খুলনা | শনিবার | ১৭ নভেম্বর ২০১৮ | ৩ অগ্রাহায়ণ ১৪২৫ |

Shomoyer Khobor

বিভাগীয় সভার একটি সিদ্ধান্তও বাস্তবায়ন হয়নি : রাজনৈতিক প্রভাবের কাছে অসহায় বিআরটিএ!

নগরীতে ইজিবাইক নিয়ন্ত্রণহীন 

বিশেষ প্রতিনিধি | প্রকাশিত ১৮ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০৫:০০

অবিশ্বাস্য হলেও সত্য, খুলনা মহানগরীতে চলমান ইজিবাইকের কোনও অনুমতি নেই বিআরটিএ থেকে। তালুকদার আব্দুল খালেক এর আগে মেয়র থাকাকালে ৫ হাজারের মতো ইজিবাইক চলার অনুমোদন খুলনা সিটি কর্পোরেশন থেকে দিলেও এখন চলছে ৩০ থেকে ৪০ হাজারের উপরে। ইজিবাইক নিয়ন্ত্রনে রীতিমতো হিমশিম খাচ্ছে কেএমপির ট্রাফিক বিভাগ। সারা শহরেই এখন নিয়ন্ত্রণহীনভাবে চলছে ইজিবাইক। ফলে যানজটের পাশাপাশি নগরীর সৌন্দর্য নষ্ট হচ্ছে। ক্ষমতাসীন দলের ব্যানারে এক ধরনের স্লি¬পে চলছে ইজিবাইক। বিআরটিএ বলেছে, রাজনৈতিক প্রভাবের কাছে তারা এক রকম অসহায়। 
জানা গেছে, নগরীর যানজট নিয়ন্ত্রনে ব্যাটারি চালিত থ্রি হুইলার, ইজি বাইক ও অবৈধ হকার উচ্ছেদে বিভাগীয় কমিশনারের সভাপতিত্বে রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটির সভা ২০১৬ সালে ১১ মে তারিখে অনুষ্ঠিত হয়। খুলনা বিভাগীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এই সভার একটি সিদ্ধান্তও আজ অবধি বাস্তবায়ন হয়নি। এই সভায় খুলনা-২ আসনের এমপি আলহাজ্ব মিজানুর রহমান মিজান, খুলনা-৩ আসনের এমপি বেগম মন্নুজান সুফিয়ান, খুলনা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আ’লীগের সভাপতি শেখ হারুনুর রশিদ, খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার, কেসিসির তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত মেয়র আনিছুর রহমান বিশ্বাষ, খুলনা জেলা প্রশাসক, খুলনা জেলা পুলিশ সুপার, বিজিবি ও র‌্যাবের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা সহ প্রশাসনের অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন। এতো বড় পরিসরের সভা এর পরে আর হয়নি। 
সভার কার্যবিবরণীতে দেখা গেছে, খুলনা-৩ আসনের এমপি বেগম মন্নুজান সুফিয়ান বলেছিলেন, মহানগরীতে ব্যাটারি চালিত থ্রি হুইলারের সংখ্যা এতো বেশি যে, এর সংখ্যা নিয়ন্ত্রণ না করা গেলে ভবিষ্যতে বৈধ থ্রি হুইলার চলাচলে সমস্যা হবে। তিনি আরও বলেন, রূপসা ফেরিঘাট, নিউ মার্কেট, হতে শিরোমনি পর্যন্ত কোনও ব্যাটারি চালিত থ্রি হুইলার চলাচল করতে না পারে সেই বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নিতে হবে। বর্ষীয়ান এই রাজনৈতিক ৫ হাজার ইজিবাইক রেখে বাকিগুলি অপসারণের জন্য সেদিনের ওই সভায় পরামর্শ দিয়েছিলেন। 
