও বেশি সময় লাগলো না। চা বিরতির আগেই অলআউট বাংলাদেশ। 
দ্বিতীয় ইনিংসে দলের স্কোর দেড়শ’ ছাড়ালো আরিফুল হকের ওয়ানডে স্টাইলের ব্যাটিংয়ের কারনে। আশপাশ থেকে কোন ব্যাটসম্যানের সহায়তা না পেয়ে আরিফুল ভাবলেন-হারছিই যখন, তখন খানিকটা রান তুলেই হারি! তবে টেস্ট ম্যাচে এমন ব্যাটিং করে বেশিক্ষণ টেকা যায় না। আরিফুল শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে যখন আউট হলেন তখন স্কোরবোর্ডে বাংলাদেশের জমা মাত্র ১৬৯ রান। একটু মনে করিয়ে দেই প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশ গুটিয়ে গিয়েছিল ১৪৩ রানে। সিলেট টেস্টের পুরো ম্যাচ জুড়ে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ যা করলো তাকে ব্যাটিং বলে না-বলে ব্যাটিংয়ের ছিরি! প্রথম দফায় খেললো মাত্র ৫১ ওভার। দ্বিতীয় ইনিংসে লড়াই শেষ ৬৩.১ ওভারে।
জিম্বাবুয়েকে বধ করতে বাংলাদেশ স্পিন উইকেট সাজিয়েছিল। কিন্তু সিলেটের সেই উইকেটে নিজেই বধ বাংলাদেশ! দ্বিতীয় ইনিংসে বাংলাদেশের ১০ উইকেটের মধ্যে ৯ উইকেটই শিকার করলেন জিম্বাবুয়ের স্পিনাররা। খুব যে আহামরি কোন বোলিং করেছে জিম্বাবুয়ে; তা কিন্তু নয়। বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরাই বাজে শট খেলে উইকেট খুঁইয়ে দিয়ে এসেছেন। দুই ইনিংসেই বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের ব্যাটিং এবং আউটের ধরণ জানাচ্ছে-পুরো দল যেন পিকনিক মুডের ক্রিকেট খেলতে নেমেছিল! 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ

বিসিএলের সপ্তম আসর আজ থেকে

বিসিএলের সপ্তম আসর আজ থেকে

২১ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:১৭










এমন ম্যাচও হেরে গেল পাকিস্তান!

এমন ম্যাচও হেরে গেল পাকিস্তান!

২০ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:১০



ব্রেকিং নিউজ






পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) আজ

পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) আজ

২১ নভেম্বর, ২০১৮ ০১:২৩


নগরীতে মাদ্রাসা ছাত্র নিখোঁজ

নগরীতে মাদ্রাসা ছাত্র নিখোঁজ

২১ নভেম্বর, ২০১৮ ০১:২০