খুলনা | বুধবার | ২১ নভেম্বর ২০১৮ | ৭ অগ্রাহায়ণ ১৪২৫ |

তরিকুল ইসলামের অকাল  মৃত্যুতে আমরা শোকাহত

০৬ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:১০:০০

তরিকুল ইসলামের অকাল  মৃত্যুতে আমরা শোকাহত

লাখো কোটি ভক্ত অনুরাগীসহ দলীয় নেতা-কর্মীদের কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে চলে গেলেন দক্ষিণবঙ্গের প্রিয় নেতা মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক সাবেক মন্ত্রী তরিকুল ইসলাম। যশোরের ঈদগাহ ময়দানে তার নামাজে জানাজায় অর্ধ লক্ষাধিক মানুষের সমাগম প্রমান করে তিনি কেমন জনপ্রিয় নেতা ছিলেন। যশোরের ইতিহাসে এতো বেশি মানুষের উপস্থিতিতে জানাজা এর আগে কখনো হয়নি বলে নির্দ্বিধায় স্বীকার করেছেন বিভিন্ন দলের নেতাসহ শ্রেণি পেশার মানুষ। বর্ণাঢ্য জীবনের অধিকারী বরেণ্য রাজনীতিক ও দক্ষিণবঙ্গের রাজনীতির প্রাণপুরুষ তরিকুল ইসলামের বড্ড অসময়ে এই চলে যাওয়ায় শোকে বিহবল যশোরসহ গোটা দক্ষিণাঞ্চলের মানুষ। আমরাও তার এ অকাল মৃত্যুতে শোকাহত।
যশোরবাসির প্রিয় নেতা তরিকুল ইসলাম ১৯৪৬ সালের ১৬ নভেম্বর জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা আলহাজ্ব আবদুল আজিজ ছিলেন শহরের একজন স্বনামধন্য ব্যবসায়ী। মা নূরজাহান বেগম ছিলেন গৃহিণী। পারিবারিক পরিবেশে বাল্যশিক্ষার মাধ্যমে পড়ালেখায় তার হাতেখড়ি। ১৯৫৩ সালে তিনি তৃতীয় শ্রেণিতে ভর্তি হন যশোর জিলা স্কুলে। ১৯৬১ সালে জিলা স্কুল থেকে এসএসসি, ১৯৬৩ সালে সরকারি এম এম কলেজ থেকে আইএ, ১৯৬৮ সালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে অর্থনীতিতে বিএ (অনার্স) ও ১৯৬৯ সালে এমএ ডিগ্রি অর্জন করেন। পারিবারিক জীবনে তিনি ছিলেন দুই ছেলের পিতা। তার স্ত্রী অধ্যাপক নার্গিস ইসলাম যশোর সরকারি সিটি কলেজের উপাধ্যক্ষ হিসেবে অবসরে যান ২০০৫-২০০৬ সালে।
জীবদ্দশায় দীর্ঘ রাজনীতিতে তরিকুল ইসলামকে মাড়িয়ে আসতে হয়েছে কাঁটা বিছানো পথ। রাজনীতিতে দৃঢ়চেতা এ নেতা স্বৈরাচার এরশাদ আমলে গ্রেফতারের পর তিন মাস অজ্ঞাতস্থানে আটক ছিলেন। পরে তাকে এক ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়। শিকার হন নিষ্ঠুর নির্যাতনের। তিনি রাজনৈতিক জীবনে মিথ্যা মামলা ও কারাভোগের শিকার হয়েছেন বারবার। যশোরে উদীচী হত্যা মামলা, রানার পত্রিকার সম্পাদক সাইফুল আলম মুকুল হত্যাকান্ডসহ নানা মামলায় আসামির তালিকায় যুক্ত করা হয় তার নাম। ওয়ান ইলেভেনের সময় অন্য সিনিয়র রাজনীতিকদের মতো গ্রেফতার হন তরিকুল ইসলামও। কারাভোগ করেন দীর্ঘ দেড় বছর। মহাজোট সরকারের আমলেও নতুন নতুন মামলার আসামি হয়ে গ্রেফতার ও কারাভোগ করেছেন। বিএনপিতে তার প্রভাব ও গুরুত্বের কারণে মামলা ও গ্রেফতারের বারবার টার্গেট হয়েছেন রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের। 
বিএনপি’র প্রতিটি শাসনামলে যশোরসহ দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের উন্নয়নে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন তরিকুল ইসলাম। এ জন্য তিনি যশোর উন্নয়নের কারিগর হিসেবেও খ্যাতি পান। তারই একান্ত প্রচেষ্টায় প্রতিষ্ঠিত হয়েছে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, যশোর মেডিকেল কলেজ, যশোর কারিগরি প্রশিক্ষণ মহাবিদ্যালয়, যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতাল ও করোনারি কেয়ার ইউনিট, বিভাগীয় কাস্টমস অফিস, বেনাপোল স্থলবন্দর, আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস, যশোর মডেল পৌরসভা, আঞ্চলিক পাঠাগার, সুইমিং পুল, টেকনিক্যাল ট্রেনিং সেন্টারসহ অসংখ্য প্রতিষ্ঠান। সংবাদপত্রের স্বাধীনতায় বিশ্বাসী এ নেতা দৈনিক লোকসমাজ পত্রিকার প্রকাশক ছিলেন তিনি। বরেণ্য এ রাজনীতিকের মৃত্যুতে গোটা যশোর এখন শোকে ভাসছে। 
অত্যন্ত বিচক্ষন ও দূরদর্শী ছিলেন তরিকুল ইসলাম। তার এ বিচক্ষনতার কারণেই তিনি ধাপে ধাপে বিএনপি’র শীর্ষ পদে অধিষ্টিত হন। তার আকাল মৃত্যুতে আমরা হারালাম একজন দেশ গড়ার কারিগর, পাশাপাশি দক্ষিণবঙ্গের মানুষ হারালো তাদের অভিভাবক। যিনি দেশ ও মানুষের কল্যাণে আজীবন সংগ্রাম করে গেছেন। বহু গুণে গুণান্বিত সবার প্রিয় তরিকুল ইসলামের অকাল মৃত্যুতে শোকে মুহ্যমান গোটা দক্ষিণবঙ্গ। আমরা তার রুহের মাগফিরত কামনা করছি। পাশাপাশি শোকাহত পরিবারের প্রতি জানাচ্ছি গভীর সমবেদনা। আর পরিবারের সকলে যাতে ধৈর্য্য ধারন করতে পারে মহান আল্লাহ তায়ালার কাছে এ প্রার্থনা করছি।


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ

সিরাতুন্নবী (সাঃ) আজ

সিরাতুন্নবী (সাঃ) আজ

২১ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:১০







দখলমুক্ত হোক খুলনার সড়ক মহাসড়ক

দখলমুক্ত হোক খুলনার সড়ক মহাসড়ক

১১ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:১০



ভেজাল থেকে পরিত্রান চায় মানুষ

ভেজাল থেকে পরিত্রান চায় মানুষ

০৮ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:১০



ব্রেকিং নিউজ






পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) আজ

পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) আজ

২১ নভেম্বর, ২০১৮ ০১:২৩


নগরীতে মাদ্রাসা ছাত্র নিখোঁজ

নগরীতে মাদ্রাসা ছাত্র নিখোঁজ

২১ নভেম্বর, ২০১৮ ০১:২০