অন্যদিকে, খুলনা-২ আসনের এমপি আলহাজ্ব মিজানুর রহমান মিজান বলেছিলেন, নগরীতে চলাচলরত ইজিবাইক বাস্তবতার নিরিখে এই মুহূর্তে সম্পূর্ণ বন্ধ না রেখে  আগে অনুমোদিত ২ হাজার ইজিবাইকের সঙ্গে আরও ৫ হাজার ইজিবাইক চলাচলের জন্য অনুমতি দেয়া যেতে পারে। তিনি আরও বলেন, যে সব প্রতিষ্ঠান স্থানীয়ভাবে যন্ত্রাংশ সংযোজন করে ইজিবাইক বিক্রি করে সেইসব প্রতিষ্ঠান তারা যাতে ইজিবাইক বিক্রি না করতে পারে সেই বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া যেতে পারে।
তৎকালীন খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার নিবাস চন্দ্র মাঝি বলেছিলেন, মহানগরীসহ খুলনা জেলাতে ৩০ থেকে ৪০ হাজারের বেশি ইজিবাইক চলাচল করে। তিনি রূপসা ফেরিঘাট, পিটিআই মোড়, হোটেল রয়্যাল মোড়, ময়লাপোতার মোড়, শিববাড়ী মোড় হয়ে জোড়াগেট পর্যন্ত, আবার রূপসা ফেরিঘাট, নতুন বাজার, কাস্টমসঘাট, জেলা স্কুল, পিকচার প্যালেস, ডাকবাংলার মোড়, শিববাড়ী মোড় হয়ে জোড়াগেট পর্যন্ত ইজিবাইক চলাচল বন্দগের পরামর্শ দিয়েছিলেন। 
খুলনা সিটি কর্পোরেশনের তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত মেয়র আনিছুর রহমান বিশ্বাষ ওই সভায় বলেছিলেন, ইতোপূর্বে খুলনা মহানগরীতে ১৯৬৩টি ইজিবাইক চলাচলের জন্য রেজিস্ট্রেশনের অনুমতি দেয়া হয়েছিল, এর পরে মন্ত্রণালয়ের কোনও নির্দেশনা না থাকায় আর রেজিস্ট্রেশন দেয়া হয়নি। 
এই বিষয়ে বিআরটিএ খুলনা অফিসের উপ-পরিচালক জিয়াউর রহমান হতাশার সঙ্গে বলেছেন, বিষয়টি রাজনৈতিক। তবে আমরা দাপ্তরিক নির্দেশের অপেক্ষায় রয়েছি। তিনি জানান, বিদ্যমান আইন ও বিধিমতে ব্যাটারি চালিত থ্রি হুইলার বিআরটিএ কর্তৃক রেজিস্ট্রেশন প্রদানের কোনও সুযোগ নেই। আবার স্থানীয় সরকার বা পৌরসভা কিংবা সিটি কর্পোরেশন শুধুমাত্র নন মোটরাইজড বাহন চলাচলের অনুমতি দিয়ে থাকে। যার কারনে ব্যাটারি চালিত বাহন বা ইজি বাইক চলাচলের অনুমতি দেয়ার এখতেয়ার পৌরসভার নেই। তিনি আরও বলেন, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক ব্যাটারি চালিত থ্রি হুইলার (ইজিবাইক) আমদানি নিষিদ্ধ হলেও তার যন্ত্রাংশ, ফ্রেম, ড্রাইভার বক্স, রুফ ফ্রেম, সাইড ফ্রেম, মোটর, চার্জার, কন্ট্রোল বক্স, ব্যাটারি আমদানি করা হচ্ছে। এই সব যন্ত্রাংশ ও ব্যাটারি আমদানি করে এবং পরে তা সংযোজন করে ব্যাটারি চালিত ইজিবাইক নগরিতে অবাধে চলাচল করছে, বিষয়টি একেবারেই ওপেন সিক্রেট। 
এ বিষয়ে সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক টেলিফোনে প্রতিবেদককে বলেছেন, জাতীয় নির্বাচন একেবারেই দ্বারপ্রান্তে। নির্বাচনের পরে তিনি যানজটরোধে এবং অবৈধ ইজিবাইক নিয়ন্ত্রণে নগরীর সবাইকে নিয়ে একটি কার্যকরী পদক্ষেপ নেবেন।
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